১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খেলা না হওয়াতে হতাশ ক্রিকেটাররা ॥ সুজন

স্পোর্টস রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে ॥ চট্টগ্রাম টেস্টে চতুর্থ দিন বৃষ্টির উপদ্রবে কোন বলই মাঠে গড়ায়নি। অথচ চতুর্থ দিনে খেলা হলে বাংলাদেশের দারুণ কিছু করার সম্ভাবনা ছিল উজ্জ্বল। এমনটাই মনে করেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন। আজ শেষদিনের খেলা। উভয় দলের একটা করে ইনিংস শেষ হয়েছে এবং দ্বিতীয় ইনিংসে এখনও দু’দলের ২০ উইকেট বাকি। সে কারণে ফলাফল বেরিয়ে আসার সম্ভাবনা দেখছেন না সুজন। বৃষ্টির কারণে গত মাসে ফতুল্লায়ও ভারতের বিপক্ষে ড্র হয়েছিল একমাত্র টেস্ট। এবার ১৭ রানে এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু বৃষ্টির উপদ্রবে ভাল কিছুর সম্ভাবনা শেষ হয়ে গেছে। তাই বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা ছিলেন হতাশ। শুক্রবার টিম হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ম্যানেজার।

পুরো একটা দিন খেলা হয়নি। বাংলাদেশী ক্রিকেটাররা মাঠে এসে ইনডোরে অনুশীলন করলেও কেউ তেমন শান্তি পাননি। এ বিষয়ে খালেদ মাহমুদ বলেন, ‘খেলতে না পারলে তো খারাপ লাগারই কথা। এই টেস্টটায় দুই দলের জন্যই সমান সুযোগ ছিল। আর আমরা একটু হলেও এগিয়ে ছিলাম। তৃতীয় দিন শেষে আমরা ১৭ রানে এগিয়ে ছিলাম। যে কোন কিছুই আসলে হতে পারত। চতুর্থ কিংবা পঞ্চম দিনে উইকেটের আচরণ পরিবর্তন হয়। বৃষ্টির উপরে তো কারও হাত নেই।’ আজ পঞ্চম দিনে কোন ফলাফলের আশা দেখছেন না খালেদ মাহমুদ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কালকে (আজ) খেলা হলে ফলাফল আসার সম্ভাবনা কম। কেননা দুই দলের এখনও ২০ উইকেট রয়েছে। তারপরও ক্রিকেট অনিশ্চিয়তার খেলা।’ জুন-জুলাই মাসে বাংলাদেশে পুরো ভরা বর্ষা মৌসুম। এবার টানা দুই সিরিজেই (ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা) বৃষ্টির দাপট ছিল। এ বিষয়ে খালেদ মাহমুদ বলেন, ‘আমরা যাদের সঙ্গে খেলছি তাদের সময়সূচীটা গুরুত্বপূর্ণ। সবার সিডিউল মিলবে এমনটা না। সব বড় দলগুলো কিন্তু আমাদের সঙ্গে খেলতে চায় না। এই সময় দক্ষিণ আফ্রিকা খেলতে চেয়েছে বলে আমাদের এখন খেলার আয়োজন করতে হয়েছে। আশা করছি পরবর্তী সময়ে থেকে বৃষ্টির উপদ্রব না হয় এমন সময় খেলার আয়োজন করবে বিসিবি।’

এখন পর্যন্ত সফরকারীদের বিপক্ষে পুরো সিরিজে বাংলাদেশের নৈপুণ্যে সন্তুষ্ট জাতীয় দলের ম্যানেজার। ইতোমধ্যেই চলতি টেস্টে নিজেদের উন্নতির গ্রীন সিগন্যাল দিয়ে ফেলেছে টাইগাররা। এমন দাবি করে খালেদ মাহমুদ বলেন, ‘টি২০ ও ওয়ানডে সিরিজ যে শেষ হয়েছে তা অনেক ভাল। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশ ভাল করছে। টি২০-তে দুই হারের পর প্রথম ওয়ানডে আমরা হেরে যাই। এরপর যেভাবে আমরা ঘুরে দাঁড়িয়ে সিরিজ জিতেছি তা অসাধারণ। টেস্ট ম্যাচেও আমরা লিড নিয়েছি। এটা আমাদের জন্য একটা উন্নতির গ্রীন সিগন্যাল। কারণ ওয়ানডেতে যেভাবে খেলেছি সেই ধারাবাহিকতা টেস্টে ধরে রাখার প্রয়োজন ছিল। এবার সেটা হচ্ছে। এখন আমরা যেভাবে খেলছি সেভাবে যদি সামনে দিকে খেলে যেতে পারি, তাহলে এখন যারা খেলতে অপারগতা জানাচ্ছে তখন তারাও আমাদের বিপক্ষে খেলতে আগ্রহ প্রকাশ করবে।’ দল ঢাকায় আত্মবিশ্বাস নিয়েই ফিরবে। খালেদ মাহমুদের প্রত্যাশা ঢাকা টেস্টে বৃষ্টির দাপট থাকবে না। তিনি বলেন, ‘আশা করছি ঢাকায় বৃষ্টি হবে না। পুরো টেস্ট ম্যাচই হবে। জয়-পরাজয় পরের বিষয়।