১৫ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাবেক স্ত্রীকে চুরির অপবাদ ম্যারাডোনার!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিতর্ক নিত্যসঙ্গী দিয়াগো ম্যারাডোনার। কিছুতেই এ থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখতে পারেন না সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ফুটবলার। নিজের স্ত্রী-সন্তান নিয়েই বেশ কয়েকবার ঝামেলায় পড়তে হয়েছে ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ককে। এবার অবশ্য ঝামেলায় পড়েছেন সাবেক স্ত্রীকে নিয়ে। ছয় মিলিয়ন ডলার হারিয়ে যাওয়ায় সাবেক স্ত্রী ক্লডিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন ম্যারাডোনা। এ জন্য আগামী সপ্তাহে আদালতেও যাচ্ছেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ফুটবলার।

নন্দিত-নিন্দিত ম্যারাডোনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব হয়ে গেছে প্রায় ছয় মিলিয়ন ডলার। আর এ জন্য সাবেক স্ত্রী ক্লডিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলেছেন তিনি। আর্জেন্টিনার সাবেক অধিনায়ক ও কোচের ধারণা, তার অর্থ আত্মসাৎ করেছেন ক্লডিয়াই। অর্থাৎ সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে ম্যারাডোনা অর্থ চুরির অভিযোগই করেছেন! মঙ্গলবার আদালতে এ বিষয়ে শুনানি হওয়ার কথা আছে। ওই সময় স্ত্রী ক্লডিয়া ও তাঁদের দুই মেয়ে ডালমা ও জিয়ান্নাকেও উপস্থিত থাকতে হবে আদালতে।

অবশ্য ম্যারাডোনার দুই মেয়ে জোর গলাতেই বলছেন, তাদের মা এমন কাজ করতেই পারেন না। ডালমা তো তার মাকে পৃথিবীর অন্যতম সেরা বলে অভিহিত করেন। আর্জেন্টিনার এক রেডিওকে দেওয়া সা¶াতকারে ডালমা বলেন, আমার মা পৃথিবীর সবচেয়ে সৎ মানুষ। আমি এটা নিশ্চিত করেই বলছি। এই বিষয়টাকে এভাবে আদালত পর্যন্ত টেনে নিয়ে যাওয়াতেও ¶ুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তিনি। বলেন, সংবাদমাধ্যমের জন্য এটা খুবই ভালো ব্যাপার। কিন্তু আমাদের জন্য বিষয়টা খুবই বেদনাদায়ক।

এর আগে সন্তান নিয়েও বেশ কয়েকার ঝামেলায় জড়াতে হয়ে ম্যারাডোনকে। ২০১৩ সালে এ কারণে সাবেক প্রেমিকা ভেরোনিকা ওজেদার বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দিয়েছিলেন ম্যারাডোনা। ভেরোনিকা ওজেদা আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পুত্র দিয়াগো ফার্নান্ডোর ছবি টুইটারে পোস্ট করায় মামলাটি করেছিলেন ম্যারাডোনা। এবার ম্যারাডোনা মামলা করেছেন তার অর্থ আত্মসাৎ হওয়ায়। কিংবদন্তী এই ফুটবলারের শিকার এবার তার সাবেক স্ত্রী।

‘মেসি-নেইমারের বিশ্রাম প্রয়োজন’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ নতুন মৌসুম শুরুর আগে নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার মিশনে আছে বার্সিলোনা। গত মৌসুমে ঐতিহাসিক ট্রেবল জয়ের পর ক্যাটালানদের দৃষ্টি এখন বছরে ছয় শিরোপা শোকেসে ভরা। এ লক্ষ্যে নিজেদের গুছিয়ে নেয়ার মিশনে কোচ লুইস এনরিকের নেতৃত্বে বার্সা এখন উত্তর আমেরিকা অবস্থান করছে। দলের দুই সেরা তারকা লিওনেল মেসি ও নেইমারকে ছাড়াই মার্কিন মুল্লুক সফরে গেছে স্প্যানিশ পরাশক্তিরা। সেখানে এক সংবাদ সম্মেলনে এনরিকে জানিয়েছেন, মেসি-নেইমারদের বর্তমানে বিশ্রাম প্রয়োজন।

প্রাক মৌসুম উত্তর আমেরিকা সফরটা যে খুব একটা সহজ হবে না তা ইতোমধ্যেই বুঝতে পেরেছেন এনরিকে। তিন ম্যাচের এই সফরকে সামনে রেখে বার্সিলোনা লস এ্যাঞ্জেলসে অবস্থান করছে। মঙ্গলবার রোস বোলে মেজর লীগ সকারের অন্যতম সেরা দল লস অ্যাঞ্জেলস গ্যালাক্সির বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র মিশন শুরু করার অপেক্ষায় বার্সা।

বার্সিলোনা যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছার পর ভক্ত সমর্থকরা উষ্ণ অর্ভথ্যনা জানায়। এই সফরে মেসি, নেইমারের মতো সেরা তারকাকে বিশ্রাম দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে অনেকের কাছেই ছিল কৌতূহল। সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়েই বেশি কথা বলতে হয় কোচ এনরিকেকে। বার্সা কোচ বলেন, জবাবট খুবই সহজ। ব্যস্ত এক মৌসুম কাটানোর পর আন্তর্জাতিক দায়িত্বে খেলোয়াড়রা এতটাই মগ্ন ছিল যে, তাদের এই মুহুর্তে বিশ্রাম দেয়াটা জরুরী হয়ে পড়েছিল। বিশেষ করে কোপা আমেরিকায় খেলায় পর খেলোয়াড়রা মূলত মৌসুম শেষে কোন বিশ্রামই পাননি। এ কারণেই মেসি, নেইমার, গোলর¶ক ক্লডিও ব্র্যাভো, মিডফিল্ডার জ্যাভিয়ের মাশ্চেরানো ও ফুলব্যাক ডানি আলভেসকে যুক্তরাষ্ট্র সফরে বিশ্রাম দেয়া হয়েছে। খেলোয়াড়দের এই বিশ্রামের প্রয়োজন আছে। এনরিকে আরও বলেন, একজন কোচ হিসেবে আমি কখনই ট্যুরের প¶ে নই। বিভিন্ন দেশে সফরে গেলে অনুশীলনের সময়ে বিঘœ ঘটে। বিভিন্ন কারনে কার্যত সেটা দলের উপর নেতিবাচক প্রভাবই ফেলে।

তেভেজের রঙিন ফেরা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রায় এক যুগ পর স্বদেশী ক্লাব বোকা জুনিয়র্সে ফিরেছেন কার্লোস তেভেজ। দ্বিতীয়বার চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর আর্জেন্টিনা প্রিমিয়ার ডিভিশনে বোকার হয়ে প্রথম ম্যাচও খেলেছেন তারকা এই ফরোয়ার্ড। তার ফেরার ম্যাচে জয় পেয়েছে দল। বোকা ২-১ গোলে হারিয়েছে কুইলমেসকে। প্রত্যাবর্তন তাই রঙিনই হয়েছে তেভেজের।

বুয়েন্স আইরেসের দ্য বোম্বেনেরো স্টেডিয়ামে তেভেজকে বরণ করে নিতে জড়ো হয়েছিলেন হাজার হাজার ভক্ত-সমর্থক। উপস্থিতি ছিলেন কিংবদন্তী দিয়াগো ম্যারাডোনাও। গ্যালারিতে বসে তিনি সাবেক শিষ্যকে উৎসাহিত করেন। এ সময় ম্যারাডোনা প্রদর্শন করেন একটি ব্যানার। সেখানে লেখা ছিলÑ‘বোকায় ফিরে আসায় তোমাকে ধন্যবাদ’।

গোল না পেলেও ম্যাচে বোকার জয়ের নায়ক তেভেজই। বোকার হয়ে গোল করেন ফরোয়ার্ড সেবাস্টিয়ান প্যালাসিওস ও তরুণ ফুটবলার জোনাথন কায়েরি। কিছুদিন আগে ইতালির জুভেন্টাস থেকে শৈশবের ক্লাব বোকায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তেভেজ। ২০০৪ সালে বোকা থেকে ইংল্যান্ডে পাড়ি জমিয়েছিলেন তিনি। এরপর তেভেজ খেলেছেন ম্যানচেস্টার সিটি ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মতো বিশ্বখ্যাত ক্লাবে।