২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিশ্ববাজারে সোনার রেকর্ড মূল্য পতন

  • পাঁচ বছরে সর্বনিম্ন

বিশ্ব বাজারে পাঁচ বছরের মধ্যে সবচেয়ে নিচে নেমে গেল সোনার দাম। সোমবার লেনদেন চলাকালীন প্রতি ট্রয় আউন্স সোনার (৩১.১ গ্রামের বার) দর তলিয়ে গেল ১,১০০ ডলারেরও নিচে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এ মূহূর্তে আন্তর্জাতিক বাজারে উপচে পড়ছে সোনার যোগান। সঙ্গে দাম বাড়ছে ডলারের। আর মূলত এই দুই কারণেই এতখানি নেমে গেছে ওই গহনার ধাতুর দর। যার স্পষ্ট প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে কলকাতাসহ ভারতের বাজারেও। এ দিনই যেমন শহরে প্রতি ১০ গ্রাম পাকা (২৪ ক্যারেট) সোনার মূল্য দাম দাঁড়িয়েছে ২৫,৬৬০ রুপী। শনিবারের তুলনায় ৩৭০ রুপী কম। দেখা যাচ্ছে, সম্প্রতি ৩৩ হাজার কিলোগ্রাম সোনা বিক্রি করেছে চীন। বেহাল অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে সোনা বিক্রির জন্য আইএমএফের কাছে অনুমতি চেয়েছে গ্রীসও। আর এই উপচে পড়া যোগানের খবর বিশ্ব বাজারে টেনে নামিয়েছে সোনার দরকে। এই পতনে ইন্ধন যুগিয়েছে ডলারের দর বাড়াও।

ধীরে হলেও ক্রমশ ঘুরে দাঁড়াচ্ছে মার্কিন অর্থনীতি। তার ওপর সেখানে শীঘ্রই সুদ বাড়ানোর কথা বলেছে আমেরিকার শীর্ষ ব্যাঙ্ক ফেডারেল রিজার্ভ। ফলে সবমিলিয়ে দর বাড়ছে ডলারের। স্বাভাবিকভাবেই সোনার থেকে লগ্নি সেখানে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন অনেক বিনিয়োগকারী। তাই সোনার দর কমছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এমনিতেই ডলারের দাম কিংবা ব্যাংকে সুদ বাড়লে, সোনায় লগ্নিতে ভাটা পড়ে। তার ওপর যদি খোদ ফেড রিজার্ভই সুদ বৃদ্ধির কথা বলে, তাহলে যে তার প্রভাব সোনার দামে পড়বে, সেটাই স্বাভাবিক। সোনার দর অবশ্য কমছে কয়েক দিন ধরেই। গত এক মাসে সোনার দাম কমেছে ৮ শতাংশ। সোনা ব্যবহারের নিরিখে ভারত বিশ্বের প্রথম সারির দেশগুলোর মধ্যে থাকলেও, সোনার দাম কিন্তু নির্ভর করে আন্তর্জাতিক বাজারের ওঠা-নামার ওপর। তাই বিশ্ব বাজারের হাত ধরে সোনার দর কমেছে এই দেশেও। অনেকে মনে করছেন, এর দৌলতে তৈরি হয়েছে সোনা কেনার সুবর্ণ সুযোগ। গত শনিবার রথের দিনই ছিল মল মাসের শেষ। সামনেই বিয়ের মৌরসুম। ফলে এখন দাম কমায় খুশি অনেকেই। তবে স্বর্ণ ব্যবসায়ীমহলেরও দাবি, ইতোমধ্যেই তলানিতে ঠেকেছে সোনার দর। ফলে আগামী দিনে আর খুব একটা নামার সম্ভাবনা কম। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা