২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডিএনডি বাঁধে ফের কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দী

নিজস্ব সংবাদদাতা, সিদ্ধিরগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ২০ জুলাই ॥ ঈদের আগের দিন থেকে কয়েকদিনের অব্যাহত প্রবল বর্ষণে ডিএনডির অভ্যন্তরের নিচু এলাকায় আবারও ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে কৃত্রিম বন্যায় রূপ নিয়েছে। বর্ষণের কারণে ডিএনডির নিচু এলাকার পানিবন্দী কয়েক লাখ মানুষের ঈদের আনন্দ ম্লান হয়ে গেছে। বিশেষ করে রাস্তাঘাট ও বাড়িঘরসহ নানা স্থাপনা পানিতে ডুবে যাওয়ায় পানিবন্দী মানুষ দুর্বিষহ জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছে। জলাবদ্ধতা শিকার লোকজন দিন-রাত ২৪ ঘণ্টাই পানির সঙ্গে যুদ্ধ করতে বাধ্য হচ্ছে। সিদ্ধিরগঞ্জের পাম্প হাউসের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী ৪টি পাম্পই সর্বক্ষণিক চালু রয়েছে বলে দাবি করেন।

জানা যায়, ঈদের আগের দিন থেকে সোমবার পর্যন্ত অব্যাহত বর্ষণের পানিতে ডিএনডির প্রজেক্ট অভ্যন্তরের নিচু এলাকায় আবারও ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এতে ডিএনডির নিচু এলাকায় পানি জমে কৃত্রিম বন্যায় রূপ নিয়েছে বলে ‘ক্তভোগীরা জানান। সাধারণত নিম্নাঞ্চলের রাস্তাঘাট, বাড়িঘর, স্কুল-কলেজ, মসজিদ- মাদ্রাসা পানিতে তলিয়ে গেছে। অব্যাহত প্রবল বর্ষণে ঢাকার ডেমরা, যাত্রাবাড়ী, কদমতলী, শ্যামপুর, নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ, ফতুল্লা থানার বহু নিচু এলাকার বাড়িঘর ও রাস্তাঘাট বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে ডিএনডির অভ্যন্তরে বসবাসরত প্রায় কয়েক লাখ লোক আবারও পানিবন্দী হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

রূপগঞ্জে শত শত ঘরবাড়ি তলিয়ে গেছে

নিজস্ব সংবাদদাতা রূপগঞ্জ থেকে জানান, কয়েক দিনের টানা বর্ষণে নারায়ণগঞ্জ-নরসিংদী অগ্রণী সেচ প্রকল্পের নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বাঁধের ভেতরে বন্যায় পরিণত হয়েছে। এতে করে প্রায় লাখো মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এখানকারা মানুষ। শত শত ছোট-বড় ঘরবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে খামারের মাছ। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মৎস্য চাষীরা। অনেকে পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে। এবারের ঈদে এসব এলাকার মানুষ অতিকষ্টে সময় পার করেছে। এ যেন দুঃখের শেষ নেই। অপর দিকে গোলাকান্দাইল ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে চেয়ারম্যান¡ আব্দুল মতিন জলাবদ্ধতা নিরসন ও সেচ প্রকল্পের ছোট-বড় খালের বন্ধ হওয়া মুখ খুলে দিয়ে জলাবন্ধতা নিরসনের জন্য দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন।