১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তুরস্কের প্রসিকিউটর ও দুই জিম্মিকারী নিহত

  • জিম্মি নাটকের অবসান

তুরস্কের ইস্তাম্বুলের আদালতে জিম্মি করা এক প্রসিকিউটর গোলাগুলির ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এদিকে তার দুই জিম্মিকারী নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে নিহত হয়েছে। দেশটির কট্টর বামপন্থী একটি দল মঙ্গলবার ওই প্রসিকিউটরকে জিম্মি করে এবং তাদের দাবি পূরণ না হলে তাকে হত্যার হুমকি দেয়। খবর বিবিসি ও ওয়েবসাইটের।

দ্য ‘রেভোলিউশনারি পিপলস লিবারেশন পার্টি-ফ্রন্ট’ (ডিএইচকেপি-সি) নামের ওই দলটি তাদের হাতে জিম্মি প্রসিকিউটরের মাথায় বন্দুক ধরে রাখার একটি ছবি প্রকাশ করে। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোগান বলেছেন, মেহমেত সেলিম কিরাজ নামের ওই প্রসিকিউটরের মাথায় তিনটি এবং শরীরে দুটি গুলি করা হয়। হাসপাতালে জরুরী অস্ত্রোপচার করা সত্ত্বেও তিনি মারা যান। পুলিশ প্রধান সেলামি আলতিনক বলেছেন, কর্তৃপক্ষ জিম্মিকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। কিন্তু কিরাজকে যে কক্ষে আটক রাখা হয়েছিল সেখান থেকে গুলির শব্দ পাওয়ার পর কর্তৃপক্ষ অভিযান চালাতে বাধ্য হয়। কিরাজকে জিম্মি করা হয়েছিল কারণ ২০১৩ সালে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে এক কিশোরের মৃত্যু হওয়ার ঘটনায় তদন্তের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন। ২০১৩ সালের মার্চে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ চলার সময় ১৫ বছর বয়সী কিশোর বেরকিন এলভান পুলিশের ছোঁড়া টিয়ার গ্যাসের শেলে মাথায় গুরুতর আঘাত পায় এবং কোমায় চলে যায়। প্রায় নয় মাস কোমায় থাকার পর এলভান মারা যায়। ডিএইচকেপি-সি তাদের ওয়েবসাইটে এলভানের মৃত্যুর জন্য দায়ী পুলিশ কর্মকর্তাকে টেলিভিশনে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়ার দাবি জানায়।

ফেসবুকের স্ক্র্যাপবুক

নয়া ফিচার যুক্ত করেছে ফেসবুক। যারা সন্তানের ছবি ফেসবুকে আপলোড করেন তাদের এক ছাতার তলায় দুর্দান্ত ছবি শেয়ারিং অভিজ্ঞতা দিতে ফেসবুকের এই স্ক্র্যাপবুক ফিচার। এই পাইলট প্রজেক্টে পছন্দমতো একটি বিশেষ ট্যাগ ব্যবহার করলেই ফেসবুকে আপলোড করা শিশুর সব ছবিই স্ক্র্যাপবুকে জড়ো হয়ে থাকবে। -ওয়েবসাইট

নতুন শ্রমিক!

ভবিষ্যতে কারখানায় মানুষ বা বিশালাকার রোবট শ্রমিকের পরিবর্তে কাজ করবে পিঁপড়া আর প্রজাপতির মতো ক্ষুদ্রাকার একঝাঁক রোবট। জার্মানির বেসরকারী অটোমেশন প্রতিষ্ঠান ফেস্টো কারখানায় কাজের উপযোগী এমন রোবট তৈরি করেছে। ক্ষুদ্র মোটর ও পাখাযুক্ত খুবই হালকা যান্ত্রিক প্রজাপতি তৈরি করেছে ফেস্টো যা একসঙ্গে উড়তে পারে। আর পিঁপড়ার মাথার সামনে স্টেরিও ভিডিও ক্যামেরা এবং পায়ে পিজোইলেকট্রিক প্রযুক্তি বসানো থাকে যার সাহায্যে এটি নড়াচড়া করতে পারে। -টেলিগ্রাফ