২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মাদক চক্রের খপ্পরে পড়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন প্রবাসীর স্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস ॥ আন্তর্জাতিক মাদক চোরাচালানির খপ্পরে পড়ে অবুঝ শিশুদের নিয়ে বিপাকে পড়েছেন এক বাহরাইন প্রবাসীর স্ত্রী। বিচার চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরে উল্টো শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন তিনি ও তার স্বজনরা। প্রাণভয়ে এখন ভবঘুরে দিনযাপন করছেন তারা। তিনি ও তার পরিবারের নিরাপত্তাসহ চোরাচালানিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুতি জানিয়েছেন তিনি। শনিবার বিকেলে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জেলার গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাদেপাশা ইউনিয়নের বাগলা মাইজপাড়ার প্রবাসী বশির আহমদের স্ত্রী আফিয়া খানম এ আকুতি জানান। আফিয়া খানম অভিযোগ করে বলেন, তার স্বামী বশির আহমদ দীর্ঘ প্রায় ১৫ বছর ধরে বাহরাইনে থাকেন। তার আয়ের টাকাতেই ১০ সদস্যের পরিবারের ব্যয়ভার নির্বাহ করা হয়। চলতি বছরের ১৩ মার্চ বশির আহমদ চার মাসের ছুটি নিয়ে দেশে আসেন। গত ১৩ জুলাই বাহরাইনে নিজ কর্মস্থলে ফিরে যাওয়ার উদ্দেশে রওয়ানা হওয়ার পূর্বমুহূর্তে তাদের অজান্তেই ‘আন্তর্জাতিক মাদক চোরাকারবারি দলের সক্রিয় সদস্য’ সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার লামাচন্দরপুর গ্রামের বাহরাইন প্রবাসী ফরিদ উদ্দিন তাকে ফোনে তার ভাই আজাদ উদ্দিনের কাছ থেকে একটি হারমোনিয়াম নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করেন। বশির আহমদ প্রথমে অসম্মতি জানালেও পরে ফরিদ ও তার স্বজনদের অনুনয় বিনয়ে হারমোনিয়ামটি নিয়ে যেতে সম্মত হন। ফরিদের ভাই আজাদ উদ্দিনসহ তার স্বজনরা একটি কার্টনে প্যাক করে হারমোনিয়ামটি নিয়ে তাদের বাড়িতে আসনে। বশির আহমদ নিজের মালামালের সঙ্গে কার্টনটি নিয়ে যান। আফিয়া খাতুন বলেন, বাহরাইন বিমানবন্দরে পেঁৗঁছার পর কাস্টমে ওই কার্টনের হারমোনিয়ামের মধ্যে গাঁজা রয়েছে বলে বিষয়টি ধরা পড়ে। বশিরকে আটক করে সেখানকার পুলিশ। অথচ বশির কার্টনে গাঁজা থাকার বিষয়টি জানতেনই না। বশির আহমদের স্ত্রী আফিয়া খানম আরও বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মাদক চোরাচালানি’ ফরিদ ও আজাদের প্রতারণায় বাহরাইনের জেলে রয়েছেন বশির আহমদ। এজন্য চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে দেশে থাকা তার পরিবার ও স্বজনদের। এ নিয়ে গ্রামে কয়েকবার সালিশ বসলেও হাজির হয়নি ‘চোরাচালানি’ আজাদ ও তার স্বজনরা। উপরন্তু গত বৃহস্পতিবার প্রবাসী বশির আহমদের পরিবারকে আলোচনার কথা বলে বাড়িতে নিয়ে মারপিট করে গুরুতর জখম করা এবং হত্যা ও গুম করে ফেলার হুমকি দেয় আজাদ ও তার লোকজন।

প্রবাসী বশিরের বধূ আফিয়া তার স্বামীসহ পরিবারের এ করুণ দশার জন্য দায়ী ‘মাদক চোরাচালানি’ আজাদ, ফরিদসহ তাদের লোকদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।