২৪ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুসালের রেকর্ডে সমতায় লঙ্কানরা

  • ৫ ম্যাচের সিরিজে ১-১ ॥ রবিবার কলম্বোয় এগিয়ে যাওয়ার লড়াই

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ডাম্বুলায় স্বাগতিকরা সুবিধা করতে পারেনি। সফরকারী পাকিস্তান দাপটের সঙ্গে খেলে ৬ উইকেটে জিতে এগিয়ে যায়। তবে পাল্লেকেলেতেই ঘুরে দাঁড়াল শ্রীলঙ্কা। অবশ্য ওপেনার কুসাল পেরেরার রেকর্ড গড়া অর্ধশতকে সমতা এনেছে লঙ্কানরা। প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৮৭ রান তুলেছিল পাকরা। জবাবে ১৭ বলে ওয়ানডের দ্বিতীয় দ্রুততম ফিফটি হাঁকিয়ে শ্রীলঙ্কাকে দুর্দান্ত সূচনা এনে দিয়েছিলেন কুসাল। পাকদের দারুণ বোলিংয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়লেও অভিষিক্ত অলরাউন্ডার সচিথ পাথিরানার নৈপুণ্যে ১১ বল বাকি থাকতেই ৮ উইকেট হারিয়ে ২৮৮ রান তুলে জয় ছিনিয়ে আনে শ্রীলঙ্কা। সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডে আগামী রবিবার কলম্বোয়।

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নামে পাকিস্তান। দারুণভাবে শুরু করেছিলেন অধিনায়ক আজহার আলী ও আহমেদ শেহজাদ। ৫৯ রানের জুটি গড়েন তারা। শেহজাদ ৩০ রানে বাঁহাতি স্পিনার পাথিরানার শিকারে পরিণত হন। এটি ছিল অভিষেক ওয়ানডে খেলতে নামা এ তরুণের প্রথম আন্তর্জাতিক উইকেট। দ্বিতীয় আঘাতটাও তিনিই হানেন। ফিরিয়ে দেন মোহাম্মদ হাফিজকে (৯)। দলীয় ৯৬ রানে তিন উইকেট হারায় পাকরা। তবে চতুর্থ উইকেটে ৮৪ রানের জুটি গড়েন অভিজ্ঞ শোয়েব মালিক ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। ফলে শক্ত ভিত গড়ে ওঠে পাক শিবিরের। বড় ইনিংস গড়ার পথে এগিয়ে যায় তারা। দু’জনেই অর্ধশতক হাঁকান। ৩৩ বছর বয়সী মালিক ক্যারিয়ারের ৩৩তম অর্ধশতক আদায় করেন। এটি ছিল তার টানা দ্বিতীয় হাফসেঞ্চুরি। তিনি ৫১ বলে ২ চার ও ৩ ছক্কায় ৫১ রান করেন। আর তরুণ রিজওয়ান ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় অর্ধশতক আদায় করেন। ব্যাট হাতে ঝড় তুলে দ্রুতগতিতে রান করে দলের সংগ্রহকে বড় করার ক্ষেত্রে তার ইনিংসটির ভূমিকা ছিল অন্যতম। রিজওয়ান ৩৮ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় ৫২ রান করেন। শেষদিকে আনওয়ার আলীর ২০ বলে অপরাজিত ২৯ রানে ৮ উইকেটে ২৮৭ রানের বড় সংগ্রহ পায় পাকিস্তান। দুটি করে উইকেট নেন লাসিথ মালিঙ্গা ও পাথিরানা।

জবাব দিতে নেমেই তা-ব শুরু করেন কুসাল। তাকে ধীরস্থিরভাবে সঙ্গ দিয়ে গেছেন অভিজ্ঞ তিলকারতেœ দিলশান। ১৭ বলেই অর্ধশতক আদায় করেন কুসাল। আর সব রানই তিনি বাউন্ডারিতে নিয়ে ওয়ানডে ইতিহাসের দ্বিতীয় দ্রুততম অর্ধশতকের নজির গড়েন। অবশ্য শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট ইতিহাসে এটিই দ্রুততম। ১৭ বলে ফিফটি আছে সাবেক বিধ্বংসী ওপেনার সনাথ জয়সুরিয়ারও। কুসাল অবশ্য ক্যারিয়ারের পঞ্চম ফিফটির পর বেশিদূর এগোতে পারেননি। তিনি ২৫ বলে ১৩ চার ও ১ ছক্কায় ৬৮ রান করে সাজঘরে ফেরেন। ৮.২ ওভারে ৯২ রান ওঠার পর উদ্বোধনী জুটি ভাঙ্গেন পেসার মোহাম্মদ ইরফান। তবে এরপরও দারুণ খেলছিলেন দিলশান ও উপুল থারাঙ্গা। দ্বিতীয় উইকেটে আরও ৪৮ রান যোগ হয়। তবে ফিরতি স্পেলে ফেরা রাহাত আলির ভয়ানক গতির তোপে দিশে হারায় লঙ্কানরা। তিনি উপুল থারাঙ্গা (২৮) ও দিলশানকে (৬৩ বলে ৪৭) সরাসরি বোল্ড করে ফিরিয়ে দেয়ার পর অধিনায়ক এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসও রানআউটের শিকার হন। লাহিরু থিরিমান্নেকেও দ্রুতই শিকার করেন রাহাত। ১৫৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে স্বাগতিকরা। তবে দিনেশ চান্দিমাল দারুণ ব্যাটিং করছিলেন। একপ্রান্ত আগলে রাখেন তিনি। অপরপ্রান্তে তরুণ পাথিরানা ২৮ বলে ৩৩ এবং মিলিন্দা শ্রীবর্ধনে ২৮ বলে ২৬ রান করে তাকে ভাল সঙ্গ দিয়েছেন। এ দু’জনই অবশ্য সাজঘরে ফিরে গেছেন। কিন্তু চান্দিমাল ৬৩ বলে তিন চারে ৪৮ রান করে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন। ৪৮.১ ওভারে ২৮৮ রান তুলে ২ উইকেটের রুদ্ধশ্বাস জয় পায় লঙ্কানরা। এখন রবিবার তৃতীয় ওয়ানডেতে এগিয়ে যাওয়ার লড়াই দু’দলের। সিরিজে ১-১ সমতা বিরাজ করছে।