১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পাঁচদিন লড়াইয়ের প্রত্যয় টাইগারদের

পাঁচদিন লড়াইয়ের প্রত্যয় টাইগারদের
  • বৃষ্টির শঙ্কায় সাগরিকায় সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু আজ

মোঃ মামুন রশীদ, চট্টগ্রাম থেকে ॥ সাগরিকায় গত তিনদিন অঝোর বৃষ্টি হচ্ছে। রোদটা বিরল হয়ে গেছে বন্দরনগরীতে! তবে সোমবার দুপুরের পর কিছুটা সৌর রশ্মির ঝলকানি আনন্দে নেচে তুলেছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমী দর্শকদের মন। কারণ পুরো সময়টা জুড়েই তো এখন দেশের ক্রিকেটপ্রেমীরা টাইগারদের মাঠে লড়াইটা দেখতে উদগ্রীব। তবে সে আনন্দটা বেশিক্ষণ থাকেনি, সন্ধ্যায় ভারি মেঘের ঘনঘটা আবার বিষন্ন করে তুলেছে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামকে। কারণ আজ থেকে এখানেই গড়াবে বাংলাদেশ ও সফরকারী বাংলাদেশের মধ্যে সিরিজের প্রথম টেস্ট। আবহাওয়া পূর্বাভাস বলছে আজ সকাল থেকেই বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা ৬০ শতাংশ, সেই সঙ্গে দমকা হাওয়া এবং বাতাসে জলীয় বাষ্পের আধিক্য থাকবে। গোড়াতেই ম্যাচটা বাধাগ্রস্ত হলে তা ক্রিকেটারদের মনমানসিকতার স্বাভাবিকতাও নষ্ট করে দিতে পারে। কারণ এমনিতেও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট পরিসংখ্যানটা একেবারেই সুখকর নয় বাংলাদেশের। আগের আট টেস্টের সবই অসহায় আত্মসমর্পণ করেছে টাইগাররা। সাত টেস্টেই হেরেছে ইনিংস ব্যবধানে। অবশ্য দীর্ঘ আট বছর আর টেস্ট খেলেনি দু’দল। এর মধ্যে অনেকখানিই বদলে গেছে বাংলাদেশ। অন্তত ওয়ানডে ক্রিকেটে শক্তিধর প্রতিপক্ষ হয়ে উঠেছে। প্রথমবারের মতো এবার ওয়ানডে সিরিজও জিতেছে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে। এবার মুশফিকুর রহীমের দলের ওয়ানডের সেই অর্জনটা টেস্টে ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ। সেই চ্যালেঞ্জ নিতে এবার বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট দল দক্ষিণ আফ্রিকার মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। দুই টেস্টের সিরিজের প্রথমটি আজ সাগরিকায় বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৯টায় শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

টস সবসময়ই একটা বড় ফ্যাক্টর যে কোন ফরমেটের ক্রিকেটে। আর বাংলাদেশে বর্তমানে যে ভরা বর্ষা মৌসুম তাতে করে ম্যাচের ফলাফল কিংবা প্রতিপক্ষের শক্তিমত্তা বিবেচনার চেয়ে জরুরী হয়ে উঠেছে অঝোর শ্রাবণ! বৃষ্টি যেভাবে পুরো দেশকেই দখলে নিয়েছে তাতে করে আশঙ্কা টেস্টের প্রথম দিন থেকেই হানা দেয়ার। আবহাওয়াবিদরাও সেটাই বলছেন। সেক্ষেত্রে উইকেট কেমন হবে এবং একাদশ কিভাবে সাজানো হবে সেটা নিয়ে শুধু বাংলাদেশ নয় খোদ প্রোটিয়া শিবিরও আছে অস্বস্তিতে। মুশফিকুর রহীম তো বলেই দিলেন, ‘আসলে এখনও উইকেটের ৭০-৮০ ভাগ ঠিক হয়নি। আজকের (সোমবার) আবহাওয়া এবং আগামীকালের (আজ) কন্ডিশন দেখে সেরা একাদশ সাজাতে হবে। আর টসের ওপর অনেক কিছু নির্ভর করছে।’ তবে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের ড্রেনেজ সিস্টেম অবিশ্বাস্য রকমের ভাল। সেটা বোঝা গেছে গত বুধবার এখানে হওয়া তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে টানা বৃষ্টি শেষে ৪০ মিনিট পরই খেলা শুরু হওয়ার মাধ্যমে। এ কারণে আউটফিল্ড হয় তো শুরুর দিকে তেমন দ্রুত থাকবে না কিন্তু উইকেটে তেমন প্রভাব পড়বে না। কিন্তু সেক্ষেত্রেও পরিবেশটা ব্যাটিং-বোলিংয়ে সুবিধা-অসুবিধার ক্ষেত্রে বাড়তি একটা প্রভাব ফেলতে পারে। এ কারণে একাদশের সমন্বয়টা সঠিকভাবে বিচার করা বেশ কঠিন।

বাংলাদেশ দলে ফিরেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও নাসির হোসেন। এছাড়া প্রথমবারের মতো টেস্ট দলে সুযোগ করে নিয়েছেন ওয়ানডেতে আলোড়ন তোলা তরুণ পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। সেক্ষেত্রে একাদশ সাজানোটা এক জটিল ধাঁধা হয়ে গেছে বাংলাদেশের জন্য। গত মাসে ভারতের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে মাত্র একজন পেসার খেলিয়ে দারুণ সমালোচনার মধ্যে পড়েছিল টাইগাররা সমস্যায় পড়ার কারণে। এবার অন্তত দু’জন পেসার নিয়েই নামার সম্ভাবনা। এছাড়া মুশফিক জানিয়েছেন ভারতের বিপক্ষে উইকেটরক্ষক হিসেবে ভাল করার কারণে তরুণ লিটন দাসের হাতেই সে ভার থাকছে। এসজি বলে খেলা হবে এই টেস্ট। সে কারণে স্পিনার তাইজুল ইসলামের খেলাটা নিশ্চিত। কারণ এই বলে তার রয়েছে দারুণ সাফল্য। ম্যাচ শুরুর আগের দিন বাংলাদেশ দল সকালে মূল মাঠেও নামতে পারেনি বৃষ্টির কারণে অনুশীলন করার জন্য। ইনডোরেই ব্যাটিং-বোলিং করতে হয়েছে। কিন্তু ওয়ানডে সিরিজে দুর্দমনীয় নৈপুণ্য এবং গত কয়েক মাসে ভাল ক্রিকেট খেলার কারণে উজ্জীবিত টাইগাররা দারুণ আত্মবিশ্বাসী। যদিও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সবচেয়ে ভাল ফলাফলটা ২০০৮ এর ফেব্রুয়ারিতে ঢাকায় ৫ উইকেটে পরাজয়! বাকি ৭ ম্যাচেই ইনিংস ব্যবধানে হার এবং চট্টগ্রামে এর আগে হওয়া দুই টেস্টেই চারদিনে হেরে গেছে বাংলাদেশ।

টাইগারদের তুলনায় দক্ষিণ আফ্রিকা নিশ্চিতভাবে শক্তিমত্তায় যোজন-যোজন ওপরে। টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের বিপক্ষে কোন সময়ই বিন্দুমাত্র বিচলিত হয়নি প্রোটিয়ারা। ১৩০ রেটিং নিয়ে বর্তমানে আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে এক নম্বরে রয়েছে দলটি। তাছাড়া দলে রয়েছে বিশ্বমানের কয়েক ক্রিকেটার। এর মধ্যে সবচেয়ে ত্রাসোদ্দীপক দক্ষিণ আফ্রিকার পেস বোলিং বিভাগ। সেখানে আছেন বর্তমান বিশ্বের ভয়ঙ্করতম পেসার ডেল স্টেইন। সঙ্গে দুই সহযোগী পেসার ভারনন ফিল্যান্ডার ও মরনে মরকেল। এ তিনজনই ধারাবাহিকভাবে অবিস্মরণীয় সাফল্য পেয়ে আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ের সেরা দলে আছেন। স্টেইন এক নম্বরে, সাতে ফিল্যান্ডার ও নয়ে আছেন মরকেল। আর ব্যাটিংয়ে অবশ্য র‌্যাঙ্কিংয়ের দুইয়ে থাকা এবি ডি ভিলিয়ার্স নেই। কিন্তু তিন নম্বরে থাকা অধিনায়ক হাশিম আমলা আছেন। উপমহাদেশে আমলার আছে ঈর্ষণীয় সাফল্য। সবদিক বিবেচনা করে বাংলাদেশের জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ দক্ষিণ আফ্রিকা। যদিও প্রথমবারের মতো ওয়ানডে সিরিজ হেরে বাংলাদেশকে সমীহই করছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এখন দেখার পালা আগের ইতিহাসটাই অটুট থাকে, নাকি উজ্জীবিত বাংলাদেশ টেস্ট ক্রিকেটেও বদলে গিয়ে প্রোটিয়াদের ঘাম ঝরায়!