১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সম্পাদক সমীপে

  • দোহাই আপনাদের

দেশের প্রতি আপনার যদি এতটুকু মায়া থাকে, দেশের মানুষের প্রতি অতটুকু সহানুভূতি থাকে তাহলে অনতিবিলম্বে মানুষ ঠেকানোর আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। দেশের সব মানুষকে বোঝাতে হবে আর একটি নতুন মানুষের জন্মের আগে শতবার ভাবতে হবে শতেরো কোটি জনঅধ্যুষিত আটান্ন হাজার বর্গমাইলের এই ক্ষুদ্র বাংলাদেশে একটি নতুন মুখও অসমীচীন, অন্যায় এবং অপরাধ কিনা!

মন্ত্রী, রাজনৈতিক কর্মী, সামাজিক কর্মী, এনজিও, ছাত্রজনতা, কৃষক-শ্রমিক, আলেমওলামা, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবীÑ সবাইকে তাদের বক্তৃতা বিবৃতিতে এবং লেখায় জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের বিষয়টি অত্যাধিক গুরুত্বসহকারে প্রচার করতে হবে। জলে-স্থলে অন্তরীক্ষে এই বাণী ছড়িয়ে দিতে হবে যে, দুটি নতুন মুখের অধিক নতুন মুখ যিনি পৃথিবীতে টেনে আনবেন তিনি চরমতম ক্ষতি করবেন। দুইয়ের অধিক সন্তান নেয়ার মতো এ অনৈতিক কাজ দেশের জন্য মারাত্মক কুফল বয়ে আনবে।

জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়কে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের প্রতি সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। যারা জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে শৈথিল্য প্রদর্শন করবে তাদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে এবং যারা জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখবে তাদের রাষ্ট্রীয়ভাবে পুরস্কৃত করতে হবে। দুটি সন্তানের অতিরিক্ত চাকরিজীবী পিতা-মাতাদের প্রমোশন স্থগিত করতে হবে।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটকেও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে এগিয়ে আসতে হবে। দেশের অস্তিত্ব এবং সম্ভ্রম রক্ষার্থে তাদের রাজধানীকেন্দ্রিক কার্যক্রমের সঙ্গে গ্রামকেন্দ্রিক কার্যক্রম সম্প্রসারিত করে দেশের এই জ্বলন্ত বিষয়ে ঐতিহাসিক অবদান রাখতে হবে। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের এ নাজুক অবস্থায় যার যতটুকু ক্ষমতা আছে তাই নিয়ে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে আসতে হবে।

অলিউল হক খান

গ্রাম- পশ্চিম গোপীনাথপুর

মুকসুদপুর, গোপালগঞ্জ