১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঝলক

মল-মূত্রে ভবিষ্যত!

শিশুর মল-মূত্র দেখে অনেকেই নাক সিটকায়। তবে চিকিৎসকদের জন্য শিশুদের মল-মূত্র এখন গবেষণার বিষয়। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, শিশু জন্মের পর সে প্রথম যে মল ত্যাগ করে তা বিশ্লেষণ করে তার ভবিষ্যত বুদ্ধিমত্তা কেমন হবে, তা আঁচ করা সম্ভব। এ সংক্রান্ত একটি গবেষণা প্রতিবেদনও সম্প্রতি ছাপা হয়েছে জার্নাল অব পেডিয়াট্রিক্সে (শিশুরোগ)। ওই গবেষণায় দেখা গেছে, কোন মা গর্ভকালীন সময়ে মদ্যপান করলে জন্মের পর তা শিশু প্রথম কালো রঙের মল ত্যাগ করে। এই মলে এফএইই নামে এক ধরনের ফ্যাটি এ্যাসিড থাকে। আর এই এ্যাসিড শিশুর মানসিক বিকাশে অত্যন্ত ক্ষতিকর।

যুক্তরাষ্ট্রের কেস ওয়েস্টার্ন রিজার্ভ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং এই গবেষণা কাজের অন্যতম সদস্য মিইয়ং মিন বলেন, ‘আমরা আসলে দেখতে চাই একটি শিশুর শৈশব ও কৈশোরে এফএইই নামে ওই অতিরিক্ত ফ্যাটি এ্যাসিড কেমন প্রভাব ফেলে। আর এই এফএইই এ্যাসিডের মাত্রা নির্ধারণের মাধ্যমেই বোঝা যাবে, ভবিষ্যতে সদ্যজাত শিশুটির ওপর এর প্রভাব পড়বে কতটুকু।

মুরগিবোমা!

সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাতে এক নতুন কৌশল রপ্ত করেছে ভয়ঙ্কর জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)। মানববোমার পরিবর্তে এবার মুরগির পিঠে বোমা বেঁধে তা বিস্ফোরণ ঘটানোর পরিকল্পনা করেছে তারা। সম্প্রতি পোষা মুরগির পিঠে বোমা বেঁধে তার ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ছড়িয়ে দিয়েছে জঙ্গীরা। ছবিতে দেখা যায়, পিঠে বোমা বাঁধা মুরগিটিকে জঙ্গীরা তাদের শত্রু ঘাঁটিতে পৌঁছে দেয়ার জন্য তৈরি করেছে। জানা গেছে, সিরিয়া ও ইরাকের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার ফলে আপাতত জঙ্গীরা নিজেরাই বোমা তৈরি করছে। এই কাজে তারা মর্টার শেল, গ্যাসের ক্যানেস্তারা ও সার ব্যবহার করছে। মুরগিবোমা তারই এক কৌশল। শত্রু ঘাঁটিতে এই মুরগিবোমা ঢুকিয়ে দিয়ে দূর নিয়ন্ত্রিত ডিটোনেটরের সাহায্যে তীব্র বিস্ফোরণ ঘটানো হচ্ছে বলে জানা গেছে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, ছবি দেখে বোঝা যাচ্ছে, এ সবই জঙ্গীদের অস্ত্র ভাণ্ডারে টান পড়ার লক্ষণ।

১৪ হাজার ডলারে বিমানবন্দর!

বিমানবন্দরটি তৈরি করতে খরচ হয়েছে প্রায় বিলিয়ন ডলার। অথচ সেই বিমানবন্দরটি বিক্রি হতে যাচ্ছে মাত্র ১৪ হাজার ডলারে! এটি গুজব কিংবা কল্প-কাহিনী নয়। স্পেনের চলমান অর্থনৈতিক মন্দার কারণে এ বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিয়েছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে।

প্রথম দিকে বিমানবন্দরটি ৮০ মিলিয়ন ইউরোতে বিক্রির জন্য দাম নির্ধারণ করা হয়। তবে ১০ জুলাই পর্যন্ত এই দামে কেউ এটি কিনতে রাজি হয়নি। শেষ পর্যন্ত নিলাম আয়োজন করা হয়। ব্রিটিশ ও এশিয়ার কয়েকজন বিনিয়োগকারী যৌথভাবে বিমানবন্দরটি ১৪ হাজার ডলারে কিনতে রাজি হয়। নিলামে আর কেউ অংশগ্রহণ না করায় এক রকম পানির দামেই বিক্রি হয় বিমানবন্দরটি। যদিও দেশটির একটি বাণিজ্যিক আদালত নিলামটি আটকে রেখেছে। তাদের আশা, হয়ত কেউ বিমানবন্দরটি আরও বেশি দামে কিনবে। এই নিলামের আওতায় ক্রেতারা রানওয়ে, হ্যাঙ্গার, এটিসি ও অন্যান্য বিল্ডিংগুলোর মালিকানা পাবে। তবে তারা টার্মিনাল ও পার্কিং ফ্যাসিলিটি পাবে না। রাজধানী মাদ্রিদ থেকে ২৩০ কিলোমিটার দক্ষিণে ২০০৮ সালে এই বিমানবন্দরটি নির্মাণ করা হয়। পরে নানা কারণে ২০১১ সালে তা বন্ধ হয়ে যায়।

এবার চলন্ত গাড়ি হ্যাক!

এবার চলন্ত গাড়ির ইঞ্জিন নিয়ন্ত্রণ বা বন্ধ করার দাবি করছে হ্যাকাররা। আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তা দফতরের প্রাক্তন কর্মী চার্লি মিলার এবং আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সংস্থার গবেষক ক্রিস ভেলাসেক ফিয়াট-ক্রাইসলার টেলিম্যাটিকস সিস্টেম ‘ইউকানেক্ট’-এর একটি বিশেষ ফিচার ব্যবহার করে হাইওয়েতে চলন্ত একটি গাড়িকে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হন। আর এ ঘটনার মধ্য দিয়ে তারা দাবি করছেন, ভবিষ্যতে চলন্ত গাড়ি নিয়ন্ত্রণ করার কার্যকরী উপায় বের করা আরও সহজ হবে। তবে গাড়ি নির্মাতা সংস্থা ফিয়াট-ক্রাইসলার জানিয়েছে, ভবিষ্যতে গাড়ির নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও উন্নত করা হবে।