২৩ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঈদে লাকির এ্যালবাম ‘রঙের মানুষ’

  • অঞ্জন আচার্য

দিনাজপুরের ছোট্ট লাকিদের পরিবারটি ছিল পুরোদস্তুর সঙ্গীত-পরিবার। মা-বাবা, ভাই-বোন সবার কণ্ঠেই ছিল গান। দিনের বেশির ভাগ সময়ই কাটত গান গেয়ে। তবে বাবার একান্ত উৎসাহে গানের জগতে প্রবেশ লাকির। সেই ছোট্ট লাকি আজ লোকপরিচিত লোকসঙ্গীত শিল্পী লাইলুন নাহার লাকি। পাঁচ বছর বয়সেই শিল্পী গোপাল চন্দ্র সরকারের কাছে হাতেখড়ি তাঁর। বাবাই আয়োজন করেন সব। তারপর দীর্ঘ প্রায় সাত বছর শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের ওপর তালিম নেন তিনি শিল্পী অনুপ কুমার দাশের কাছে। ক্ল্যাসিক্যালে মিউজিকের ওপর আরও দীক্ষা নেন শিল্পী বরকত হোসেনের কাছে। দিনাজপুর থেকে ঢাকায় পদার্পণ। সঙ্গে থাকে সঙ্গীত-শিক্ষা। তাই তো ২০০০ সালে নিজের যোগ্যতায় হয়েছেন বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত শিল্পী। গানের জগতে প্রবেশ সম্পর্কে জানতে চাইলে শিল্পী লাকি বলেনÑ ‘ভালবাসার টানেই গান করা আমার। ছোটবেলা থেকেই গান শিখে আসছি আমি। রবীন্দ্রসঙ্গীত, নজরুলগীতি, লোকগীতি, আধুনিকÑ সব গানই শিখেছি। কিন্তু মাটির গানই আমাকে সবসময় টেনেছে বেশি। তবে এরজন্য আমি সম্পূর্ণ কৃতজ্ঞ আমার বাবার কাছে। বাবাকে এখন মিস করি খুব।’

বর্তমানে আপনি একজন প্রতিষ্ঠিত লোকসঙ্গীত শিল্পী। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলেও আপনি পরিচিত মুখ। এই যে পথচলা, গানের একটা দিক বেছে নেয়া, সেটা কি ওই ভালবাসার টানেই সম্ভব হয়েছে?Ñ এমন প্রশ্ন রাখা হলে লাকি বলেন, ‘লালন সাঁইয়ের খুব ভক্ত আমি। তাঁর গান আমাকে বিশেষ টানে। লালনের গানের মাঝে আমি খুঁজে পাই আমাকে। তাছাড়া মাটি ও মানুষের গান গাইতে আমার হৃদয় টানে সব সময়ই। তাই এটা নিয়েই কাজ করি বেশি। যতটুকু পরিচিতি পেয়েছি, এর জন্যই পেয়েছি। জানি, এখনও অনেক পথ পাড়ি দেয়া বাকি।’

গানের এ্যালবাম সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘২০১০ সালে আমার প্রথম একক এ্যালবাম প্রকাশিত হয়। অডিও প্রতিষ্ঠান ‘গাঙচিল’-এর ব্যানারে প্রকাশিত ‘গোপন ভালবাসা’ নামের ওই এ্যালবামটির সঙ্গীত আয়োজন করেন শিল্পী ফকির শাহবুদ্দিন। সেসময় দারুন সাড়া ফেলে সেটি। এতে গান লিখেছিলেন শহিদুল্লাহ ফরাজীসহ আরও অনেক খ্যাতিমান গীতিকার। এছাড়া আগে-পরে আরও ৩টি মিশ্র এ্যালবামও আছে আমার।’ আসছে ঈদে দ্বিতীয় এ্যালবাম ‘রঙের মানুষ’ প্রকাশিত হচ্ছে বলেন জানান শিল্পী লাকি। এ্যালবামটির বিষয়ে লাইলুন নাহার বলেন, ‘এ্যালবামটির সঙ্গীতায়োজন করেছেন মুশফিক লিটু। গানের কথা লিখেছেনÑ নাজির মাহমুদ, শহিদুল্লাহ ফরাজী, দেলোয়ার আরজুদা শরফসহ আরও অনেকে। এটির বেশিরভাগ গানই সুফিবাদের। আধ্যাত্মিকতাদের এ গানগুলো আশা করছি শ্রোতাদের মন ছুঁয়ে যাবে।’ সঙ্গীত নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে শিল্পী বলেন, ‘শুদ্ধ সঙ্গীতের সঙ্গে থাকতে চাই। গান নিয়েই বেঁচে থাকতে চাই।’ পরবর্তী গানের এ্যালবামের প্রস্তুতি সম্পর্কে তিনি জানান, লালন গীতি নিয়ে একটা কাজ করার পরিকল্পনা আছে। সব ঠিকঠাক থাকলে দ্রুতই তা সম্পন্ন করতে চাই, উপহার দিতে চাই শ্রোতাদের।