১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ছাত্রলীগের কাউন্সিল আজ সভাপতি প্রার্থী ৬৩ সাঃ সম্পাদক ১৪৯

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ দেশের বৃহৎ ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৮তম জাতীয় কাউন্সিল আজ। ঐতিহাসিক সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিতব্য দুই দিনব্যাপী এ কাউন্সিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এদিন বেলা ১১টায় জাতীয় সঙ্গীত ও জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে মূল অনুষ্ঠান শুরু হবে। এরপরের আয়োজনে থাকবে সম্মিলিত দলীয় সঙ্গীত।

সম্মেলনস্থলে মঞ্চ নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। এবারে ৪৮ ফুট বাই ১২ ফুট দৈর্ঘ্যরে মূল মঞ্চের সামনে প্রায় একই আয়তনের আরও একটি ‘পারফর্ম স্টেজ’ তৈরি করা হয়েছে। এখান থেকে সব ধরনের দলীয় পরিবেশনা উপস্থাপিত হবে। কেন্দ্রীয় দফতর সম্পাদকের শোক প্রস্তাবের পর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সংগঠনের বার্ষিক প্রতিবেদন উপস্থাপন করবেন। এবারের সম্মেলনে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশেষ সম্মাননা ক্রেস্ট উপহার দেয়া হবে। সরকারের বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নমূলক কর্মকা- এবং সাফল্যের প্রতিফলন ঘটিয়ে ‘ত্রিমাত্রিক’ এই বিশেষ ক্রেস্টটি তৈরি করা হয়েছে। সম্মেলনকে ঘিরে উৎসাহ উদ্দীপনার পাশাপাশি নেতাকর্মীদের মধ্য বিরাজ করছে উৎকণ্ঠাও। সবার দৃষ্টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকে। আগামীর নেতৃত্ব ভোটের মাধ্যমে না সমঝোতার মাধ্যমে নির্ধারিত হবে সেই নির্দেশনার অপেক্ষায় নেতাকর্মীসহ পদপ্রত্যাশীরা। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহকারীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন অনেকেই। এদের মধ্যে রয়েছেনÑ মুহাম্মদ আরেফিন সিদ্দিক সুজন, সাইফুর রহমান সোহাগ, এইচএম আল-আমীন, এনামুল হক প্রিন্স, আসাদুজ্জামান নাদিম, আনোয়ার হোসেন আনু, কাজী এনায়েত, এরশাদুর রহমান চৌধুরী, শেখ আসমান, ইমতিয়াজ বুলবুল বাপ্পী, কামাল মোহাম্মাদ নাসের (রুবেল), আদিত্য নন্দী, জাকির হোসেন, রিফাত জামান, মেহেদি হাসান রনি, খায়ের উদ্দীন চৌধুরী, সৈয়দ সাকিবুল আহসান সম্রাট, মোঃ ফয়সল ইবনে আব্বাস, মোবারক হোসেন প্রমুখ।

সংগঠনের নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, বয়স ও অন্য প্রয়োজনীয় যোগ্যতার ভিত্তিতে যাচাই-বাছাই শেষে সভাপতি পদে ৬৩ জন পদ প্রত্যাশীর মনোনয়নপত্র বহাল রাখা হয়েছে। অপরদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে বহাল রয়েছে ১৪৯ জনের মনোনয়নপত্র। আর প্রয়োজনীয় যোগ্যতার অভাবে বাতিল করা হয়েছে সভাপতি পদের ১৭ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র ও সাধারণ সম্পাদক পদে ১৩ জনের মনোনয়নপত্র। বাতিল প্রার্থীদের মধ্য অনেক হেভিওয়েট প্রার্থীও রয়েছেন। এর মধ্য ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান রুবেল, যুগ্ম সম্পাদক শামসুল কবির রাহাত, ঢাবি ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ওমর শরীফ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শেখ আনিসউজ্জামান রানাও রয়েছেন। গঠনতন্ত্র অনুযায়ীÑ ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদের প্রার্থীদের সর্বোচ্চ বয়সসীমা ২৯, অবিবাহিত ও নিয়মিত ছাত্র হতে হবে। এ তিনটি বিষয় সামনে রেখেই প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাছাই করা হয়। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক সাংবাদিকদের বলেন, গণতন্ত্র মেনে প্রার্থীতা চূড়ান্ত করা হয়েছে। যাদের বয়স-ছাত্রত্ব নেই তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

বয়স চুরির অভিযোগ তিন জনের বিরুদ্ধে ॥ বয়স চুরির অভিযোগে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে নির্বাচন কমিশন। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বলেন, মনোনয়নপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত জন্ম তারিখের সঙ্গে শিক্ষা বোর্ডের সনদের কোন মিল না থাকায় প্রার্থিতা বাতিল করা হয়। ওই প্রার্থীরা হলেনÑ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কৃষি সম্পাদক রাইসুল ইসলাম জুয়েল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহ-সভাপতি এনায়েত হোসেন রেজা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম। জানা গেছে, রাইসুল ইসলাম জুয়েল শিক্ষা বোর্ডের সনদে জন্ম তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ১৯৮৫। তিনি বয়স এক বছর কমিয়ে মনোন্নয়নপত্রে ৩১ ডিসেম্বর ১৯৮৬ সাল উল্লেখ করেন। এনায়েত হোসেন রেজার শিক্ষা বোর্ডের সনদে জন্ম তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ১৯৮৫। কিন্তু তিনি বয়স কমিয়ে মনোনয়নপত্রে ২৫ নবেম্বর ১৯৮৬ উল্লেখ করেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলামের শিক্ষা বোর্ডের সনদে জন্ম তারিখ ১০ জুন ১৯৮৬। কিন্তু বয়স এক বছর কমিয়ে মনোনয়নপত্রে ১০ জুন ১৯৮৭ উল্লেখ করেন তিনি।

ভিন্ন সংগঠনের নেতারাও ছাত্রলীগের প্রার্থী ॥ সম্মেলন ছাত্রলীগের। তাই এতে ছাত্রলীগের পদধারি নেতারা প্রার্থী হবেন এটাই স্বাভাবিক। তবে এবার ব্যতিক্রমী ঘটনাও ঘটেছে। এবারের সম্মেলনে প্রার্থী হয়েছেন ইসলামী ছাত্রজোট ও ইসলামী ছাত্র ফ্রন্ট নামের দুটি মৌলবাদী ছাত্রসংগঠনের নেতারাও। তবে তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এসব প্রার্থী হলেনÑ মোঃ হিরন আহমেদ ও মাসুদ রানা। অপরদিকে অতীতে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত না থেকেও ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতার জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন মোঃ নাহিদ মিয়া নামের একজন। তবে তার মনোনয়নপত্রও বাতিল করা হয়েছে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রলীগের সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ বলেন, ছাত্রলীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সংগঠন। এটা কোন সিন্ডিকেটের নিয়ন্ত্রণাধীন নয়। দেশরতœ শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত।