২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাগেরহাটে কলেজ শিক্ষক ও স্ত্রীকে মারপিট

  • প্রতিবাদে থানা ঘেরাও, ধর্মঘট, এসআইয়ের কুশপুতুল দাহ

বাবুল সরদার, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাটের শরণখোলার রায়েন্দা বাজারের ব্যবসায়ী ও তাফালবাড়ী স্কুল এ্যান্ড কলেজের কম্পিউটার বিভাগের শিক্ষক আরিফ হোসেন দুলাল, তাঁর স্ত্রী শাহানা বেগম ও ছেলে লিপুকে পুলিশী নির্যাতনের ঘটনায় সেখানে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। ক্ষুব্ধ জনতা রবিবার রাতে থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের প্রত্যাহার ও বিচারের দাবিতে সোমবার সকাল থেকে উপজেলা সদরের রায়েন্দা বাজারের সব দোকানপাট, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা বন্ধ করে দিয়েছে ব্যবসায়ী ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। উত্তেজিত জনতা নির্যাতনকারী থানার এসআই মাহবুব হোসেনের কুশপুতুল পুড়িয়ে বিক্ষোভ করেছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি মিলনায়তনে এদিন এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পুলিশী টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে।

আহত শিক্ষকের পরিবারের অভিযোগ, তিন বছর আগে আরিফ হোসেন দুলাল স্থানীয় বাসিন্দা কালাম ফরেস্টারের কাছ থেকে পাঁচ শতক জমি কিনে সেখানে ঘর তুলে বসবাস করছেন।

কিন্তু কালাম ফরেস্টার ওই জমি তাঁর বলে দাবি করেন। এ নিয়ে আদালতে মামলা হলে সে রায়ও ওই শিক্ষকের পক্ষে যায়। রবিবার আরিফ সেখানে বিল্ডিংয়ের কাজ শুরু করলে কালাম ফরেস্টার পুলিশ নিয়ে বাধা দেন। এতে পুলিশের সঙ্গে বাকবিত-া হলে তাঁদের ওপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরিফ জানান, পুলিশ তাঁর ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ করে আসবাবপত্র ভাঙচুর এবং তাঁদের হাতে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে নিষ্ঠুর নির্যাতন চালায়।

পরে থানায় নিয়েও তাঁকে ও তাঁর স্ত্রী-পুত্রকে আবারও মারধর করে পুলিশ। খবর পেয়ে ইউএনও মোহাম্মদ অতুল ম-ল থানা থেকে তাঁদের এনে হাসপাতালে ভর্তি করেন। থানার ওসি মোঃ রেজাউল করিম জানিয়েছেন, পাঁচরাস্তা এলাকার বাসিন্দা আবুল কালাম আজাদ ওরফে কালাম ফরেস্টারের অভিযোগের ভিত্তিতে এসআই মাহবুবসহ পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে ওই শিক্ষক পুলিশের ওপর হামলা চালান। এতে এসআই মাহবুব হোসেন আহত হন। তিনি এখন শরণখোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। পেশাগত কাজে বাধা দেয়ায় তাঁদের আটক করা হয়।

নির্বাচিত সংবাদ