১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খান এ সবুর সড়কের নাম পরিবর্তন দাবি

  • খুলনায় মতবিনিময়

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা অফিস ॥ খুলনায় একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেছেন, উচ্চতর আদালতে দায়ের করা মামলায় রায়ে স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, খুলনায় খান এ সবুর সড়কসহ বাংলাদেশের কোন স্থাপনায় স্বাধীনতা বিরোধীদের নাম রাখা যাবে না। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও খুলনা সিটি কর্পোরেশন উচ্চতর আদালতের নির্দেশ গত পাঁচ বছরেও কার্যকর করেনি। খুলনার প্রধান সড়ক থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকি বাহিনীর শীর্ষস্থানীয় দালাল ও যুদ্ধাপরাধী খান এ সবুরের নাম পরিবর্তন করা হয়নি। বক্তারা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, অবিলম্বে যুদ্ধাপরাধী খান এ সবুরের নাম পরিবর্তন করে খুলনার প্রধান সড়কের নাম সাবেক যশোর রোড করা না হলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সর্বস্তরের মানুষ রুখে দাঁড়াবে। এর বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলবে।

বুধবার বিকেলে বিএমএ ভবন মিলনায়তনে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি খুলনার আয়োজনে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মুক্তিযুদ্ধে পাকি বাহিনীর শীর্ষস্থানীয় দালাল ও যুদ্ধাপরাধী খান এ সবুর সড়কের নামকরণ পরিবর্তনের জন্য উচ্চতর আদালতের যে নির্দেশনা রয়েছে তা বাস্তবায়নের লক্ষে করণীয় নির্ধারণের জন্য এই সভা আয়োজন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ডাঃ শেখ বাহারুল আলম। সভা পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মহেন্দ্র নাথ সেন। বক্তব্য রাখেন সিপিবি’র কেন্দ্রীয় নেতা রুহিন হোসেন প্রিন্স, কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা শ্যামল সিংহ রায়, সাংস্কৃতিক কর্মী শাহিন জামাল পণ প্রমুখ।

কুড়িগ্রামে পাওনা টাকা আদায়ে হামলা ॥ নিহত ১, আহত সাত

স্টাফ রিপোর্টার, কুড়িগ্রাম ॥ রাজীবপুরের ব্রহ্মপুত্র চরাঞ্চলে পাওনা টাকা নিয়ে অসহায় দুটি পরিবারের ওপর তা-ব চালিয়েছে একই পরিবারের ১১ ভাই। তারা নিমর্মভাবে কুপিয়ে আবু বক্করকে (৫০) হত্যা করে এবং ৭ জনকে কুপিয়ে গুরুত্বর আহত করেছে। আহতদের রাজীবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দু’জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে উপজেলার বড়বেড় সন্নাসীকান্দি নামক চরাঞ্চলে ওই ঘটনা ঘটেছে। রাজীবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিহত পরিবারের স্বজনরা জানিয়েছেন, একই চরের মৃত জেদ্দার ম-লের বড় ছেলে আব্দুল মান্নানের কাছে মাত্র এক হাজার টাকা পাওনা ছিল নিহত আবু বক্কর। ঈদের আগে ওই এক হাজার টাকার জন্য আবু বক্করের সঙ্গে প্রতিবেশী মান্নানের সঙ্গে ঝগড়া বাঁধে। এর জের ধরে ঘটনার দিন আব্দুল মান্নানের নেতৃত্বে দুলাল মিয়া, বেলাল মিয়া, আলম মিয়াসহ ১১ ভাই একসঙ্গে রামদা, ছুরি, লাঠি নিয়ে প্রথমে আবু বক্করের ওপর হামলা করে।

বঙ্গোপসাগরে ২০ জেলেকে অপহরণ

সংবাদদাতা, হাতিয়া, নোয়াখালী, ২২ জুলাই ॥ বঙ্গোপসাগরের কুতুবদিয়া চ্যানেল থেকে বুধবার সকালে ২০ জেলেসহ জলদস্যুরা এমভি সুমন নামে একটি মাছ ধরা ট্রলার অপহরণ করে নিয়ে যায়। চট্টগ্রামের বাসিন্দা ট্রলারের মালিক অরুন বাবু জানান, ট্রলারটি এক সপ্তাহ আগে মাছ ধরার জন্য গভীর সমুদ্রে যায়। বুধবার সকালে ট্রলারটি বঙ্গোপসাগরের কুতুবদিয়া চ্যানেলের সন্নিকটে জলদস্যুরা আটক করে।