১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুড়িগ্রামে ভিজিএফ চাল কালোবাজারে

স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম ॥ কুড়িগ্রামের রৌমারীর যাদুরচর ইউনিয়নে বরাদ্দকৃত ভিজিএফ কর্মসূচীর চাল দুস্থদের মাঝে বিতরণ না করে কালোবাজারে বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দুস্থ মানুষরা ঈদের আগের দু’দিন চালের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে ঘুরেও চাল পায়নি। চালের জন্য সোমবার বিকেলে কয়েকশ দুস্থ মানুষ যাদুরচর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে এসেছিল। কিন্তু পরিষদের গুদামে কোন চাল নেই এবং চেয়ারম্যান নেই। চেয়ারম্যান কোথায় আছে কেউ বলতে পারেনি। ঈদের দিনে যাতে কোন মানুষ আনন্দ উৎসব থেকে বঞ্চিত না হয় সেজন্য সরকার দুস্থদের জন্য ভিজিএফ বরাদ্দ দিয়েছে। এতে ঈদের আগেই প্রতি পরিবার ১০ কেজি করে চাল পাওয়ার কথা। সে হিসেবে যাদুরচর ইউনিয়নের সাত হাজার পরিবারের জন্য ৭০ টন চার বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ইউপি চেয়ারম্যান সরবেশ আলী ৭০ টনের মধ্যে ৩০ টন চাল কালোবাজারে বিক্রি করেছে বলে জানিয়েছেন ইউপি সদস্য মোকছেদুল হক ও মোকবুল হোসেন। ইউনিয়ন পরিষদে চালের জন্য দুদিন থেকে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ধনারচর নতুন গ্রামের শুমারী বেগম। তিনি বলেন প্রতিদিন ২০ টাকা দিয়ে ভ্যানগাড়ি ভাড়া দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে আসি অথচ চেয়ারম্যানকে পাই না। আমরা চাল পাই নাই। শুনেছি চাল বিতরণ সব শেষ। তাহলে আমাদের নামের চাল কোথায় গেল তার মতো চালের জন্য অপেক্ষা করছেন সোনাবানু, মোসলেমা বেগম, জমিলা খাতুন, সালেহা বগম, রবিরবন বেওয়াসহ কয়েকশ দুস্থ পরিবারের সদস্য।

ইউপি চেয়ারম্যান সরবেশ আলী জানান আমি দুস্থদের মাঝে ঈদের আগেই চাল বিতরণ করেছি। আমার ইউনিয়ন পরিষদের সামনে কোন ভিড় নেই। পরিষদের সচিব আবু বক্কর জানান, চাল বিতরণ শেষ করা হয়েছে। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যন মজিবুর রহমান বঙ্গবাসী জানান, যাদুরচর ইউনিয়নে তালিকাভুক্ত অর্ধেক দুস্থ চাল পায়নি। তাদের নামের চালগুলো কোথায় গেল। ভিজিএফের চাল কালোবাজারে বিক্রি করেছেন চেয়ারম্যানরা।

এমন তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বরিশালে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তরুণীর মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ জেলার উজিরপুর উপজেলার ধামুড়া পুলিশ ক্যাম্পের সামনে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার চাকার সাথে ওড়না পেঁচিয়ে সীমা আক্তার (১৬) নামের তরুণী মারা গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাতে।

পুলিশ জানায়, বাবুগঞ্জ উপজেলা সদরের বাসিন্দা দেলোয়ার সরদারের কন্যা সীমা নিজবাড়ি থেকে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাযোগে ধামুড়া গ্রামের খালাবাড়ির বেড়ানোর উদ্দেশে যাচ্ছিল। অসাবধানতাবশত সীমার ওড়না অটোরিকশার চাকার সাথে জড়িয়ে গলায় ফাঁস লেগে যায়।