১২ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমাদের রাজনীতি করার সুযোগ দিন ॥ রিপন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সরকার বিএনপিকে রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালাতে দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন। সরকারকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, রাজনীতি করা আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার। তাই আমরা স্বাভাবিক রাজনীতির গ্যারান্টি চাই। আমাদের সে সুযোগ দিন। এ ছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং রাষ্ট্রের সব গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান সচল ও কার্যকর করতে বিরোধী দলের সঙ্গে দ্রুত সংলাপের দাবি জানাচ্ছি। শনিবার দুপুরে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, কোন রাজনৈতিক দল তাদের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু পরিতাপের বিষয় দেশের প্রধান বিরোধী দল বিএনপি তাদের স্বাভাবিক কোন কর্মকা- চালাতে পারছে না। নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা-হামলা দিয়ে আমাদের রাজনৈতিক কর্মকা- সীমিত করে রাখা হয়েছে। আমরা আমাদের স্বাভাবিক কর্মকা- চালাতে পারছি না। তাই স্বাভাবিক কর্মকা- চালানোর গ্যারান্টি চাই। এর পূর্বশর্ত হিসেবে আমরা আমাদের দলের সকল নেতাকর্মীদের সব মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহারেরও দাবি জানাচ্ছি।

রিপন বলেন, সরকারী দলের নেতাকর্মীদের মামলা প্রত্যাহারের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি কমিটিও আছে। ইতোমধ্যে সরকারী দলের নেতারা তাদের সকল মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। অথচ বিরোধী দলের নেতাদের মামলা প্রত্যাহার তো হয়ইনি, বরং প্রতিনিয়ত নতুন নতুন মামলা দিয়ে জর্জরিত করা হচ্ছে। তাই আমাদের প্রথম দাবি হচ্ছে আটক বিএনপি নেতাদের মুক্তি এবং দ্বিতীয় দাবি হচ্ছে তাদের নামে দায়ের হওয়া মামলা প্রত্যাহার। সেই সঙ্গে তাদের স্বাভাবাবিক রাজনীতিতে অংশ নেয়ার সুযোগ দেয়া হোক। আশা করছি সরকার আমাদের এসব দাবি মেনে নেবে।

রিপন বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে বিশ্বাসী। তিনি দেশের স্বার্থে রাজনীতি করেন। খালেদা জিয়া আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ায় তার নামে দায়ের হওয়া মামলায় তিনি নিয়মিত হাজিরা দিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু সমস্ত বিচার প্রক্রিয়া যেন খালেদা জিয়া ও বিরোধী দলের জন্য কার্যকর। এ সবই বিরোধী দলকে দুর্বল করার কৌশল। তিনি বলেন, বিরোধী দল নিয়ন্ত্রণে সরকার যে পদক্ষেপ নিয়েছে তা ভুল। কারণ, বিরোধী দলকে চাপের মুখে রেখে সরকার লাভবান হতে পারে না। এসব পদক্ষেপে সাময়িকভাবে সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারলেও জনগণের তুষ্টি কমে যাবে। তাই এসব করে সরকারই ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

বিএনপির মুখপাত্র বলেন, সরকারবিরোধী দল নিয়ন্ত্রণের জন্য তাদের ওপর মামলা-হামলা চালাচ্ছে। মামলার ভয় দেখিয়ে বেশিদিন বিরোধী দলকে দমিয়ে রাখা যাবে না। বিরোধী দলকে চাপের মুখে রেখে সরকার লাভবান হতে পারে না। সরকার ও বিরোধী দলের মধ্যে একটি কার্যকর সংলাপের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা আগেও আহ্বান জানিয়েছিলাম, এবারও আমরা জাতীয় ইস্যুগুলো নিয়ে সংলাপে বসার জন্য সরকারকে আহ্বান জানাচ্ছি। একটি কার্যকর সংলাপই দেশের গণতন্ত্র ও উন্নয়নের পথকে সুগম করতে পারে। তাই সংলাপের মাধ্যমেই চলমান রাজনৈতিক সঙ্কটের সমাধান করা উচিত বলে আমরা মনে করছি। আশা করছি সরকার এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ নেবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, সহ-দফতর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ।