২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভেজাল খাদ্য খেয়ে শিশুসহ ৫০ জন হাসপাতালে

স্টাফ রির্পোটার, ঈশ্বরদী ॥ নিম্নমানের ভেজাল সেমাই ও বিভিন্ন প্রকার খাদ্য পণ্য খেয়ে ঈশ্বরদীর বিভিন্ন এলাকায় মানুষ পেটের পিড়া ও ডায়রিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে । ঈদের দিন শনিবার থেকে বুধবার পর্যন্ত নিম্নমানের খাদ্য খেয়ে ঈশ্বরদী হাসপাতালে প্রায় ৫০ জন রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। এদের বেশির ভাগেরই বয়স ১৬ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। হাসপাতালের একাধিক সূত্র ও রোগীর স্বজনদের দেওয়া তথ্য সূত্রে এসব জানা গেছে।

সূত্র মতে, এমনিতেই কাস্টম, বিএসটিআই ও বিভিন্ন বিভাগের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের গাফিলতির সুযোগে দীর্ঘদিন থেকে ঈশ্বরদীসহ নিকটস্থ বিভিন্ন এলাকার হাট-বাজারে নিম্নমানের সেমাই, ফাস্টফুড, দই-মিষ্টি, ঘি, সস, বিরানীসহ বিভিন্ন প্রকার ভেজাল খাদ্য পণ্য বিক্রি হয়ে আসছিল। তার উপর সদ্য বিদায়ী ঈদ মৌসুমকে সামনে রেখে ভেজাল পণ্য ব্যবসায়ী ও উৎপাদনকারী কারখানা মালিকরা মরিয়া হয়ে উঠে। তারা ঈদের বাজারে অতিরিক্ত মুনাফা লাভের টার্গেটে ভেজাল পণ্য উৎপাদন ও বিক্রি করতে শুরু করে। বিভিন্ন নামীদামী ব্রান্ডের চটকদার মোড়কের আদলে নকল মোড়কজাত করে তারা এসব পণ্য নানা কৌশলে বাজারজাত করে। সহজ সরল ক্রেতারা না বুঝেই এসব ভেজাল খাদ্য পণ্য বাড়িতে বাড়িতে ঈদের জন্য কিনে নিয়ে যায়। ঈদ উপলক্ষে রান্না করা এসব খাদ্য পণ্য খেয়ে নানা বয়সী মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়ে।

ঈশ্বরদী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আমীন আহমেদ খান বলেন, সকল জায়গাতেই ভেজাল খাদ্য পণ্য বিক্রি হচ্ছে। এক মাস রোজার পর বিভিন্ন বয়সি মানুষ এসব ভেজাল খাদ্য পণ্য খেয়ে ডায়রিয়াসহ নানা প্রকার পেটের পিড়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন। ঈদের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৫০ জন রোগীর চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।