১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ছাত্রলীগ নেতাদের বয়স হতে হবে ২৯ বছর বয়সের মধ্যেই

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভোটের মাধ্যমে ছাত্রলীগের আগামী নেতৃত্ব নির্বাচনের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রার্থীদের বয়সসীমা ২৭ বছর থেকে বাড়িয়ে ২৯ বছর রাখার কথা বলেছেন তিনি। তিনি বলে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স প্রথম ব্যবহার হয়েছিল ছাত্রলীগের সম্মেলনেই। এখন জাতীয় নির্বাচনেই এই বাক্স ব্যবহার হচ্ছে। তাই এই গনতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।

শনিবার বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনের উদ্বোধন হয়েছে। ২৮তম এই সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তিনি।

সম্মেলনে শোকপ্রস্তাব ও সাংগঠনিক প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে। কাউন্সিল অধিবেশন হবে কাল রোববার। সেখানেই শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুযায়ী কাউন্সিলরদের সরাসরি ভোটে নতুন কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হবেন।

শেখ হাসিনা তাঁর বক্তৃতায় বলেন, ছাত্রলীগের নেতৃত্ব নির্বাচিত হবে ভোটের মাধ্যমে। কাউন্সিলরেরা সরাসরি ভোট দিয়ে তাঁদের নেতা নির্বাচন করবেন। গণতান্ত্রিক ধারা ছাত্রলীগে অব্যাহত থাকবে। ছাত্রলীগের মূলমন্ত্র—শিক্ষা, শান্তি ও প্রগতির আদর্শ নিয়ে সংগঠনের প্রত্যেক নেতা-কর্মীকে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে ছাত্রলীগের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস স্মরণ করেন। তিনি বলেন, জন্মলগ্ন থেকে ছাত্রলীগ বাঙালির আন্দোলন-সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। রক্ত দিয়েছে। ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের পড়ালেখায় মনোযোগী হতে উপদেশ দেন শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে ছাত্রলীগের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।