২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজপথে সাঁতার কাটছে কুমির

  • আজব হলেও গুজব নয়

নগর কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে বেহাল অবস্থায় ভারতের আইটি শহর ব্যাঙ্গালুরুর রাস্তাঘাট। দীর্ঘদিন ধরেই নগরবাসী কর্তৃপক্ষ বরাবর বিভিন্ন কায়দায় দাবি জানিয়ে আসছে রাস্তা ঠিক করার জন্য। কিন্তু এতকিছুর পরেও টনক নড়ছে না তাদের। এমনকি শহরের প্রাণকেন্দ্র বলে খ্যাত স্থানের রাস্তাগুলোর অবস্থাও তথৈবচ। তবে সম্প্রতি ব্যাঙ্গালুরুর এক শিল্পী রাস্তার জরাজীর্ণ অবস্থা নিয়ে জনগণ ও কর্তৃপক্ষের নজর কাড়ার জন্য ভিন্নধর্মী এক প্রতিবাদের আয়োজন করেন। রাস্তার যেখানে খানাখন্দ হওয়ার কারণে পানি জমে থাকে, সেখানে বাদল নানজুয়ানদাস্বামী নামের ওই শিল্পী একটি জ্যান্ত কুমির এনে ছেড়ে দিয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার ব্যাঙ্গালুরুর সুলতানপালায়া মেইন রোডের একটি দীর্ঘ গর্তের মধ্যে শিল্পী বাদল একটি ১২ ফুট দৈর্ঘ্যরে কুমির ছেড়ে দেন। ৩৬ বছর বয়সী ওই শিল্পী অনেকদিন ধরেই নগর কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় অতিষ্ঠ হয়ে শেষমেশ এ ধরনের একটি কাজ করেন। তবে মজার বিষয় হলো, এতকিছুর পরেও নগর কর্তৃপক্ষের কিন্তু টনক মোটেও নড়েনি। কিন্তু নগরবাসী এই বিষয়টিকে বেশ আমোদের সঙ্গেই নিয়েছে। তাই কুমির আনার জন্য বাদল নানজুয়ানদাস্বামী যে ছয় হাজার রুপী খরচ করেছে, তার পুরোটাই জলে গেছে বলে মনে করছেন অনেকেই।

বাদল নানজুয়ানদাস্বামীর সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হলে জানা যায়, ‘প্রায় একমাস আগে খাবার পানি সরবরাহের পাইপ ফেটে গেছে। বৃষ্টির পানি আর অবিরত যানবাহনের কারণে রাস্তায় বড় গর্তেরও সৃষ্টি হয়েছে। আর এটা ঠিক করতে কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থাই নিচ্ছে না। স্থানীয়রা বিবিএমপি এবং বিডব্লিউএসএসবির কাছে অভিযোগ জানিয়েছে, কিন্তু কোন কাজ হয়নি। আমি আশা করেছিলাম তারা কোন পদক্ষেপ নেবে।’

নগরবাসী রাস্তার মধ্যে জলাবদ্ধ ডোবায় কুমির দেখে প্রথমে হকচকিয়ে গেলেও সামলে নিতে বেশি সময় লাগেনি। অনেকেই মনে করেছিলেন কুমিরটি বুঝি প্লাস্টিকের। কিন্তু কাছে যেতেই কুমিরটির ধারালো দাঁত আর নড়াচড়া দেখেই তবে ভুল ভাঙ্গে তাদের। বাদল নানজুয়ানদাস্বামীর দাবি, তিনি জনগণের নাগরিকজ্ঞান বাড়ানোর জন্যই এই কাজ করেছেন। আর্ট যে সাধারণের বাইরে চর্চা করার কোন বিষয় নয় এটাও তিনি তুলে ধরার চেষ্টা করেন।

সাত সতেরো প্রতিবেদক