১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নেতা, ভূখণ্ড ও অর্থ নেই; তবু তারা ভয়ঙ্কর

  • সস্তায় হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে আল শাবাব

তারা তাদের নেতা, বন্দর, চেক পয়েন্ট এবং ভূখ- হারিয়েছে। এমনকি তারা তাদের দলের বেশিরভাগ সদস্য ও অর্থ খুইয়েছে। তাদের বোকো হারামের মতো সাঁজোয়া যান নেই। তালেবানের মতো পপি ক্ষেত নেই, ইসলামিক স্টেটের (আইএস) মতো তেল ক্ষেত্রও নেই।

তারা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন আল কায়েদার অন্যতম সহিংস শাখা সোমালিয়া ভিত্তিক আল শাবাব জঙ্গীগোষ্ঠী। বিশ্বের শীর্ষ স্থানীয় এই সন্ত্রাসী সংগঠনটি সবচেয়ে কম খরচে হত্যাযজ্ঞের মতো অভিযান পরিচালনা করে। তবে গত সপ্তাহে কেনিয়ার এক বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা চালিয়ে তারা দেখিয়ে দিয়েছে, সস্তায় গণহত্যা চালানোর মতো ভয়ঙ্কর বিষয়ে তারা কতটা দক্ষ হয়ে উঠেছে। গত দুই বছর ধরে শাবাব জঙ্গী দলের সবচেয়ে অপরিহার্য অংশ তরুণ বন্দুকধারীরা কেনিয়ার শপিংমলে, বাসে, খনিতে, উপকূলীয় গ্রামে এবং গত সপ্তাহে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা চালিয়েছে। ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে চার জঙ্গী সাধারণ রাইফেল দিয়ে হামলা চালিয়ে ১৪২ জন শিক্ষার্থীকে হত্যা করেছে। মাত্র কয়েকজন সদস্য এবং কিছু হালকা অস্ত্র দিয়ে তারা শতশত মানুষকে হত্যা করে কেনিয়াকে কাঁপিয়ে দিয়েছে। কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবির এক গবেষক ম্যাক বিডেন বলেছেন, আমি বলব আল শাবাব সন্ত্রাসকে খুব সহজভাবে নিয়েছে। তারা হালকা অস্ত্রে সজ্জিত, খুবই সুশৃঙ্খল এবং অপেক্ষাকৃত ভাল প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তারা অবশ্যই তাদের কিছু প্রধান রাজস্ব প্রবাহ হারিয়েছে। তবে তারা তাদের চরম অবস্থায়ও তারা টিকে আছে। সোমালিয়াকে পুনর্দখল এবং শাবাব জঙ্গীদের শক্ত ঘাঁটি থেকে হটিয়ে দিতে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আন্তর্জাতিক সামরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও শাবাব জঙ্গীরা স্বাভাবিক অবস্থায় প্রত্যাবর্তনের বিষয়টি প্রমাণ করেছে। আল শাবাব তাদের সাম্প্রতিক হামলা চালিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে, সবই ভূখ- সম্পর্কিত নয়। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, তারা কোন রকমে বেঁচে আছে। তারা ক্রমাগত গ্রাম বদল করছে এবং বিশ্বের সবচেয়ে গরিব এলাকায় বসবাস করছে। তাই তাদের দমন করতে কোন কৌশলই কাজে আসছে না।

-ইন্টারন্যাশনাল নিউইয়র্ক টাইমস