২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সহমরণে বট-পাকুড় দম্পতি!

সমুদ্র হক ॥ পাশাপাশি থাকা বট ও পাকুড় বৃক্ষের বয়স আনুমানিক ২শ’ বছরের বেশি। বছর কয়েক আগে এলাকার লোকজন ঘটা করে কোন এক শুভলগ্নে বট-পাকুড়ের বিয়েও দিয়েছিল ধুমধাম করেই। শনিবারের ঝড়ে মধুময় প্রেমের এই বৃক্ষ দম্পতির সহমরণ হলো। গ্রামের কেউ কেউ এ জন্য কয়েক ফোঁটা চোখের জলও ফেলল বৃক্ষযুগলের জন্য। বগুড়া শহর থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরে সাবগ্রাম পালপাড়ায় এক মন্দিরের কাছে বহু যুগ ধরে এই বট-পাকুড়ের গাছ আশপাশের দশ গ্রামের মানুষের প্রিয় বন্ধু ছিল। গ্রীষ্মের দাবদাহে যুগল গাছের ছায়াতলে বসে শীতল হয়ে প্রাণ জুড়াত হাজারো মানুষ। শিশুরা বটের ঝুলন্ত রশিতে দোলনায় দোল খেত মনের সুখে। ভরা চাঁদের মায়াবি আলোয় প্রণয় যুগল গাছের নিচে বসে মধুময়তায় হৃদয়ের কথা বলতে ব্যাকুল হয়ে উঠত এ যুগের কোন প্রেমিক-প্রেমিকা। এই তরুতলে কত প্রেমিক-প্রেমিকার স্মৃতি যে রয়ে গেছে...। বগুড়ায় শনিবার সন্ধ্যার ২১ মিনিটের ঝড় সব কিছুই চুরমার করে দিল। বট-পাকুড় জুটিকে এক সঙ্গে উপড়ে দিল ঝড়। একটি ঝড় এভাবেই সহমরণ ঘটাল বট-পাকুড়ের। বৃক্ষ দম্পতির অবসান ঘটল দু’শ’ বছরের। গ্রামের লোকজন সকাল থেকে বট-পাকুড়ের কাছে গিয়ে বসল কিছুটা সময়। সকলের চোখ ভেজা। ক’জন বললেন গ্রীষ্মের দাবদাহে আর তো কেউ ছায়াতলে আগলে রাখবে না। প্রাণ জুড়িয়ে দেবে না। প্রণয়ের মধুময়ের মালা গেঁথেও দেবে না ভরা চাঁদের কোন মায়াবি রাতে...। মন্দির কর্তৃপক্ষ জানাল হৃদয়ের আবেগের অনুভূতি দিয়েই বট-পাকুড়ের বিদায়ের পালা সম্পন্ন করা হবে।

নির্বাচিত সংবাদ