১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভোটার তালিকার হালনাগাদ কাজ আজ শুরু

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজ থেকে শুরু হচ্ছে ভোটার তালিকার হালনাগাদ কার্যক্রম। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, হালনাগাদে বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ ও নিবন্ধন কর্মসুচী চলবে আগামী বছরের ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। তিন পর্বে হালনাগাদের তথ্য সংগ্রহ ও দুই পর্বে নিবন্ধন কর্মসূচীর উদ্বোধন করবেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ। সকাল ১১টায় নরসিংদীর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে হালনাগাদ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, চার নির্বাচন কমিশনার, ইসি সচিব ও জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক এতে উপস্থিত থাকবেন।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, ৭২ লাখ নতুন ভোটার সংগ্রহের লক্ষ্যে শুরু হচ্ছে এবারের ভোটার তালিকার হালনাগাদ কার্যক্রম। প্রথম পর্যায়ে আজ থেকে প্রায় দু’শ’ উপজেলায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। প্রথম পর্যায়ের এ তথ্য সংগ্রহের কাজ চলবে ৯ আগস্ট পর্যন্ত। প্রথম পর্যায়ে ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি বা তার পূর্বে জন্মগ্রহণকারীদের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু হবে ১৬ আগস্ট থেকে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত। এবং তৃতীয় পর্যায়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে ৭ সেপ্টেম্বর থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। তিনটি ধাপে দেশের ৫১৪ উপজেলা/থানায় তথ্য সংগ্রহ চলবে। প্রথম ধাপে ১৮৯ উপজেলায় তথ্য সংগ্রহ করা হবে। দ্বিতীয় ধাপে ১৮৪ উপজেলায় এবং তৃতীয় ধাপে ১৪১ উপজেলায় তথ্য সংগ্রহ করা হবে।

এছাড়া ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রমও হবে দুই স্তরের। প্রথম স্তরে ১৯৯৮ সালের ১ জানুয়ারি বা তার পূর্বে জন্মগ্রহণকারী নাগরিকের নিবন্ধন হবে তিন পর্যায়ে। প্রথম পর্যায়ে ১১ আগস্ট থেকে ১ সেপ্টেম্বর, দ্বিতীয় পর্যায়ে ৩ সেপ্টেম্বর থেকে ২২ সেপ্টেম্বর এবং তৃতীয় পর্যায়ে ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত।

নিবন্ধনের দ্বিতীয় স্তরে ১৯৯৮ সালের ২ জানুয়ারি থেকে ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি পর্যন্ত জন্মগ্রহণকারী নাগরিকের নিবন্ধনও হবে তিন পর্যায়ে। প্রথম পর্যায় ২২ অক্টোবর থেকে ২ ডিসেম্বর, দ্বিতীয় পর্যায় ৪ ডিসেম্বর ২০১৫ থেকে ১৩ জানুয়ারি ২০১৬ এবং ১৫ জানুয়ারি থেকে ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ পর্যন্ত তৃতীয় পর্যায়।

কমিশন জানিয়েছে, ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম সম্পন্ন করতে ৫ হাজার ৪০০ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। ৬১ হাজার ৮০০ জনবল এ কাজে নিযুক্ত থাকবে। ২০০ টিমের মাধ্যমে হালনাগাদ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। ৫০ হাজার তথ্য সংগ্রহকারী হিসেবে কাজ করবে। হালনাগাদ কার্যক্রম দেখাশোনা করবে ১০ হাজার সুপারভাইজার। এ হালনাগাদ কার্যক্রমে ২ দশমিক ৫ শতাংশ হারে ৭২ লাখ নাগরিক ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবে।