১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পুলিশের বাসায় কাজের মেয়েকে হত্যার অভিযোগ

সংবাদদাতা, শাহজাদপুর, সিরাজগঞ্জ, ২০ জুলাই ॥ পল্লবী থানার কন্সটেবল দম্পতির বাসায় কাজের মেয়েকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ কন্সটেবল জয়নবকে পুলিশ আটক করেছে। জানা যায়, শাহজাদপুর উপজেলার পৌর সদর রূপপুর নতুনপাড়া গ্রামের তাঁত শ্রমিক ফুলচানের মেয়ে হোসনেয়ারাকে (১৪) নির্যাতন ও শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ করা হয়। নিহত হোসনেয়ারার শরীরে ও গলায় একাধিক আঘাতের চিহ্ন ও একটি দাঁত ভাঙা রয়েছে। অপরদিকে এটিকে আত্মহত্যা বলে লাশ দাফনের চেষ্টা করলে ঘটনা ফাঁস হওয়ায় শেষ রক্ষা হয়নি। পুলিশ নিহতের লাশ ফুলচানের বাড়ি থেকে উদ্ধার করেছে। নিহতের পিতা ফুলচান জানান, হোসনেয়ারাকে লেখাপড়া করার উদ্দেশ্যে পাশের সাঁথিয়া উপজেলার সেলন্দা গ্রামের মামা শ্বশুরের ছেলে আব্দুল আলিমের বাড়িতে রেখে এসেছিলেন। তাকে না জানিয়ে তারা সেখান থেকে ঢাকার মিরপুরে পুলিশ লাইনের ৩নং কোয়ার্টারের পল্লবী থানার কন্সটেবল দম্পতি জয়নব বেগম ও সাদ্দাম হোসেনের বাসায় ৬ মাস পুর্বে গৃহপরিচারিকার কাজে নিযুক্ত করে। সোমবার ভোরে মোবাইল ফোনে তাঁকে জানানো হয়, তাঁর মেয়ে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। দুপুরে লাশ বাড়িতে এনে তড়িঘড়ি দাফনের চেষ্টা করলে আশপাশের লোকজনের সন্দেহ হয়। তারা লাশ পরীক্ষা করে নিহতের শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন ও একটি দাঁত ভাঙা দেখতে পায়।

বাউফলে প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে জেলে

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাউফল, ২০ জুলাই ॥ বাউফলে মহুয়া (১৫) নামে দশম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রী প্রেমের টানে ঘর ছেড়ে এখন ঠাঁই হয়েছে জেলখানায়। জানা গেছে, কালাইয়া ইউপির ২নং ওয়ার্ডের ঝন্টু মৃধার মেয়ে ও কালাইয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী মহুয়ার সঙ্গে নাজিরপুর ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের আইউব আলী খানের ছেলে ইউসুফের (২২) প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। দেড় মাস আগে বাবা-মা মহুয়াকে ভরিপাশা গ্রামের সাইফুল মৃধার সঙ্গে বিয়ে দেন। কিন্তু মহুয়া এ বিয়ে মেনে নেয়নি। বৃহস্পতিবার রাতের আঁধারে মহুয়া প্রেমিক ইউসুফের হাত ধরে ঘর ছেড়ে পালিয়ে যায়। ঈদের পরের দিন (রবিবার) রাতে পুলিশ পটুয়াখালী সদর উপজেলার লোহালিয়া ঘাট এলাকা থেকে মহুয়াকে উদ্ধার করে।