১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বর্ণবাদী আচরণের শিকার রাবাদা!

স্পোর্টস রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে ॥ দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্ট দলে থাকলেও একাদশে ঠাঁই করে নিতে পারেননি দক্ষিণ আফ্রিকার তরুণ উদীয়মান পেসার কাগিসো রাবাদা। ওয়ানডে অভিষেকেই হ্যাটট্রিকসহ এবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ৬ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছিলেন তিনি। খেলছেন না চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে চলমান প্রথম টেস্টে। তবে দলের সঙ্গেই আছেন তিনি। বুধবার মধ্যাহ্ন বিরতিতে সাগরিকা ভেন্যুর প্র্যাকটিস উইকেটে অনুশীলনকালে বর্ণবাদী মন্তব্য শুনতে হয়েছে তাকে। কৃষ্ণাঙ্গ এই পেসারকে উদ্দেশ করে বর্ণবিদ্বেষমূলক বাক্যবাণ ছুড়েছেন উপস্থিত কিছু দর্শক। যার কারণে মধ্যাহ্ন বিরতির পর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম কর্তৃপক্ষ কয়েকবার আইসিসির বর্ণবিদ্বেষমূলক সেই নীতিসমূহ ঘোষণা দেয়। পরে তদন্ত সাপেক্ষে বর্ণবাদী মন্তব্য ছোড়ার জন্য দুই কিশোরকে আটক করে ম্যাচ রেফারি ক্রিস ব্রডের সামনে হাজির করলে তাদের আচরণবিধি শুনিয়ে ছেড়ে দেন তিনি।

গ্যালারিতে থাকা দর্শকদের জন্য আইসিসির নির্ধারিত কিছু নিয়মকানুনের ঘোষণা সব সময়ই স্টেডিয়ামে দিয়ে থাকে যথাযথ কর্তৃপক্ষ। যেখানে দর্শককে নানাবিধ অপ্রীতিকর ঘটনা থেকে দূরে থাকার অনুরোধ করা হয়ে থাকে। তবে বুধবার সেটা অনেকবারই শোনা গেল। রাবাদা ওয়ার্মআপ করার সময় তাকে ‘ব্ল্যাক, ব্ল্যাক মাঙ্কি’ বলে গালি ছোড়েন কিছু দর্শক। পরে তিনি ম্যাচ রেফারি ব্রডকে বিষয়টি অবহিত করলে তিনি বিসিবিকে এই ঘটনা বন্ধ না হলে ম্যাচ বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেন। এর আগে স্টেডিয়ামের জায়ান্ট স্ক্রিনে বর্ণবাদ বিরোধী ঘোষণা দেখানো হচ্ছিল বার বার। বিসিবির নিরাপত্তা কমিটির এক কর্মকর্তা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ম্যাচের একাদশে ছিলেন না ডানহাতি পেসার রাবাদা। ওয়ার্মআপের সময় তাকে উদ্দেশ করে বর্ণবাদী মন্তব্য করেছেন দর্শকরা। রাবাদা তৎক্ষণাৎ ম্যাচ রেফারি ক্রিস ব্রডের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন। ম্যাচ রেফারি তখনই কর্তৃপক্ষকে বলেছেন ওই দর্শকদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে। বিসিবির নিরাপত্তা উপদেষ্টা হোসাইন ইমাম ঘটনা স্বীকার করে বলেন, আমরা বিষয়টা গুরুত্বের সঙ্গে দেখেছি; যখন তারা আমাদের জানিয়েছে। ওই দর্শকদের পুলিশের কাছে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। বিসিবি সূত্র জানিয়েছে, চিহ্নিত হওয়া দুই দর্শককে পুলিশ রাখেনি। কারণ, তারা দুজনই এখনও কিশোর। বিসিবি তাদের ম্যাচ রেফারির কাছে নিয়ে গিয়েছিল। পরে ক্রিস ব্রডের সিদ্ধান্তেই তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।