১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জয়ের লক্ষ্যেই খেলব ॥ নাসির হোসেন

জয়ের লক্ষ্যেই খেলব ॥ নাসির হোসেন

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ভারত-পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দারুণ সিরিজ শেষ করার পরও সেটা ধরে রাখতে পারেনি বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত একেবারেই সুবিধা করতে পারেনি স্বাগতিক বাংলাদেশ। টি২০ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতেই হেরে গেছে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায়। এ কারণে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন নিজেই শনিবার টেকনিক্যাল কমিটি, কোচিং স্টাফ ও ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলেছেন। ক্রিকেটারদের অনুপ্রেরণা দিয়েছেন আগামী ম্যাচগুলোয় ভাল করার জন্য। শনিবার সংবাদ সম্মেলনে এমন কথাই জানিয়েছেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার নাসির হোসেন। জানিয়েছেন দলের ক্রিকেটারদের আত্মবিশ্বাসে কোন চিড় ধরেনি, আগের মতোই আছে। এবার ঘুরে দাঁড়াতে হবে এবং তাহলে আবার সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে বলে দাবি করেন নাসির। তিনি মনে করেন ব্যাটসম্যানরা যোগ্যতা অনুসারে খেলতে পারলেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে দিতে পারবে বাংলাদেশ।

ভারত-পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দারুণভাবে জিতে সিরিজ করায়ত্ত করলেও দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। এর কারণ বৈচিত্র্যময় উইকেট! এ বিষয়টি নিয়ে নাসির বলেন, তেমন কোন কিছুই হয়নি ব্যাটিংয়ের। ভারত বা পাকিস্তান সিরিজের চেয়ে এই উইকেট একটু আলাদা। ওই সব উইকেটে গিয়েই শট খেলা যেত। এই উইকেটে একটু সময় নিতে হয়। গিয়েই মারা যায় না। আমরা সেই সময়টা নেয়ার চেষ্টা করছি। আমরা যতটুকু জানি উইকেট এ রকমই থাকবে, শেষ ওয়ানডেতে যেমন খেলেছি। আমাদের ব্যাটসম্যানদের তাই মানিয়ে নিতে হবে। আমাদের টার্গেট ৫০ ওভার খেলা। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে খেলা সুনিশ্চিত করার জন্য একটি ম্যাচ জিততে হবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বিন্দুমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাই করতে পারছে না স্বাগতিক বাংলাদেশ। এ কারণেই পাপন ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলেছেন। এ বিষয়ে পরবর্তীতে বিসিবি সভাপতি পাপন বলেন, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে লড়াই করতেই পারছি না। শক্তিশালী টেকনিক্যাল কমিটির কাছে তাদের অভিমত জানতে চেয়েছিলাম। বোলিংয়ে, ফিল্ডিংয়ে ভাল করেছি আমরা, রান করতে পারছি না। ওদেরকে এই কথাগুলোই বলা, ভয়ের কোন কারণ নেই। তোমরা ভালই খেল, এই মুহূর্তে হয়ত হচ্ছে না। কিছু কিছু জায়গায় সতর্ক করে দিতে হয়, আমি সেখানটায় সতর্ক করে দিয়েছি। একটু অনুপ্রাণিত করার দরকার সেটাও করেছি। তবে সতর্ক করার এ বিষয়ে নাসির বলেন, প্রেসিডেন্ট সাহেব আমাদের সব সময় সাহস দেন। সতর্ক করার কথা ওভাবে বলেননি। সবাইকে বললেন খেলাধুলার ব্যাপারে সিরিয়াস থাকতে।

নাসির মনে করেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর সামর্থ্য বাংলাদেশের আছে। কিন্তু সেজন্য দলের ব্যাটসম্যানদের দায়িত্বটাকেই বড় করে দেখছেন তিনি। এ বিষয়ে নাসির বলেন, আমরা যেভাবে খেলছিলাম, সব ঠিক ছিল। আগের সিরিজগুলো যেভাবে খেলে আমরা জিতেছি, সেসব আমাদের মাথায় আছে। আসলে আমরা ব্যাটসম্যানরা রান করতে পারিনি। ব্যাটসম্যানরা রান পেলেই আর কোন সমস্যা থাকবে না। খারাপ খেললে অনেকে অনেক ধরনের কথা বলবে। এটাই স্বাভাবিক। আমি মনে করি শেষ ওয়ানডেটা আমাদের খারাপ দিন গেছে। ওখান থেকে আমাদের নিজেদেরই কামব্যাক করতে হবে। আর কোন কিছু বদলায়নি। দলে সব ঠিক আছে। সবাই আত্মবিশ্বাসী। একটা জিতলেই সব ঠিক হয়ে যাবে। আমাদের সামর্থ্য আছে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানোর। ব্যাটসম্যানরা ক্লিক করলে হারানো সম্ভব। নাসির দাবি করেন এখন আর শুধুমাত্র সাকিব-তামিম নির্ভর দল নেই বাংলাদেশ। এখন অনেকেই আছেন যারা বাংলাদেশকে ম্যাচ জয়ে ভূমিকা রাখতে পারেন। প্রথম ওয়ানডেতে কাগিসো রাবাদা হ্যাটট্রিকসহ ৬ উইকেট নিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েন। এ বিষয়ে নাসির বলেন, ৬ উইকেট যে কেউ পেতেই পারে। এটা নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। আমি মনে করি না রাবাদা তেমন আহামরি কোন বোলার যে আমরা সামাল দিতে পারব না। ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব। সবাই জানে কিভাবে সম্ভব। আমার মনে হয় না খুব বেশি পরিবর্তনের দরকার আছে। শুধু মেন্টালি একটু ঠিক হলেই হবে।