২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লাল কাঁকড়ার মিছিল দেখতে কক্সবাজার

দেশের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার অন্যতম। এখানে রয়েছে নিরাপদ খোলামেলা বালিয়াড়ি। রয়েছে সারিবদ্ধ প্রচুর ঝাউবীথি। ভোরবেলায় বালিয়াড়িতে দেখা মেলে লাল কাঁকড়ার ঝাঁক। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে বালিয়াড়ির অসংখ্য গর্ত থেকে বেরিয়ে আসে লাখ লাখ কাঁকড়া। তাদের দৌড়াদৌড়ির দৃশ্য দেখার মতো। সৈকতের পাশে উঁচু পাহাড়ে রয়েছে রাডার। মহেশখালীতে রয়েছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য আদিনাথ মন্দির। যেখানে প্রতিবছর হাজার হাজার দেশী-বিদেশী ধর্মপ্রিয় লোকজনের সমাগম ঘটে। শহরের মধ্যে রয়েছে অন্তত ২শ’ বছরের পুরনো বৌদ্ধবিহার। সৈকত সড়ক হয়ে যেতেই চোখে পড়ে হিমছড়ি ঝর্ণা। যেখানে সুউচ্চ পাহাড় থেকে প্রাকৃতিকভাবে অনর্গল পানি পড়ছে। তিন কিলোমিটার পর রয়েছে পাথুরে বিচ-ইনানী। পূর্বপার্শ্বে পাহাড় ও পশ্চিমে সাগর প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর সৌন্দর্যের লীলাভূমি। টেকনাফে রয়েছে আঁকাবাঁকা সড়ক হয়ে উঁচু পাহাড় নাইট্যং। দেশের সর্বদক্ষিণ শেষ সীমানায় আছে দেশের একমাত্র প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিন। এসব দর্শনীয় স্থান প্রত্যক্ষ করতে প্রতি বছর লাখ লাখ দর্শনার্থী-ভ্রমণপিপাসু দেশী-বিদেশী পর্যটকের আগমন ঘটে এখানে। তবে বর্তমানে অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতি, হরতাল ও অবরোধের কারণে পর্যটন মৌসুমেও বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতনগরী কক্সবাজারে পর্যটকের দেখা মিলছে না। ফলে এ শিল্পকে কেন্দ্র করে কক্সবাজারে গড়ে ওঠা হোটেল-মোটেল, গেস্টহাউস-রিসোর্ট, রেস্তোরাঁ, শামুক-ঝিনুক শিল্পপণ্যের দোকান, সৈকতের কিটকট চেয়ার, বার্মিজ মার্কেট ও পর্যটনসংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা রয়েছেন হতাশায়। প্রতিবছর পর্যটনের ভর মৌসুমে কক্সবাজারের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র সমুদ্র সৈকত ও ঐতিহ্যবাহী বৌদ্ধবিহার, ইনানী সৈকত, মহেশখালীর আদিনাথ মন্দির, রামুর রামকুট ও টেকনাফের সমুদ্র বেষ্টিত প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে। কিন্তু বর্তমানে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, হরতাল ও অবরোধের কারণে এসব পর্যটন কেন্দ্রে পর্যটক শূন্যতা বিরাজ করছে।

-এইচএম এরশাদ, কক্সবাজার থেকে