১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নোয়াখালীতে তিন ভাইকে কুপিয়ে ও গোপালগঞ্জে দু’চোখ তুলে যুবক খুন

  • অন্যত্র ১৭ জনকে হত্যা

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ফুটবল খেলা, প্রেম, জমি নিয়ে দ্বন্দ্ব ও জমি দখল, পূর্ব শত্রুতা, দাম্পত্য কলহ, মাছ ধরা ও জুয়া খেলাসহ নানা কারণে দেশের বিভিন্ন জেলায় গত তিন দিনে আওয়ামী লীগ কর্মী ও নারীসহ ২১ জন খুন হয়েছে। এসব ঘটনায় আরও বহু লোক আহত হয়েছে। শুক্র, শনি ও বরিবার এসব খুনের ঘটনা ঘটে। এছাড়া একই সময়ে দেশের বিভন্ন জায়গা থেকে ১২টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার কাজীনগর গ্রামে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে তিন ভাইকে কুপিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এ ঘটনায় এক নারীকে আটক করা হয়েছে। নওগাঁর রানীনগরে মাত্র ২৫ শতাংশ জমির দখল নিয়ে আওয়ামী লীগ কর্মী আমজাদ হোসেনের (৩৫) এক পায়ের গোড়ালি এবং অপর পায়ের রগ কেটে হত্যা করেছে এক জামায়াত কর্মী। এ ঘটনায় আহত হয়ছে আরও ১১ জন।

গোপালগঞ্জে প্রেমের কারণে তুহিন মোল্লা ওরফে শাহীন নামে এক যুবককে হত্যা করেছে তার আপন চাচা। গাইবান্ধায় একাধিক মামলার আসামি জেএমবি ক্যাডার খুন হয়েছে। একই জেলায় ছোট ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে বড় ভাই খুন হয়েছে। সিলেটের বিশ্বনাথে দুর্বৃত্তের হামলায় প্রবাসীর স্ত্রী এবং দাম্পত্য কলহের জেরে টাঙ্গাইলের গোপালপুরে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন হয়েছে। কুড়িগ্রামে মাছধরাকে কেন্দ্র করে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খুন হয়েছে। হবিগঞ্জে পরকীয়ার জেরে রতন মিয়া নামে একজন খুন হয়েছে।

জমি নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে কিশোরগঞ্জে ছেলের হাতে বাবা ও একই জেলায় গলাকেটে যুবক হত্যার ঘটনা ঘটেছে। কুষ্টিয়ায় পূর্বশত্রুতার জের ধরে এক যুবককে হত্যা করা হয়েছে। পাবনায় জুয়া খেলা ও জাজিরায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে একজনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া রাজবাড়ীতে ঘরজামাই ও গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু এবং সোনারগাঁওয়ে মাছ ব্যবসায়ীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। অপরদিকে গত তিন দিনে গোপালগঞ্জ, বরিশাল, সাপাহার, ফরিদপুর, গোবিন্দগঞ্জ, ভোলা, ভালুকা, ঝিনাহদহ, খুলনায় ব্যবসায়ী, অটোচালক, ভিক্ষুক, এনজিও কর্মকর্তা, কলেজছাত্র, নারী ও যুবকসহ ১২ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এসব ঘটনায় থানায় মামলা এবং একাধিক জড়িতকে আটক করেছে পুলিশ। খবর নিজস্ব সংবাদদাতা ও স্টাফ রিপোর্টারের।

নোয়াখালী॥ সোনাইমুড়ীতে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে তিন ভাইকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার নাটেশ্বর ইউনিয়নের কাজীনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন-কাজীনগর গ্রামের কাজীবাড়ির মোকছেদ উল্লার ছেলে মোঃ হারুন (৪০), কামাল উদ্দিন (৩৪) ও মোঃ বাবলু (২৭)। এ ঘটনায় পুলিশ ফাতেমা আক্তার (৩৫) নামে এক নারীকে আটক করেছে। আটক ফাতেমা আক্তার একই গ্রামের আব্দুল খালেকের স্ত্রী।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুপুরে কাজিনগর গ্রামের খালেকের নতুন বাড়ির খালি জায়গায় একটি প্রীতি ফুটবল খেলার আয়োজন করে মোঃ বাবলু, সাদ্দাম ও রাজুসহ এলাকার কয়েকজন যুবক। খেলায় বাবলু একটি গোল করলে ওই গোলটি অফসাইড হয়েছে বলে দাবি করেন প্রতিপক্ষ সাদ্দাম গ্রুপের খেলোয়াড়রা। এ নিয়ে দুইপক্ষের মধ্যে বাগ্বিত-া হয়।

যার এক পর্যায়ে বাবলুকে মাঠে খেলা দেখতে আসা তাঁর বড় ভাই হারুন মাঠ থেকে তুলে নিয়ে যেতে এগিয়ে আসেন। এ সময় সাদ্দাম, রফিক, রাজু, গোলাম মাওলা, আনোয়ার হোসেন, মিজান, নওশাদ, তাহের, মামুন, আবুসহ কয়েকজন একত্রিত হয়ে বাবলু ও হারুনকে এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকে। খবর পেয়ে বাবলুর অপর বড় ভাই কামাল উদ্দিন ঘটনাস্থলে আসলে তারা তাকেও পেটায়।

নিজেদের বাঁচাতে তিন ভাই পাশের বাড়ির দুইটি ঘরে আশ্রয় নেন। হামলাকারীরা সেখানে গিয়ে ঘর থেকে তাঁদের বের করে এনে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করে। এতে ঘটনাস্থলেই বাবলু ও হারুন মারা যান। পরে স্থানীয়রা কামালকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকেও মৃত ঘোষণা করেন।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ হানিফুল ইসলাম ফুটবল খেলা নিয়ে বাগ্বিত-ার জের ধরে প্রতিপক্ষের পিটুনিতে ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তিন ভাইয়ের মৃত্যুর ঘটনা নিশ্চিত করেন এবং এ ঘটনায় এক নারীকে আটক করেন।

গোপালগঞ্জ ॥ প্রেমের কারণে তুহিন মোল্লা ওরফে শাহীন (১৮) নামে এক যুবককে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে নিজের চাচা ও চাচত ভাইয়েরা। তার দু’চোখ উপড়ে ফেলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে দু’হাত কেটে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এছাড়াও তার বাবা অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কনেস্টেবল শওকত মোল্লারও হাতে-পায়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করা হয়েছে। এছাড়াও তাদের আরও দু’জন আত্মীয় ফিরোজ মোল্লা (৪০) ও আবুল কাশেম মোল্লাকেও (১৬) কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে। শনিবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার পাথালিয়া গ্রামে এসব ঘটনা ঘটে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় শওকত মোল্লা ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে, ফিরোজ মোল্লা খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ও আবুল কাশেম মোল্লা গোপালগঞ্জে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পাথালিয়া গ্রামের লায়েক মোল্লার মেয়ে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী মনিকা খানমের (ছদ্মনাম ইভা) সাথে আপন ভাই অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কনেস্টেবল শওকত মোল্লার ছেলে তুহিন মোল্লা ওরফে শাহীনের দীর্ঘদিন ধরে গভীর প্রেম চলে আসছিল। এটা জানাজানি হয়ে গেলে ওই দু’ভাইয়ের পরিবারের মধ্যে কলহ শুরু হয়। বড় ভাই লায়েক মোল্লা বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি। তিনি তার মেয়েকে নানাভাবে বুঝিয়েও ব্যর্থ হন। একপর্যায়ে ঈদের দিন বিকেলে শাহীন ও ইভা একসঙ্গে ঘুরতে বের হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে লায়েক মোল্লা ছোট ভাইয়ের ছেলেকে পঙ্গু করে দেয়ার পরিকল্পনা আটেন। সে অনুযায়ী লায়েক মোল্লা মেয়ে ইভাকে বাড়ি থেকে অন্যত্র পাঠিয়ে দিয়ে বাড়ির মালপত্র, গরু-ছাগল ও হাস-মুরগি সরিয়ে নেন। এরপর রাত সাড়ে ৮টার দিকে লায়েক মোল্লা এবং তার ছেলে আরিফুল মোল্লা ও শরিফুল মোল্লা বাড়ির পাশে একটি মাছের ঘেরের কাছে শাহীনকে ডেকে নেন এবং একপর্যায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে শাহীনের দু’হাত কেটে দু’চোখ উপড়ে ফেলে। তুহিনের চিৎকার শুনে তার বাবা শওকত মোল্লা ও তার আরও দু’আত্মীয় ফিরোজ মোল্লা ও কাশেম মোল্লা তাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তাদেরও তারা এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। পরে এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে এনে ভর্তি করে। কিন্তু অবস্থার অবনতি ঘটলে ওই রাতেই সেখান থেকে শাহীন ও শওকত মোল্লাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু পথে শহীনের মৃত্যু ঘটে। রবিবার সকালে তার লাশ মর্গে পাঠানো হয়।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি জাকির হোসেন মোল্লা বলেছেন, ঘটনার পর পুলিশ সুপার এস এম এমরান হোসেন ওই এলাকা পরিদর্শন করছেন। ঘটনাটি পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে। হত্যাকা-ের সাথে জড়িতরা পলাতক রয়েছে।

নওগাঁ ॥ রানীনগরে মাত্র ২৫ শতক জমির দখলকে কেন্দ্র করে পায়ের গোড়ালি বিচ্ছিন্ন করে এবং আরেক পায়ের রগ কেটে আমজাদ হোসেন নামে এক আওয়ামী লীগ কর্মীকে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ জামায়াত কর্মী মোজাফ্ফর গং। এ সময় নারী-পুরুষসহ উভয় পক্ষের অন্তত আরও ১১ জন আহত হয়েছেন। এই ঘটনায় উত্তেজিত এলাকাবাসী জামায়াত নেতা মোজাফ্ফর হোসেনের বাড়িসহ কয়েকটি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুরসহ অগ্নি সংযোগ করেছে।

গাইবান্ধা ॥ সাঘাটা উপজেলার জুমারবাড়ী এলাকায় ফজলে রাব্বী ম-ল (৩০) নামে এক জেএমবি ক্যাডার রবিবার রাতে খুন হয়েছেন। তিনি একাধিক মামলার পলাতক আসামি এবং বসন্তেরপাড়া এলাকার সাদাক্কাস ম-লের ছেলে। দীর্ঘদিন থেকে ফজলে রাব্বী ঢাকার কেরানীগঞ্জ এলাকায় আত্মগোপন করে ছিলেন। ঈদ করতে গোপনে বাড়িতে এলে তিনি ওই ঘটনার শিকার হন। ঘটনাস্থল থেকে রিভলবারের দুটি তাজা গুলি ও একটি খোসা পাওয়া গেছে।

রবিবার রাতে তিনি প্রতিপক্ষের ছোড়া গুলিতে মাথায় গুলিবিদ্ধ হন। পরে তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দিবাগত রাত দেড়টার দিকে তিনি মারা যান। গাইবান্ধা জেলা শহরের কাঠপট্টি এলাকায় ঈদের আগের দিন শুক্রবার রাতে ছোট ভাই রাহুল খানের ছুরিকাঘাতে বড় ভাই রায়হান খান (২৮) নিহত হয়েছেন। তিনি শহরের স্টেশন রোড সংলগ্ন কাঠপট্টি এলাকার নেহাল খানের ছেলে।

সিলেট অফিস ॥ বিশ্বনাথে দুর্বৃত্তের হামলায় প্রবাসীর স্ত্রী খুন হয়েছেন। আহত শাশুড়িকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যা ৭টায় মিষ্টির বক্স নিয়ে অতিথি পরিচয়ে ঘরে ঢুকে মা ও মেয়েকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা। নিহত সুজিনা বিশ্বনাথ উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর (পশ্চিমপাড়া খালপাড়) গ্রামের মৃত হাজী আব্দুর রউফের কন্যা ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী মুরাদ আহমদের স্ত্রী।

টাঙ্গাইল ॥ গোপালপুরে দাম্পত্য কলহের জের ধরে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুনের অভিযোগ উঠেছে। রবিবার সকালে আলমনগর ইউনিয়নের নবগ্রাম দক্ষিণপাড়া গ্রামে এ খুনের ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহবধূর নাম আল্পনা আক্তার (৩০)।

কুড়িগ্রাম ॥ জেলার নাগেশ^রী পৌরসভার কর্মচারী মশিউর রহমান (৪০) মাছধরাকে কেন্দ্র করে বড় ভাই মোসলেম উদ্দিন ও তার পরিবারের লোকজনের হাতে নির্মমভাবে খুন হন। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত মোসলেম উদ্দিন (৪৮) ও তার স্ত্রী সাহেরা বেগমকে (৩৮) গ্রেফতার করেছে।

কিশোরগঞ্জ ॥ অষ্টগ্রামে জমি সংক্রান্ত দ্বন্দ্বের জেরে ছেলের হাতে আব্দুর রাজ্জাক (৬৫) নামে এক বৃদ্ধ খুন হয়েছেন। তিনি উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের দরগাহাটি গ্রামের বাসিন্দা। এ ঘটনায় ঘাতক মোতালেবকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, জমিজমা নিয়ে বাবা আব্দুর রাজ্জাক ও ছেলে মোতালেবের সাথে কয়েক বছর ধরে দ্বন্দ্ব চলছিল। এ নিয়ে শনিবার (১৮ জুন) সকালে বাবা ও ছেলের মধ্যে ঝগড়া হয়। পরে বিকেলে হঠাৎ করে মোতালেব একটি দা দিয়ে বাবা আব্দুর রাজ্জাককে ঘাড়ে কোপ দেয়। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতলে ভর্তি করা হয়। সেখানে ওইদিন দিবাগত রাত ১২টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

কুষ্টিয়া ॥ ঈদের দিন এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। পূর্বশত্রুতার জের ধরে শনিবার ঈদের দুপুরে শহরের বড় বাজার এলাকায় সুইপার কলোনিতে এ হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম বিজয় লাল (২৫)। সে এলাকার টিটু লালের পুত্র। স্থানীয়রা জানায়, দুপুর একটার দিকে বড় বাজার এলাকায় সুইপার কলোনির স্বপনসহ স্থানীয় কয়েকজনের সাথে বিজয়ের বাগবিতন্ডা হয়। এক পার্যায়ে প্রতিপক্ষ কোদাল দিয়ে কুপিয়ে আহত করে বিজয়কে। বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এ বিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ জানায়, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন তাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

নড়াইল ॥ নিজ নামের জমি স্বামীর নামে লিখে না দেয়ায় আজিরন নেছা (৪৫) নামে এক মহিলাকে গলা কেটে জবাই করে হত্যা করেছে পাষ- স্বামী। শুক্রবার ভোর রাতে স্বামী বিল্লাল শেখ তাকে হত্যা করে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনার পর থেকেই স্বামী বিল্লাল শেখ পলাতক রয়েছে। মর্মান্তিক এ ঘটনাটি ঘটেছে সদর উপজেলা শড়াতলা গ্রামে। নিহত আজিরন নেছার ২ ছেলে ও ২ মেয়ে। দুই ছেলে ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি করে।

হবিগঞ্জ ॥ জেলায় পরকীয়ার জেরে রতন মিয়া নামে একজন খুন হয়েছে। ভাটি উপজেলা আজমিরীগঞ্জের পল্লী কামালপুরে এই নির্মম ঘটনাটি ঘটে। এদিকে এই ঘটনার পর হারিছসহ ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পাবনা ॥ সদর উপজেলার দক্ষিণ মাছিমপুর গ্রামে ‘জুয়া’ খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে মুনছের আলী (৪৭) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। রবিবার রাতে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। নিহত মুনছের দক্ষিণ মাছিমপুর গ্রামের মৃত আয়েন উদ্দিন শেখের ছেলে।

শরীয়তপুর ॥ জাজিরা উপজেলার দুর্Ÿাডাঙ্গা হাওলাদার কান্দি গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ১জনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকেরা। সদর হাসপাতাল মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। নিহতের ছোট ভাই মাসুম হাওলাদার বাদী হয়ে সোমবার জাজিরা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।