১৫ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঈদের সিনেমা

ঈদ মানেই আনন্দ নির্মল বিনোদন। আর এই বিনোদনে সবচেয়ে বেশি খোরাক যোগায় যে মাধ্যম সেটি হলো চলচ্চিত্র। ছুটির দিনগুলোতে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রপ্রেমী দর্শক মুখিয়ে থাকে ঈদের চলচ্চিত্রের জন্য। আর চলচ্চিত্র হলো সবচেয়ে বড় মাধ্যম যা একসঙ্গে অনেক দর্শকের কাছে পৌঁছায়। আসছে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরে মুক্তি প্রতীক্ষিত কয়েকটি

চলচ্চিত্র নিয়ে লিখেছেন নিবিড় লতিফুল বারী

ঈদের চলচ্চিত্র দেশের চলচ্চিত্রাঙ্গনে সবসময় একটা প্রভাব ফেলে। পরিচালক কিংবা কলাকুশলী তাদের সেরা কাজগুলো জমিয়ে রাখে ঈদের জন্য। আর নির্মল বিনোদন লাভের উদ্দেশ্য দর্শকরাও ভিড় জমায় সিনেমা হলে। সারা বছরের কর্মব্যস্ত সময় পেরিয়ে ঈদের কটা ছুটির দিন কে না চায় উপভোগ করতে। এমনটাই হয়ে আসছে বাংলাদেশে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারও ঈদে মুক্তি পাচ্ছে ৩টি ছবি। শাহিন সুমন পরিচালিত ‘লাভ ম্যারেজ’, ইফতেখার চৌধুরী পরিচালিত ‘অগ্নি ২’ এবং তন্ময় তানসেন পরিচালিত ‘পদ্মপাতার জল’। প্রতিটি ছবিই নিজস্ব স্বকীয়তায় উজ্জ্বল। যেমন ধরা যাক শাকিব খানের ছবির কথা। দেশে ঈদ-উল-ফিতর এসেছে আর শাকিবের ফিল্ম মুক্তি পায়নি এমনটা হয়নি কখনও। এবারও হচ্ছে না। আর রোমান্টিক কমেডি ধাঁচের ‘লাভ ম্যারেজ’ ছবিতে শাকিব আছেন তার চিরায়ত জুটি অপু বিশ্বাসের সঙ্গেই। তবে এস এ হক অলীকের ‘আরও ভালবাসব তোমায়’ ছবিটিও মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল এবারের ঈদে। কিন্তু কিছু পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ আটকে যাওয়ায় শেষ মুহূর্তে পিছিয়ে দেয়া

হয়েছে মুক্তির তারিখ। এছাড়া হল মালিকদের দৃষ্টি ছিল ‘লাভ ম্যারেজ’ সিনেমার দিকে। অলীকের ছবির পর্যাপ্ত হল বুকিং না পাওয়াও একটা কারণ। তবে এতে শাকিব এক অর্থে খুশি। নিজের দর্শকরা এতে একমুখী হওয়ার চেষ্টা করবে, তাদের মধ্যে বিভাজন হবে না ফলে নিজের ছবি নিয়ে আশাবাদী তিনি। ‘লাভ ম্যারেজ’ সিনেমায় পুরান ঢাকার এক চরিত্রে অভিনয় করেছেন শাকিব। নানাবিধ হাস্যরসাত্মক ঘটনার মধ্যে দিয়ে এগিয়ে যায় সিনেমার কাহিনী। বিশেষ করে পুরান ঢাকার ভাষায় সংলাপ বেশ উল্লেখযোগ্য প্রাণ এ ছবির। আর শাকিবের লুঙ্গি পরা দৃশ্য তো আছেই। আঞ্চলিক ছবি এটিই প্রথম নয় শাকিবের। এর আগেও ‘ঢাকাইয়া পোলা বরিশাইলা মাইয়া’ ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। শাকিব অপু ছাড়াও এ ছবিতে অভিনয় করেছেন মিশা সওদাগর, সাদেক বাচ্চু, আহমেদ শরীফ, মিজু আহমেদ, কাবিলা, শিরিন বকুল, শিরিন আলম প্রমুখ। গানের কথা লিখেছেন কবির বকুল ও হৃদয় খান। গানে কণ্ঠ দিয়েছেন আসিফ আকবর, হৃদয় খান, ইমরান, কিশোর, রমা প্রমুখ। সুর ও সঙ্গীত করেছেন আলী আকরাম শুভ ও হৃদয় খান।

ওদিকে অগ্নি ছবির ব্যাপক সাফল্যের পর এবার ঈদ কে সামনে রেখে নির্মিত হয়েছে অগ্নি ২। ইফতেখার চৌধুরীর এ ছবিটি বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছে, শুধু তাই নয় ছবিটি মুক্তি পাবে দু’দেশের প্রেক্ষাগৃহেই। নব্বইয়ের দশকে দেশে কিছু নারী প্রধান সিনেমা পাওয়া গেলেও সাম্প্রতিককালে সেই চল নেই বললেই চলে। তবে এ ধারায় ব্যতিক্রম ছিল ‘অগ্নি’। ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পাওয়ায় এবার সেই ধারাবাহিকতায় নির্মিত হলো এর সিকুয়্যেল। নাম ভূমিকাতে আগের মতই আছেন মাহি। তবে গতবার বাংলাদেশের আরেক সুপার হিরো আরেফিন শুভ থাকলেও এবার থাকছেন না তিনি। বরং এবার মাহির সঙ্গে যোগ দিচ্ছেন কলকাতার নায়ক ওম। বলাবাহুল্য ‘অগ্নি ২’ হতে যাচ্ছে আরও বেশি এ্যাকশন ও রোমাঞ্চকর দৃশ্যে ভরপুর। ইতোমধ্যে ইউটিউবে প্রকাশিত আইটেম সং ‘ম্যাজিক মামনি’ সারা ফেলে দিয়েছে দর্শকদের মাঝে। এছাড়াও ‘বানজারা’ এবং ‘আল্লাহ জানে’ গানগুলোও পেয়েছে দর্শকপ্রিয়তা। সঙ্গীতায়োজনের দায়িত্বে ছিলেন আবদুল আজিজ, প্রিয় চট্টোপাধ্যায়, নেহা কাক্কর, আকাশ, মোহাম্মদ ইফরান, লেমিস, স্যাভি ও আকাশ।

বিগ বাজেটের এ ছবির বেশিরভাগ অংশের শূটিং হয়েছে থাইল্যান্ডে। এছাড়া কিছু অংশের শূটিং ভারতেও হয়েছে। ছবিটি একাধিক ভাষায় ডাবিং করা হচ্ছে কারণ ছবিটি আন্তর্জাতিক বাজারেও ছাড়া হবে। আর ভাষাগুলো হলো মান্দারিন (চায়নিজ) ও মালয়। শুধু বাংলাদেশ নয়, ‘অগ্নি ২’ বাংলা সিনেমাকে নিয়ে যাবে ভারত, চীন, হংকং, মালয়েশিয়া, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, ইটালি ও যুক্তরাষ্ট্রে। আর এমন আন্তর্জাতিক মানের ছবিতে ইংরেজী সাবটাইটেল থাকবে না তা কি হয়? মাহি ও ওম ছাড়াও এতে আরও অভিনয় করেছেন অমিত হাসান, আশিষ বিদ্যার্থী ও টাইগার রবি।

তন্ময় তানসেন ছিলেন গায়ক, ২০০০ সালের দিকে জনপ্রিয় ব্যান্ড ভাইকিংসের ভোকাল ছিলেন তিনি। হঠাৎ তারা ব্যান্ড ভেঙ্গে মিউজিক ছেড়ে হাওয়া হয়ে গেলেন। তবে তন্ময় নিজের মতো কাজ চালিয়ে গেছেন এতদিন, অবশ্য সেসব কিছু টিভিসি এবং নাটক, গান নয় মোটেও। সেই তন্ময় এবারের ঈদে নিজের পরিচালিত ‘পদ্মপাতার জল’ সিনেমা নিয়ে হাজির হচ্ছেন। আর এতে অভিনয় করছেন বেশ দীর্ঘদিন আগেই নাটক থেকে চলচ্চিত্রে পা রাখা ইমন এবং মিম। এই ছবির কাহিনী একটু ভিন্ন ঘরানার। উল্লেখ্য, কাহিনী সংলাপ ও চিত্রনাট্য লিখেছেন লতিফুল ইসলাম শিবলী। ঔপনিবেশিক সময়কালের একটি ঘটনার সঙ্গে বর্তমান সময় মিলিয়ে এই ছবির গল্প। ফলে এই ছবিতে জাঁকজমক পূর্ণ সেট এবং সেই সময়কার কস্টিউম চোখে পড়বে বেশ ভালভাবেই। এ ছবির নায়ক ইমনের ভাষায় ‘এটা আমার ক্যারিয়ারের অন্যতম একটি সিনেমা হতে যাচ্ছে। দর্শকরা সিনেমাটি দেখার পর আবারও দেখতে চাইবে বলে আশা করছি। সম্পূর্ণ মৌলিক একটি কাহিনী নিয়ে নির্মিত’Ñ আর চলুন শুনে আসা যাক ইমনের বিপরীতে অভিনয় করা মিম কি বলছে এই ছবি স¤পর্কে। তার ভাষায় ঔপনিবেশিক সময়ের গল্পের উপস্থাপন করা হয়েছে চলচ্চিত্রটিতে। আর চরিত্রটিও আলাদা। তাই এতে আমাকে অন্যরকম একটি গেটআপে দেখা যাবে। চলচ্চিত্রটির গল্প, গান, লোকেশন নির্বাচন সব মিলিয়ে ভিন্ন একটি ছবি দর্শকরা খুঁজে পাবেন।

আর এ ছবির আরেকটি মূল আকর্ষণ এর গান। মোট গান রয়েছে ৬টি। সুর করেছেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল, এসআই টুটুল, অর্ণব, অদিত এবং ব্যান্ড শিরোনামহীন ও চিরকুট। কণ্ঠ দিয়েছেন অর্ণব, কনা, আসিফ আকবর, ন্যান্সি, অদিত, পড়শী, অন্বেষা দত্ত, এলিটা করিম, শোয়েব ও শিরোনামহীনের তুহিন। এমন ভিন্ন ভিন্ন ঘরানার এত শিল্পীর সমাবেশ সাধারণত দেখা যায় না বাংলা সিনেমায়। আর এজন্য ধারণা করা হচ্ছে গান এ ছবির অন্যতম শক্তি। পরিচালক তন্ময় তানসেন তার ফেসবুক প্রোফাইলে শূটিংয়ের দীর্ঘ সময়কালে সবাইকে পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন বিশেষ করে ছবির কাজ বন্ধ ছিল মাঝে সে সময়ের জন্য বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন ইমন ও মিম কে। সেইসঙ্গে সিনেমার সাফল্যের ব্যাপারে আশাবাদ প্রকাশ করেছেন তা বলাইবাহুল্য।

রোমান্টিক কমেডি, এ্যাকশন থ্রিলার এবং ঔপনিবেশিক কাহিনীর বর্তমান চিত্রায়ন ভিন্ন স্বাদের, ভিন্ন আমেজের এই তিন ছবি দর্শকদের মনের খোরাক কতটুকু মেটাতে সক্ষম হয় এটাই এখন দেখার বিষয়। অপশন রেডি, চয়েজ? দর্শকরা বেছে নিক।