০৭ ডিসেম্বর ২০১৪

টি২০’তেও নাম্বার ওয়ান সাকিব

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আইসিসির টি২০ র‌্যাঙ্কিংয়েরও শীর্ষ অলরাউন্ডার হয়েছেন সাকিব আল হাসান। প্রকাশিত সর্বশেষ র‌্যাঙ্কিংয়ের অলরাউন্ডার ক্যাটাগরিতে সবার উপরে রয়েছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক। ৩৭৮ রেটিং পয়েন্ট পেয়ে তালিকার ১ নম্বরে উঠেছেন বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার। তার পরেই রয়েছেন পাকিস্তানের মোহাম্মদ হাফিজ। তার রেটিং পয়েন্ট ৩৬৪। এ ছাড়া পাকিস্তানের আরেক ক্রিকেটার শহীদ আফ্রিদি তৃতীয়, অস্ট্রেলিয়ার শেন ওয়াটসন চতুর্থ ও ভারতের যুবরাজ সিং রয়েছেন পঞ্চমস্থানে। যদিও সর্বশেষ ঘোষিত ভারতের বিশ্বকাপের প্রাথমিক ৩০ সদস্যের দলে জায়গা হয়নি যুবরাজের। আইসিসির সেরা টেস্ট অলরাউন্ডারও সাকিব। সম্প্রতি হোম সিরিজে জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে অসাধারণ পারফর্ম করে আবারও টেস্টে শীর্ষ অলরাউন্ডারের স্থান দখল করেছেন তিনি। এমন সময় এ সুসংবাদটি আসল যখন সাকিব নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে পুরোপুরি মুক্ত হয়েছেন।

জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়েছেন সাকিব। তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ৪১.৮৩ গড়ে ২৫১ রান ও ১৮ উইকেট নিয়ে সিরিজ সেরা হন সাকিব। সেই সঙ্গে টেস্ট অলরাউন্ডারের শীর্ষস্থানটিও আবারও পুনরুদ্ধার করেন। সাকিব সর্বশেষ এপ্রিলে বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি২০ খেলেন। এরপরও সাকিব কিভাবে হন টি২০তে সেরা অলরাউন্ডার? এ প্রশ্ন থাকতেই পারে। ঠিক যেমনটি কম টেস্ট খেলে জ্যাক ক্যালিসের সঙ্গে বার বার প্রতিদ্বন্দ্বিতা এগিয়ে যেতেন সাকিব। কখনও পিছিয়েও পড়তেন। এমনটিই ঘটেছে টি২০তেও। বেশি টি২০ না খেললেও অন্যরা খেলেন এবং নৈপুণ্য দেখাতে পারেন না। সাকিবও তাই শীর্ষে উঠে যান। এবারও যেমন মোহাম্মদ হাফিজকে পেছনে ফেলে সাকিব শীর্ষস্থানে উঠে গেছেন। হাফিজ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি টি২০ খেলে কোন নৈপুণ্যই দেখাতে পারেননি। একটি মাত্র উইকেট নিয়েছেন। দুই ম্যাচে ব্যাট হাতে করেছেন মাত্র ১১ রান। তাই সাকিব ম্যাচ না খেলেও সেরার স্থানটিতে বসেছেন।

সাকিব ২০১১ সালে সর্বপ্রথম টেস্ট অলরাউন্ডারের শীর্ষস্থানে আসীন হন। প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে এমন স্থানে বসেন সাকিব। এরপর ২০১২ সালে ওয়ানডের সেরা আসনটিও তার দখলে যায়। ওয়ানডের সেরা আসনটি এখন সাকিবের না থাকলেও টেস্ট ও টি২০’র অলরাউন্ডারদের মধ্যে সেরা এখন সাকিবই। টি২০ অলরাউন্ডারের আসনে দুই নম্বর থেকে এক নম্বরে উঠে গেছেন সাকিব।