১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গোপন তথ্য পাচার, চীনে নারী সাংবাদিকের ৭ বছর জেল

চীনের একটি আদালত শুক্রবার রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য পাচারের দায়ে ৭১ বছর বয়সী এক নারী সাংবাদিককে সাত বছরের কারাদ- দিয়েছে। মানবাধিকার সংগঠনগুলো একে সরকারের সমালোচকদের বিরুদ্ধে দমন অভিযানের অংশ হিসেবে দেখছে। ২০০০ সালে ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইনস্টিটিউট ঘোষিত ‘ওয়ার্ল্ড প্রেস হিরো’র ৫০ জনের তালিকায় ইউর নাম রয়েছে। খবর এএফপির।

বেজিংয়ের ৩ নম্বর ইন্টারমিডিয়েট পিপলস কোর্ট একটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানায়, জাও ইউ ‘অবৈধভাবে বিদেশীদের কাছে রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য পাচার করেছেন।’ ইউর আইনজীবী শাং বাওজুন বলেন, ‘আমরা এই রায়ে অত্যন্ত হতাশ।’ ইউর আইনজীবীরা আদালতের সামনে যুক্তি তুলে ধরার চেষ্টা করেন যে, তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে হুমকি দিয়ে জোর করে তাঁর কাছ থেকে ‘স্বীকারোক্তি’ আদায় করা হয়েছে।

ব্রিটেনভিত্তিক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠান এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের গবেষক উইলিয়াম নি বলেন, তিনি স্বেচ্ছাচারী রাষ্ট্রীয় গোপন আইনের শিকার। এই আইন এ্যাক্টিভিস্টদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়। গত এপ্রিল মাসে গাও নিখোঁজ হন এবং এক মাস পর তাঁকে চীনের রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যমে দেখা যায়। সেখানে তিনি একটি ‘ভুল’ করেছেন বলে স্বীকার করেন। বিচারে তাঁর এই বিবৃতিকে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা প্রমাণ হিসেবে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবহার করেন। শাং বলেন, পুলিশ গাওয়ের ছেলের বিরুদ্ধে হুমকি দেয়ার পর তিনি এ বিবৃতি দেন। তিনি আরও জানান, যখন আদালতে এই বিচারের রায়টি পড়ে শোনানো হচ্ছিল তখন গাও ‘দৃঢ়কণ্ঠে’ এর বিরুদ্ধে আপিল করার কথা বলেন। কিন্তু তাঁকে আর কোন বক্তব্য প্রদান করতে দেয়া হয়নি।