১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ছিটমহলের ৭৮৭ জন ভারতের নতুন নাগরিকত্ব পেয়েছেন

  • চ্যাংরাবান্ধায় দু’দেশের জেলা প্রশাসক পর্যায়ে বৈঠক

নিজস্ব সংবাদদাতা, লালমনিরহাট থেকে ॥ লালমনিরহাট জেলার বুড়িমারী স্থলবন্দরের বিপরীতে ভারতের চ্যাংরাবান্ধায় ৬১ বিএসএফ ক্যাম্পের মিলনায়তনে সোমবার বিকেল তিনটা হতে রাত আটটা পর্যন্ত ৫ ঘণ্টাব্যাপী দুই দেশের জেলা প্রশাসক পর্যায়ে ছিটমহল বিনিময় ও নতুন ভারতীয় নাগরিকত্ব পাওয়া ৭৮৭ জনকে হস্তান্তর নিয়ে ফলপ্রসূ বৈঠক হয়েছে।

বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ১ আগস্ট হতে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ছিটমহলের বাসিন্দারা যে কোন ইমিগ্রেশন রুট দিয়ে ভারতে স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য যেতে পারবে। তারা ভূ-সম্পত্তি বিক্রির অর্থ নিতে পারবেন ও অস্থায়ী সম্পদ নিয়ে যেতে পারবেন। ভারতের নাগরিকত্ব নেয়া ছিটমহলের অধিবাসীরা তাদের পৈত্রিকসূত্রে পাওয়া জমি বিক্রি করে নগদ অর্থ ভারতে নিতে পারবেন। আবার তাদের ঘরবাড়িসহ অস্থায়ী সম্পত্তি ট্রাকযোগেও নিতে পারবেন। তারা দেশের ভেতরে থাকা যে কোন চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে স্থায়ী বাসিন্দা হতে যেতে পারবেন। তবে ভারতের ভেতরে থাকা ৫১ বাংলাদেশী ছিটমহলের কেউ ভারতের ভূখ- ছেড়ে বাংলাদেশে আসতে চাননি ও নাগরিকত্ব গ্রহণ করেননি। বৈঠকে বাংলাদেশের ৫ সদস্যের দলের নেতৃত্ব দেন লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান ও ভারতের ৬ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন মেকলীগঞ্জ মহকুমার এডিএম রণজিৎ কুমার। বাংলাদেশের ভেতরে থাকা ভারতের ১১১ ছিটমহল যা বাংলাদেশের ভূখ-। এই ১১১ ছিটমহল হতে ভারতের নাগরিকত্ব নিয়েছেন ৭৮৭ । এদের মধ্যে ১৬৩ মুসলিম পরিবারের সদস্য। নাগরিকত্ব পাওয়াদের আত্মীয়স্বজন ভারতে বসবাস করায় তারা ভারতে স্বেচ্ছা নাগরিকত্ব নিয়েছেন। দুই দেশের জেলা প্রশাসক পর্যায়ে বৈঠক ছিটমহলের ৭৮৭ জন ভারতের নতুন নাগরিকত্ব পেয়েছেন।