১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্যামেরাসেরা ফোন

  • রেজা নওফল হায়দার

একটি সময় ছিল যখন এ্যান্ড্রয়েড ফোন কেনার জন্য টাকা জমাতে হতো। এ্যান্ড্রয়েড ফোন কেনা অনেকের কাছেই স্বপ্নের বিষয় ছিল। কিন্তু বর্তমানে এ্যান্ড্রয়েডের দাম প্রায় সবার হাতের নাগালে চলে এসেছে। মাত্র ৪ হাজার টাকা থেকে বিভিন্ন দামে বিভিন্ন স্পেসিফিকেশনের এ্যান্ড্রয়েড ফোন দেশের বাজারেই রয়েছে। যদিও কমদামে এ্যান্ড্রয়েডের আসল অভিজ্ঞতা পাওয়া যায় না, তবুও বেসিক এ্যান্ড্রয়েড হিসেবে খুব একটা খারাপ নয় কমদামী এসব এ্যান্ড্রয়েড ফোন। ইন্টারনেটের যুগে পকেটে কি কেবল মোবাইল রাখবেন না পুরো বিশ্বকে রাখবেন? এখনই সিদ্ধান্ত নিন। কারণ সম্প্রতি বাংলাদেশে উন্মুক্ত হয়েছে থ্রিজি সেবা। তাই সবার নজর এখন স্মার্টফোনের দিকে। কিন্তু ফোন স্মার্ট হলেই চলবে না, থাকতে হবে থ্রিজি সাপোর্ট। কিন্তু নামীদামী কোম্পানির থ্রিজি সাপোর্টেড স্মার্টফোনের বেশি দাম থাকায় বাজেট স্বল্পতায় স্বপ্ন পূরণ হয় না অনেকেরই। মোবাইল ফোনেই এখন এত ভাল ছবি তোলা যায় যে সঙ্গে আলাদা করে ক্যামেরা নেয়ার দরকার পড়েছে না। যদিও সিঙ্গেল লেন্স রিফ্লেক্স (এসএলআর) ক্যামেরার জায়গা স্মার্টফোন দখল করতে পারছে না। এর পরও স্মার্টফোনের ক্যামেরা দিয়ে ভাল মানের ছবি তুলছেন অনেকে। গুগলের নেক্সাস ৬, এলজির জি৩-এর মতো হাই এ্যান্ডের স্মার্টফোন দিয়ে ভাল ছবি তুলতে পারবেন। কিন্তু আপনি কী শুধু ভাল ছবিতেই সন্তুষ্ট, কয়েকটি ফোন আছে, যা আপনার কাক্সিক্ষত ছবির জন্য আদর্শ হতে পারে।

গত বছরে শীর্ষ ক্যামেরা ফোন হিসেবে বিশ্লেষকেদের চোখে স্থান পেয়েছিল আইফোন ৫। এ বছর আইফোন ৬ ও আইফোন ৬ প্লাসে ক্যামেরা প্রযুক্তিকে আরও উন্নত করেছে এ্যাপল। এতে আরও দ্রুতগতির ও নিখুঁত ফোকাস সুবিধা যুক্ত রয়েছে। চলমান বস্তুর ছবি তুলতেও নতুন আইফোন কার্যকর। ইনডোরে বা রাতের বেলা ছবি তোলা হলেও তা অস্বচ্ছ হয় না। অনেক ক্যামেরা ফোনে বেশিক্ষণ শাটার খোলা রাখলে ছবি ঘোলা হয়। এ ছাড়া আইফোন ৬ প্লাসে অস্বচ্ছ ছবি ঠেকাতে এ্যান্টি-শেক প্রযুক্তি রয়েছে যাতে কাঁপা কাঁপা হাতে ছবি তুললেও তাতে স্বচ্ছ ছবি ওঠে। যারা বড় স্ক্রিনের জন্য ফোন কিনবেন, তাদের জন্য আইফোন ৬ প্লাস ভাল হবে। এ্যাপল নতুন আইফোনে বেশি মেগাপিক্সেল যোগ করেনি, তবে ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরাকে আরও উন্নত করেছে। এতে যুক্ত হয়েছে ট্রু টোন ফ্ল্যাশ ও ১.৫ মাইক্রন পিক্সেল সেন্সর। এ ছাড়াও দ্রুতগতির অটোফোকাস ক্যামেরার জন্য ফোকাস পিক্সেল যুক্ত করেছে এ্যাপল। বর্তমানে সেলফি এখন তুমুল জনপ্রিয়। এ্যাপলও এ জোয়ারে গা ভাসিয়েছে। নতুন আইফোনের সামনের ক্যামেরাও সেলফি তোলার জন্য উন্নত হয়েছে। উন্নত ‘ফেস ডিটেকশন’ প্রযুক্তি সুবিধায় ফেসটাইম এইচডি ক্যামেরা যুক্ত হয়েছে নতুন আইফোনে।

আইফোন ৬-এ রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। এতে অন্যান্য ফিচার হিসেবে রয়েছে ডুয়াল এলইডি ফ্ল্যাশ, এ্যাপারচার সাইজ এফটু ডট টু, ব্যাক ইলুমিনেটেড সেন্সর, অটো ফোকাস, ফেস ডিটেকশন, টাচ টু ফোকাস, ডিজিট্যাল ইমেজ স্টেবিলাইজেশন, ডিজিটাল জুম, জিও ট্যাগিং, এইচডিআর প্যানোরমা। এর সামনেও রয়েছে ১.২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। অবশ্য আইফোনে তোলা ছবির রেজুলেশন সবসময় যে ভাল হয় তা বলা যাবে না। কোন নির্দিষ্ট পরিবেশে আইফোনের চেয়ে অন্যান্য ফোন ভাল ছবি তুলতে পারলেও বেশ কিছু ক্ষেত্রে ক্যামেরা ফোন হিসেবেও আইফোনই সেরা।

বাজারে সবার চাহিদা পূরণ করতে কমদামেও থ্রিজি সাপোর্টেড স্মার্টফোন দিচ্ছে বেশকিছু কোম্পানি। সিম্ফনি, ওয়াল্টন ও ম্যক্সিমাস মোটামুটি কম দামে বেশ কিছু সেট বাজারে ছেড়েছে। কম দামের এ্যান্ড্রয়েড সেটগুলোর মধ্যে ম্যাক্সিমাস ম্যাক্স-৯০১ অনেকেই ব্যবহার করছেন। ২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা, ৩.২ ইঞ্চি টাচ স্ক্রিন রয়েছে এতে। অপারেটিং সিসটেম হিসেবে আছে এ্যান্ড্রয়েড জিঞ্জার ব্রেড ২.৩ ভার্সন। এই সেটটির র‌্যাম ২৫৬ মেগাবিট, রম ৫১২ মেগাবিট। এই সেটটির বর্তমান বাজার দর ৪ হাজার ৯৯৫ টাকা।

দেশীয় মোবাইল ফোন নির্মাতা ওয়াল্টনের বেশ কিছু স্মার্টফোন আছে কম দামের। প্রিমো ডি-২ এই সেটের অপারেটিং সিস্টেম এ্যান্ড্রয়েড জেলি বিন ৪.২.২ ভার্সন। এই সেটের দাম ৪ হাজার ৯৯০ টাকা। ১.৩ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা রয়েছে সেটটিতে। থ্রিজি সুবিধা সম্পন্ন এই সেটে ভিডিও কলের জন্য সামনে রয়েছে ভিজিএ ক্যামেরা। এই ফোনে রয়েছে ১ গিগাহাটজ ডুয়েলকোর প্রসেসর, ২৫৬ মেগাবিট র‌্যাম, ৫১২ মেগাবিট রম। থ্রিজির সুবিধার পাশাপাশি ওয়াইফাই-এর মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাবে সিম্ফনি এক্সপ্লরার ডব্লিউ-৩৫ মডেলের সেটে। এর রয়েছে সম্পূর্ণ টাচ ৩.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে। সেটটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে এ্যান্ড্রয়েড জেলি বিন ৪.১ ভার্সন। এ্যান্ড্রয়েড এই সেটটিতে রয়েছে ১গিগাহার্টজ সিপিইউ, ৫১২ র‌্যাম, ৪ গিগাবিট রম। সেটটি বর্তমানে ৬ হাজার ২৯০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। ৬ হাজার ৪৯০ টাকায় পাওয়া যাবে সিম্ফনির ডব্লিউ ৬৪ মডেলের স্মার্টফোন। এই ফোনে রয়েছে অন্যান্য নামীদামী ব্র্যান্ডের মতো খুবই স্বচ্ছ সম্পূর্ণ টাচ স্ক্রিন। এতে অপারেটিং সিস্টেম রয়েছে এ্যান্ড্রয়েড জেলি বিন ৪.২.২ ভার্সন। জিপিএস সুবিধাসম্পন্ন এই সেটে রয়েছে ১.২ গিগা হার্টজ ডুয়েল কোর প্রসেসর, ৪৬৮ মেগাবিটের র‌্যাম, ১ হাজার মেগাবিট রম। দীর্ঘ সময় ব্যাকআপ দেয়ার জন্য রয়েছে ১৫০০ এমএএইচ লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি।