১৮ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চট্টগ্রামে ছাড়পত্র ছাড়াই তৈরি হচ্ছে প্লাস্টিক গুটি ও পলিথিন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র না নিয়ে অবৈধভাবে প্লাস্টিক গুটি উৎপাদন, গুদামজাতকরণ ও বাজারজাতকরণে জড়িত রয়েছে কয়েকটি সিন্ডিকেট। নগরীর আনাচে কানাচে গড়ে ওঠা এ ধরনের প্রতিষ্ঠান নির্দিষ্টমাত্রার পলিথিন তৈরি না করে মোটা অঙ্কের অর্থ উপার্জনের জন্য অবৈধভাবে পাতলা পলিথিন তৈরি করার অভিযোগ রয়েছে। পরিবেশ অধিদফতরের পক্ষ থেকে ৫৫ মাইগ্রেনের নিচে পলিথিন তৈরি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ হলেও সুনির্দিষ্ট এবং লিখিত অভিযোগ ব্যতীত পরিবেশ অধিদফতর কোন ধরনের অভিযান পরিচালনা করে না। এক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের কোন্দলের কারণে অনেক সময় অভিযোগ পরিবেশ অধিদফতরে জমা পড়ার পরই অভিযানে নামে দফতরের কর্মকর্তারা। প্রশ্ন উঠেছে, পরিবেশ অধিদফতরের পক্ষ থেকে প্রতিনিয়ত মনিটরিং করার কথা থাকলেও অজ্ঞাত কারণে তা করা হচ্ছে না। জানা গেছে, রমজান আসার পরই সরকারী সকল দফতর অনেকটা চাঙ্গা অবস্থানে রয়েছে। উপযোগী প্রতিষ্ঠান গ্যাস, বিদ্যুত, ওয়াসা থেকে শুরু করে খাদ্য সামগ্র্রী প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানেও অভিযান চলছে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। অবৈধ অভিযান পরিচালনায় জেলা প্রশাসনের তিন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও টিম ভিন্ন ভিন্ন স্থানে রমজানের শুরু থেকে অভিযান পরিচালনা করে আসছে। জেলা প্রশাসনের এ তিন ম্যাজিস্ট্রেটের সঙ্গে যোগ দিয়েছে সরকারী, আধা সরকারী ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। নমুনা পরীক্ষার জন্য রয়েছে বিএসটিআই, গ্রেফতার ও সিলগালার জন্য রয়েছে পুলিশ প্রশাসন, ভেজাল খাদ্যের অভিযানে যোগ দেয় খাদ্য বিভাগ ও টিসিবির কর্মকর্তাগণ এবং পরিবেশ বিষয়ক অভিযানে রয়েছে জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেটের সঙ্গে পরিবেশ অধিদফতরের কর্মকর্তাগণ। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও মোবাইল টিমের নেতৃত্বদানকারী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, ওই অভিযানের প্রতিষ্ঠানগুলোর মূল অপরাধ ছিল তারা পরিবেশের ছাড়পত্র না নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল।

কলাপাড়ায় মেধাবী খাদিজার দায়িত্ব নিলেন এমপি

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ১৫ জুলাই ॥ ভ্যানচালক বাবার আয়ের ওপর নির্ভরশীল পরিবারের অসহায় দরিদ্র মেধাবী খাদিজার শিক্ষাজীবনের দায়িত্ব নিলেন স্থানীয় এমপি সাবেক প্রতিমন্ত্রী মাহবুবুর রহমান। উপজেলার টিয়াখালী ইউনিয়নের কুড়িকানি গ্রামে অন্যের জমিতে বসবাস করা আলমাস প্যাদার মেয়ে খাদিজা এ বছর এসএসসিতে জিপিএ ৫ অর্জন করে। কিন্তু আর্থিক সঙ্কটে খাদিজার বই কেনা সম্ভব হয়নি। বাবার মালটানা ভ্যানে করে কলেজে আসছে। লেখাপড়া অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। গত ৭ জুলাই এ সংক্রান্ত একটি সচিত্র প্রতিবেদন দৈনিক জনকণ্ঠে ছাপা হয়। এমপি মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘ও যতদূর লেখাপড়া করবে তিনি সকল সহায়তা করবেন।’

নির্বাচিত সংবাদ