১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জাতীয় শোক দিবস আওয়ামী লীগের ৪০ দিনের কর্মসূচী ঘোষণা

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ৪০ দিনব্যাপী কর্মসূচী ঘোষণা করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আগামী ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের লক্ষে এবারই প্রথম এমন দীর্ঘতম কর্মসূচী পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে শুক্রবার রাতে দীর্ঘ বৈঠক করে এসব কর্মসূচী চূড়ান্ত করা হয় বলে জানা গেছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম শুক্রবার রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কর্মসূচী চূড়ান্ত করার বৈঠক করেন। বৈঠকে আশরাফ জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচীর খসড়া উপস্থাপন করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তা অনুমোদন দেন। বৈঠকে অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ উপস্থিত ছিলেন।

কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছেÑ আগামী ১ আগস্ট শনিবার শোকের মাসের প্রথম প্রহর রাত ১২টা ১ মিনিটে ধানম-ি ৩২ নম্বর সড়ক ধরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর অভিমুখে আলোর মিছিলের মাধ্যমে শোকের মাসের কর্মসূচী সূচিত হবে। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহ এ কর্মসূচীতে অংশ নেবেন। দুপুর ১২টায় টুঙ্গিপাড়াস্থ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ, দোয়া ও মোনাজাতে অংশ নেবেন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ, উপদেষ্টা পরিষদ, বিভিন্ন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। বিকেল সাড়ে ৪টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে রক্তদান কর্মসূচী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। কৃষক লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এ কর্মসূচীতে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার রাতে আওয়ামী লীগের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গৃহীত কর্মসূচী জানানো হয়।

দীর্ঘ ৪০ দিনব্যাপী কর্মসূচীর মধ্যে আরও রয়েছেÑ ৩ আগস্ট সোমবার বিকেল ৩টা তাঁতি লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা। পরদিন ৪ আগস্ট বিকেল ৩টা নগর ভবনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে শোক দিবসের আলোচনা সভা। ৫ আগস্ট শহীদ শেখ কামালের জম্মদিন। ওইদিন সকাল ৮টায় ধানম-ি আবহানী কাব প্রাঙ্গণ এবং সকাল ৯টায় বনানী কবরস্থানে শ্রদ্ধার্ঘ অপর্ণ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগ, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহ এ কর্মসূচীর আয়োজন করেছে। এছাড়া স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। ৮ আগস্ট বঙ্গমাতা শহীদ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জম্মদিন। ওইদিন সকাল সাড়ে ৮টায় বনানী কবরস্থানে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ, কোরানখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল। আওয়ামী লীগ, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহ এ কর্মসূচীতে অংশ নেবেন।

আগামী ৮ আগস্ট বাদ জোহর বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। বাদ আছর বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহের উদ্যোগে মিলাদ, দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। ৯ আগস্ট বিকেল ৪টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বঙ্গমাতা শহীদ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ও শহীদ শেখ কামালের জম্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। ছাত্রলীগ এ আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। ১১ আগস্ট মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটশন মিলতনায়তন (খামারবাড়ি) আলোচনা সভা। ১২ আগস্ট সকাল ১০ থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে রংতুলিতে শোক গাথা। আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে দেশের বরেণ্য চিত্র শিল্পীরা অংশগ্রহণ করবেন।

১৩ আগস্ট বিকেল ৩টায় যুব মহিলা লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। ১৫ আগস্ট শনিবার বাদ আছর বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া ১৫ আগস্ট শোক দিবসের দিনের কর্মসূচীর মধ্যে সূর্য উদয় ক্ষণে বঙ্গবন্ধু ভবন এবং কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সংগঠনের সব স্তরের কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলন, সকাল পৌনে ৭টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্মৃতি বিজড়িত ধানম-ির বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে রতি বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা অর্পণ। রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধনামন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কর্মসূচীতে যোগ দেবেন।

এছাড়াও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন এবং নগরীর প্রতি শাখা থেকে শোক মিছিলসহ বঙ্গবন্ধু ভবনের সম্মুখে আগমন এবং শ্রদ্ধা নিবেদন। সকাল সাড়ে ৭টায় বনানী কবরস্থানে ১৫ আগস্টের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদন, মাজার জিয়ারত, ফাতেহা পাঠ, মোনাজাত ও মিলাদ মাহফিল। সকাল ১০টায় টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ নিবেদন, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল। টুঙ্গিপাড়ার কর্মসূচীতে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন। বাদ জোহর দেশের সব মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল। সুবিধা মতো সময়ে মন্দির, প্যাগোডা, গির্জা, উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা। দুপুরে অসচ্ছল দুস্থ মানুষদের মাঝে খাদ্য বিতরণ। বাদ আছর মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল।

পরদিন ১৬ আগস্ট বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভা। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। ১৭ আগস্ট বিকেল ৪টায় ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা। ১৮ আগস্ট বিকেল ৪টা শ্রমিক লীগের উদ্যোগে, বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউয়ে আলোচনা সভা। ২০ আগস্ট বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদের উদ্যোগে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তন (খামার বাড়ি) আলোচনা সভা। ২১ আগস্ট বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ বেদিতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল এবং আলোচনা সভা। ২৩ আগস্ট বিকেল ৪টায় যুব মহিলা লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা। ২৪ আগস্ট বিকেল ৪টা সুপ্রীমকোর্ট বার এ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের উদ্যোগে আলোচনা সভা। ২৫ আগস্ট বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মহিলা শ্রমিক লীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা। ২৬ আগস্ট বিকেল ৪টা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ক্যাম্পাসে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের উদ্যোগে আলোচনা সভা। ৩ সেপ্টেম্বর ঢাকা আইনজীবী পরিষদ অডিটরিয়াম আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের উদ্যোগে আলোচনা সভা। এছাড়া পহেলা আগস্ট থেকে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাকি দিনগুলোর কর্মসূচী শীঘ্রই জানানো হবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে দেশবাসীকে সঙ্গে নিয়ে পালন করার জন্য আওয়ামী লীগ, সহযোগী, ভ্রাতৃপ্রতিম, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং সংস্থাসমূহের সব স্তরের নেতাকর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন। একই সঙ্গে আওয়ামী লীগের সব জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন, ওয়ার্ডসহ সব শাখার নেতৃবৃন্দকে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কর্মসূচী গ্রহণ করে দিবসটি স্মরণ ও পালন করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।