১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাগেরহাটে মহাসড়ক দখল করে বাজার ॥ বাড়ছে দুর্ঘটনা

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাট-মংলা-খুলনা মহাসড়কের দুই পাশের সাইড সোল্ডার অবৈধ দখল করে ইট-বালু ও কাঠের ব্যবসা করায় রাস্তা সংকুচিত হয়ে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা। সওজ, পুলিশ ও প্রশাসন অবৈধ দখলকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় ক্রমশ অবেধ দখল বাড়ছে। বাগেরহাট-খুলনা-মংলা মহাসড়কের কাটাখালী বাসস্ট্যান্ড, চুলকাঠি বাসস্ট্যান্ড, ভরসাপুর বাসস্ট্যান্ড, ফয়লা বাসস্ট্যান্ড, রোনসেন বাসস্ট্যান্ড, চেয়ারম্যান মোড় বাসস্ট্যান্ড, ভাগা বাসস্ট্যান্ড ও দিগরাজ বাসস্ট্যান্ড। অপরদিকে কাটাখালী বাগেরহাট মহাসড়কের কাটাখালী বাসস্ট্যান্ড, কাঠালতলা বাসস্ট্যান্ড, সিএ্যান্ডবি বাজার বাসস্ট্যান্ড, বারাকপুর বাসস্ট্যান্ড ও ষাটগুম্বজ বাসস্ট্যান্ড ছাড়াও বাগেরহাট যাত্রাপুর সড়কের ষাটগুম্বজ মোড়, যাত্রাপুর মোড়, বাহিরদিয়া মোড়, কাজদিয়া মোড় ও কর্ণপুর মোড়, শুকদাড়া সড়কের বেতাগা বাজার, ভাঙ্গনপাড়া বাজার ও গৌরম্ভা বাজারসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও সড়কের পার্শ্ববর্তী এলাকা দখল করে কাঠ, বালু, ইটের স্তূপ করে চলছে ক্রয়-বিক্রয়। ফলে যানবাহন চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, রাস্তার দু’পার্শ্বের সাইড সোল্ডার দখল করে এমনভবে ইট বালু ও কাঠ ফেলে রাখা হয়েছে যে, রাস্তা দিয়ে হেঁটে চলাচল করা দুরূহ হয়ে পড়েছে। কোন কোন স্থানে একাধিক প্রভাবশালী কাঠ ব্যবসায়ী আইনের তোয়াক্কা না করে ইচ্ছামত রাস্তার ওপর কাঠ ফেলে রেখেছে। পথচারী বা যানবাহন চালকরা কিছু বলতে গেলে উল্টো কাঠ ব্যবসায়ীদের হাতে শারীরিক ও মানসিকভাবে নাজেহাল হতে হয়। স্থানীয় পুলিশ ও প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করে না।

যমুনাপাড়ে শেখ রাসেল শিশুপার্ক নির্মাণের সিদ্ধান্ত

স্টাফ রিপোর্টার, সিরাজগঞ্জ ॥ স্বাধীনতার মাসে যমুনারপাড়ে শহীদ শেখ রাসেল পার্কের নির্মাণ কাজ শুরু করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বুধবার সকালে অধ্যাপক ডাঃ হাবিবে মিল্লাত মুন্না এমপি সরেজমিন শহীদ শেখ রাসেল শিশু পার্কের স্থান পরিদর্শন করে উপজেলা পরিষদ কক্ষে এক সভায় চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়। এ সময় জেলা প্রশাসক মোঃ বিল্লাল হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান রিয়াজ উদ্দিন, নির্বাহী অফিসার ব্রেনজন কাম্বুগংসহ সংশিষ্ট কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। সভায় সরকারের বরাদ্দ পঞ্চাশ লাখ টাকা শিশুদের বিনোদনের জন্য বিভিন্ন উপকরণ সংগ্রহ এবং স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

পরে অধ্যাপক মিল্লাত উপজেলা হলরুমে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের অনুদানের চেক, প্রকৃত জেলেদের মাঝে পরিচয়পত্র প্রদান, অসচ্ছল প্রতিবন্ধীদের ভাতাবহি, প্রকৃত কৃষকদের মাঝে কৃষিকার্ড ও কৃষি উপকরণ বিতরণ ও পাট চাষীদের মাঝে পাটবীজ বিতরণ উপলক্ষে আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া, সাবেক সহ-সভাপতি মোস্তফা কামাল খান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী ইসহাক আলী, পৌর প্যানেল মেয়র সেলিম আহমেদ, আসাদ উদ্দিন পবলু উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচিত সংবাদ