১০ মার্চ ২০১৫

আতাপাত্তুর ভাবনায় শুধুই জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিশ্বকাপের প্রথম পাঁচ ম্যাচের তিনটিতেই জয় আর বাকি দুই ম্যাচে পরাজয়। তারপরও ছয় পয়েন্ট নিয়ে ইতোমধ্যেই একাদশতম আসরের কোয়ার্টার ফাইনালের টিকেট নিশ্চিত করে ফেলেছে শ্রীলঙ্কা। গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে আজ আবারও মাঠে নামছে ’৯৬-এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। অস্ট্রেলিয়ার হোবার্টে লঙ্কানদের প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড। তুলনামূলকভাবে খর্ব শক্তির দল স্কটল্যান্ড। কিন্তু তারপরও সতর্ক লঙ্কান কোচ। কারণ এই ম্যাচে জয়ের বিকল্প ভাবছেন না মারভান আতাপাত্তু।

এ বিষয়ে ম্যাচের আগে মারভান আতাপাত্তু বলেন, ‘আমাদের প্রত্যাশা হলো স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে সেরা খেলাটা উপহার দেয়া। বিশ্বকাপে অন্য সব দলের বিপক্ষে যেভাবে খেলেছি আমরা; ঠিক স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচেও তার ব্যতিক্রম হবে না। কেননা আমরা যখন মাঠে নামব তখন নতুন করেই ব্যাট চালানো শুরু করব।’ স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচের আগে ইনজুরিতে জর্জরিত শ্রীলঙ্কা। চোটের কারণে ইতোমধ্যেই বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেছে অল রাউন্ডার জীভান মেন্ডিস ও ব্যাটসম্যান দিমুথ করুনারতেœর। মঙ্গলবার হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে ছিটকে পড়েছেন ব্যাটসম্যান দিমুথ করুনারতেœ। যা লঙ্কানদের জন্য খুবই দুঃসংবাদ। এদিকে ইনজুরি থেকে মুক্তির লড়াইয়ে আছেন বাঁ-হাতি স্পিনার রঙ্গনা হেরাথ এবং উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান লাহিরু থিরিমান্নে। যে কারণে লাহিরু থিরিমান্নের খেলা আজও অনিশ্চিত।

তবে তারপরও চোটাক্রান্ত লঙ্কান দলকে জয় এনে দিতে দলের সিনিয়র ক্রিকেটাররা নিজেদের সেরাটা ঢেলে দেবেন বলে প্রত্যাশা করছেন মারভান আতাপাত্তু। এ বিষয়ে দেশটির সাবেক এই তারকা ক্রিকেটার বলেন, ‘কোন দলই এতসব চোট নিয়ে বিশ্বকাপের বোঝা নয়। তাই এটা সুস্পষ্ট যে, বিশ্বকাপে ভাল করার পরিস্থিতি আমাদের এখন নেই। কিন্তু তারপরও মারভান আতাপাত্তু আশাবাদী যে দলের অন্য খেলোয়াড়রা ভাল পারফর্মেন্স উপহার দেবে। এ বিষয়ে তার অভিমত হলো, ‘অবশ্যই আশা করছি দলের অন্যসব খেলোয়াড় নিজেদের সেরাটা দিতে চেষ্টা করবে। ’

এবারের বিশ্বকাপের শুরু থেকেই ব্যাটসম্যানরা রান পাচ্ছে। তার ব্যতিক্রম না লঙ্কান ব্যাটসম্যানরাও। এবারের বিশ্বকাপে তো টানা তিন সেঞ্চুরি করে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন লঙ্কান ব্যাটসম্যান কুমার সাঙ্গাকারা। ব্যাটসম্যানরা ভাল করবে এমন বিশ্বাস মারভন আতাপাত্তুরও আছে। তাঁর মতে, বিশ্বকাপে ৩৬ ওভারের পর থেকে আসলে টি২০ ম্যাচে পরিণত হয়। তাই শেষ সময়টা ব্যাটসম্যানদের দেখে-শুনে খেলতে হবে। এ বিষয়ে মারভান আতাপাত্তু বলেন, ‘পাওয়ার প্লে’র পর যদি হাতে উইকেট থাকে তাহলে ব্যাটসম্যানরা বড় সংগ্রহ করতে পারবে। বিশেষ করে ৩৬ ওভার থেকে তো আসলে ম্যাচ টি২০তেই পরিণত হয়। তবে এটা ঠিক যে আমরা আমাদের পরিকল্পনা এবং দক্ষতা নিয়ে কাজ করছি। ম্যাচে জয় পাওয়ার জন্য আমাদের অবশ্যই এই জিনিসগুলো মনে রাখতে হবে।’

১৯৯৬ সালে বিশ্বকে চমকে দিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। সেবারই প্রথমবারের মতো স্বপ্নের বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ পায় সিংহলীরা। এরপর মাঝে কিছুটা সময় নিষ্প্রভ কাটলেও গত দুই বিশ্বকাপেই ফাইনাল খেলেছে লঙ্কানরা। তবে এবার কি পারবেন তারা? সেই পরিসংখ্যান মিলবে আজই। গত দুইবারের ফাইনালিস্ট শ্রীলঙ্কা এবারও শিরোপাটাকে নিজেদের শোকেসে রাখতে চায়।