১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জয় কেড়ে নিল বৃষ্টি ॥ হাশিম আমলা

স্পোর্টস রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে ॥ পুরোপুরি খেলা হলে বাংলাদেশ দলই চাপে পড়ত। কারণ শেষদিনে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের কন্ডিশনে ব্যাট করাটা বেশ কঠিন ছিল। আর ম্যাচের অবস্থাভেদে পঞ্চম দিনে ব্যাটিংয়ে নামতে হতো বাংলাদেশকেই। এজন্য স্বাগতিকরা কঠিন চ্যালেঞ্জে পড়ত বলে মনে করেন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক হাশিম আমলা। এ কারণে নিজ দলের জয়ের সম্ভাবনাটাই বেশি দেখেছেন তিনি। তাই আমলার দাবি এগিয়ে ছিল প্রোটিয়ারাই। শনিবার জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট শেষ হওয়ার পর সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

তৃতীয় দিন শেষে বাংলাদেশ ১৭ রানে এগিয়ে ছিল। কিন্তু বিনা উইকেটে ৬১ রান নিয়ে বেশ ভালভাবেই দ্বিতীয় ইনিংসে এগিয়ে যাচ্ছিল প্রোটিয়ারা। এ বিষয়ে আমলা বলেন, ‘বাংলাদেশ যেহেতু শেষদিনে ব্যাট করবে সেদিক থেকে চিন্তা করে আমি মনে করি আমাদের কিছুটা বাড়তি সুবিধা ছিল চতুর্থ দিনে নামার সময়। এটা সত্যি খুব ভাল একটা টেস্ট ম্যাচ হতো। আমরা যদি ২৫০ বা এর কাছাকাছি কোন রান করতে পারতাম বাংলাদেশের জন্য সেটার পেছনে তাড়া করার ক্ষেত্রে শেষদিনে একটা চ্যালেঞ্জ হতো।’ তিনি মনে করেন, তার দলের বোলাররা দারুণ বোলিং করেছেন; কিন্তু ব্যাট করার সবচেয়ে ভাল সময়টাতেই বাংলাদেশ ব্যাটিং করেছে। আর সেজন্য উইকেট আসেনি। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বোলিংয়ে আমি মনে করি সিমাররা অনেক ভাল করেছেন। আমার মনে হয় ব্যাটিংয়ের সেরা সময়টাই ছিল যখন বাংলাদেশ ব্যাট করছিল এবং এটা তাদের কৃতিত্ব যে তারা অনেক ভাল ব্যাটিং করছিল।’ দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম ইনিংসে ভাল করতে না পারলেও দ্বিতীয় ইনিংসে দারুণ কিছু করার ইঙ্গিত দিচ্ছিল। আর সে কারণেই নিজ দলকে এগিয়ে রাখছেন আমলা। তিনি বলেন, ‘খেলার প্রথম দুই সেশনের ভাল দিকটা আমরা নিতে পারি, যখন ভাল ব্যাট করেছিলাম। এরপর আমরা শেষ সেশনে খুব বাজে খেলে পিছু হটেছি, যেটা টেস্ট ক্রিকেটে ঘটেই থাকে। বাংলাদেশ প্রথম দুই সেশনে চমৎকার ব্যাটিং করেছে সেই কৃতিত্ব দিতেই হবে। কিন্তু আমরা তাদের আটকে দিয়েছি এবং বিনা উইকেটে ৬০ রান তোলাটা ম্যাচ জয়ের জন্য বেশ ভালভাবেই এগিয়ে যাওয়ার পথে রেখেছিল আমাদের। আমি মনে করি বেশি সুবিধাটা আমাদের সঙ্গেই ছিল।’

ওয়ানডে থেকে একেবারেই ভিন্ন দল দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু জুনিয়র অনেক ক্রিকেটারই দারুণ নৈপুণ্য দেখিয়েছেন। এ বিষয়ে আমলা বলেন, ‘আমি মনে করি ওপেনাররা সত্যিই খুব ভাল ব্যাটিং করেছিলেন। নিজেদের আত্মবিশ্বাস অর্জনের জন্য এবং দলের জন্য তারা বেশ সন্তোষজনক নৈপুণ্য প্রদর্শন করেছেন। যদিও সবারই খুব কম অবদান ছিল এবং কেউ খুব বড় স্কোর গড়তে পারেনি। কিন্তু এরপরও ছেলেরা এই আত্মবিশ্বাসটা পরবর্তী টেস্টে কাজে লাগাতে পারে। আসলে আমাদের ব্যাটিং অর্ডার ওয়ানডে থেকে অনেকটাই আলাদা। অনেকেই এখানে ভাল করেছে। আশা করছি তারা আগামী টেস্টে আরও ভাল করবে।’ এবার ঢাকা টেস্টে সিরিজ নির্ধারণী লড়াই। পরবর্তী সে টেস্ট নিয়ে আমলা বলেন, ‘নির্ভর করছে ঢাকা টেস্টের কন্ডিশনের ওপর। আমাদের দেখতে হবে ঢাকার কন্ডিশনে কোন পরিবর্তন থাকে কিনা এবং তারপর দেখতে হবে দলে কোন পরিবর্তন আনতে হবে কিনা। মিরপুরে উইকেট ভিন্নতর হবে। আগে সেটা বিবেচনা করি, তারপর একাদশ নিয়ে ভাবা হবে।’