২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভাঙ্গায় ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎহীন, জনদুর্ভোগ চরমে

সংবাদদাতা, ভাঙ্গা, (ফরিদপুর) ॥ ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎবিহীন থাকায় জন দুর্ভোগ চরমে নেমে এসেছে। টিপটিপ বৃষ্টিতে ডাকাতি আতংকে সারারাত ঘুমায়নি এলাকাবাসী। বিদ্যুৎ না থাকার সুযোগে থানার কাছে দারোগার পাশের ফ্লাটে চুরি হয়েছে। এদিকে রমজান মাসের কোন এক দিনও সেহরী,ইফতারি ও তারাবীহর নামাযে এক মিনিটের জন্য বিদ্যুৎ পায়নি। এনিয়ে ফুসে উঠেছে এলাকাবাসী।

ভুক্তভোগি গ্রাহক সূত্রে জানা যায়,রবিবার দুপুর থেকে সোমবার বিকাল পর্যন্ত বিদ্যুৎ না থাকায় গ্রাহকদের ফ্রিজের মাছ,মাংস সহ সব ধরনের খাবার পচে গেছে। বাসাবাড়ীতে পানি নিয়ে হাহাকার চলছে,ব্যাটারী চালিত ভ্যান রিক্সা, অটোবাইক চার্জ না হওয়ায় এসব গাড়ী শহরে চলতে দেখা যায়নি।এঘটনায় আটো চালক রমজান মাতুবব্বার জনান, দুইদিন ধরে বিদ্যুৎ বন্ধ থাকায় গাড়ীর চার্জ দিতে পারি নাই,ফলে গাড়ী চালাতেও পারিনাই। খরচ তো আর বসে নাই, কিস্তির টাকার জন্য লোক বাড়ী চলে এসেছে, দেনা হয়েছি। ভাঙ্গা বাজার বনিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর মুন্সি বলেন, ভাঙ্গা বাজারের সাধারণ ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের বিদ্যুৎ না থাকায় চরম ক্ষতি হয়েছে, এভাবে চলতে পারেনা। এব্যাপারে ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফাইজুর রহমান জানান, এত লোডসেডিং বাংলাদেশের কোথাও নাই সামান্য বাতাস,বৃষ্টি হলেই লাইন বন্ধ করে রাখেন ঘন্টার পর ঘন্টা, এ উপজেলায় বিদ্যুৎ নাই বললেই চলে, এমন অদক্ষ আবাসিক প্রকৌশলী জন্য সরকার ও আমাদের দলের সুনাম ভীষনভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে। তিনি আরও বলেন,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা আনুযায়ী উপজেলার আইন শৃংখলা মিটিং এ আলোচনা হয়েছিল যেন রমজান মাসে ইফতারি ও তারাবিহ নামাজে ঠিকমত দেন অথচঃ পুরা রমজানে একটি রাতেও বিদ্যুৎ দেন নাই। গ্রাহকরা বিদ্যুৎ না জ্বালিয়ে বিল দিচ্ছে এটা জনগণের দুর্ভোগ ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে আবাসিক প্রকৌশলী কে এম ফরিদুল ইসলাম এর সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান,ফরিদপুরের হাড়–কান্দি থেকে লাইনের তার ছিড়ে গেছে এবং ফরিদপুর থেকে লোডশেডিং দিয়েছে আমার কিছু করার নেই অাপনারা একটু কতৃপক্ষকে ফোন করেন।