২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লক্ষ্য ৪০০ রান ॥ মাহমুদুল্লাহ

স্পোর্টস রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে ॥ প্রথম দিনে টেস্ট ক্রিকেটের এক নম্বর দল দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং বিপর্যয় দেখেই সতর্ক পদক্ষেপ ফেলেছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় দিনের শুরু থেকেই তাই দেখেশুনে যতটা সম্ভব উইকেট ধরে রাখার দিকে মনোযোগী হয়েছে মুশফিকুর রহীমের দল। তবে এরপরও চার টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফিরে গেছেন। তবে সাকিব আল হাসান ও অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম আছেন এখনও ক্রিজে। তাদের ওপর পূর্ণ আস্থা রেখে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ইনিংসে সর্বোচ্চ রান করা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ জানালেন অন্তত চার শ’ রানের টার্গেট দলের। কিন্তু সেটা তৃতীয় দিনের শুরুতে সতর্ক থেকে ব্যাট চালাতে হবে বলে দাবি করলেন এ ব্যাটসম্যান। মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনশেষে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মাহমুদুল্লাহ।

এখন পর্যন্ত চলতি টেস্টে বেশ ভাল অবস্থানেই আছে বাংলাদেশ দল। তবে পট পরিবর্তন হতে সময় লাগে না। টেস্ট ক্রিকেটের এটাই চিরাচরিত নিয়ম। একটা সেশন ভাল গেলেই শেষ নয়, পরের সেশনেও ভাল করাটা জরুরী। এ বিষয়ে মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘আগামীকালের প্রথম সেশনের ওপর নির্ভর করছে। প্রথম সেশনটি আমরা যদি ভাল করে শুরু করতে পারি, কোন উইকেট না হারালে তো আরও ভাল। এই উইকেটে যদি চার শ’ বার তার বেশি রান করতে পারি তাহলে আমাদের জন্যে খুবই ভাল।’ ৪ উইকেট হারিয়ে ১৭৯ রান তুলে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। অবস্থাটা স্বস্তিদায়ক। তবে দক্ষিণ আফ্রিকা আগের দিন ২৪৮ রানে গুটিয়ে যাওয়ার কারণে সতর্ক ছিল ব্যাটসম্যানরা। এমন দাবি করে মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘আমার মনে হয় উইকেটের জন্যই। উইকেটটা খুব ভাল নয়। একটু কষ্ট করে ব্যাটিং করতে হচ্ছিল। ওরাও খুব ভাল জায়গায় বোলিং করছিল। আমি আর তামিম যখন ব্যাটিং করছিলাম, তখন আমাদের চিন্তা ছিল বড় একটি জুটি গড়া, জুটিটা যত বড় করা যায়। কাল যখন ওদের ২৪৮ রানে অলআউট করলাম; সেটা আমাদের জন্য ইতিবাচক একটা দিক। কিন্তু আমরা সতর্ক হয়েছি।’ শুরুতে দুই উইকেট হারিয়ে ফেলার পর এ বিষয়ে মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘তামিম-ইমরুল খুব ভাল শুরু করেছিল। ইমরুল-সৌরভ হয় তো আজকে ঠিকমত ক্লিক করতে পারেনি। আমি আর তামিম যখন ব্যাটিং করছিলাম আমাদের পরিকল্পনা ছিল যতক্ষণ সম্ভব ব্যাটিং করার। তাহলে আমাদের সুযোগটা বেশি থাকবে। আমার মনে হয় প্রথম ইনিংসটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হবে। কারণ পিচটাও কিছুটা হলেও রাফ হচ্ছে। এই জিনিসটা হয় তো আমাদের স্পিনারদের জন্য সুবিধার হবে।’

স্বস্তি নিয়ে ফিরলেও এখন পর্যন্ত ৬৯ রানে পিছিয়ে আছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। এ কারণে তৃতীয় দিনেও ব্যাটিং নিয়ে চিন্তা করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। এ বিষয়ে মাহমুদুল্লাহ বলেন, ‘এখনও সাকিব-মুশফিক আছে। আমাদের আরও বড় একটি জুটি প্রয়োজন। কালকের প্রথম সেশনটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম সেশনে আমরা যতকম উইকেট হারিয়ে, আমাদের ব্যাটিং সামর্থ্য অনুযায়ী ব্যাটিং করতে পারি। তাহলে এটা আমাদের জন্যই ভাল। আশা করি বড় সংগ্রহ করতে পারব।’ ইনজুরি কাটিয়ে এক টেস্ট বসে থাকার পর ফিরেই অর্ধশতক হাঁকিয়ে সন্তুষ্ট মাহমুদুল্লাহ। তবে আরেকটু বড় ইনিংস খেলার ইচ্ছা ছিল তার। প্রোটিয়া বোলারদের মোকাবেলার জন্যও আগেভাগে পরিকল্পনা করেছিলেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সিরিজ শুরুর আগে আমরা সবার ভিডিও দেখি। মরকেল, স্টেইন, ফিল্যান্ডার সবাই ছিল। কে কোন জায়গায় ভাল বোলিং করে সেগুলো নিয়ে আমাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। এছাড়া যে স্পিনারটা বোলিং করছে সেও মোটামুটি টার্ন পাচ্ছে। আমার দৃষ্টিতে বর্তমান সময়ের সেরা বোলিং আক্রমণ এটা। কিছুটা হলেও ভাল সময় ক্রিজে থাকতে পেরেছি।’ তবে বৃষ্টির কারণে দ্বিতীয় দিনের ২৫ ওভার নষ্ট হওয়াতে একটা আফসোস থেকে গেছে টাইগার শিবিরে। মাহমুদুল্লাহ মনে করেন দ্বিতীয় দিনেই বাংলাদেশ লিড নিতে পারলে বেশি ভাল হতো। কিন্তু এখনও ম্যাচটার ৬০ ভাগ বাংলাদেশের পক্ষে আছে বলে দাবি তার। তিনি বলেন, ‘এই মুহূর্তে আমরা ভাল অবস্থায় আছি। প্রথম ইনিংসে বড় একটা পুঁজি করতে পারলে ওরাও বেশ চাপে থাকবে। আমার মনে হয় ৬০ ভাগ আমাদের দিকে। ৬৫-৩৫ ভাগও হতে পারে। যেহেতু আমাদের ব্যাটিং অর্ডার এখনও বেশ লম্বা। এই সুযোগটা এই ইনিংসে আমাদের কাজে লাগাতে হবে।’