২৭ জুলাই ২০১৫

এম কে আনোয়ার, মিন্টু ও আমানকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নাশকতার অভিযোগে বিএনপির চার নেতার মধ্যে স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলামের জামিন বহাল রেখেছে আপীল বিভাগ। অন্যদিকে ৫২ মামলায় বিএনপির অপর তিন নেতা এম কে আনোয়ার, আবদুল আউয়াল মিন্টু ও আমানউল্লাহ আমানের হাইকোর্টের জামিন আদেশ স্থগিত করে তাদের এক সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপীল বিভাগের বেঞ্চ সোমবার এই আদেশ প্রদান করেছে। অতিরিক্ত এ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা বলেন, তরিকুলের জামিনের বিষয়ে কোন আদেশ দেয়নি আদালত। তবে অন্য তিন নেতাকে এক সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে তাদের গ্রেফতার করা যাবে কিনা- জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেটা পুলিশের বিষয়। আমার বক্তব্য হচ্ছে, তারা এখন জামিনে নেই।

তাদের পক্ষের আইনজীবী এ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, তরিকুল ইসলামকে জামিন দিলেও অন্য তিন নেতাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছে আপীল বিভাগ। গত ২১ জুলাই সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন আপীল আবেদন শুনানির এই দিন নির্ধারণ করে আদেশ দেন। স্থগিত আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ভারপ্রাপ্ত এ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা। অপরদিকে বিএনপি নেতাদের পক্ষে ছিলেনÑ এ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, সাজ্জাদ হয়দার, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, এ্যাডভোকেট এহসানুর রহমান ও এ্যাডভোকেট সাগীর হোসেন লিয়ন।

গত ৯ জুলাই বিএনপির এই নেতাদের জামিন আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ তাদের ৫৬টি মামলায় জামিন দেয়। এরমধ্যে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব আমানউল্লাহ আমানকে জামিন দেয়া হয় ৪২ মামলায়। এ মামলাগুলো দায়ের করা হয়েছিল রাজধানীর পল্টন, শাহবাগ, মিরপুর, পল্লবী, মোহাম্মদপুর, যাত্রাবাড়ী, রমনা ও মতিঝিল থানায়। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য এম কে আনোয়ার জামিন পেয়েছেন নয়টি মামলায়। এগুলো হলোÑ রাজধানীর পল্টন থানায় পাঁচটি, যাত্রীবাড়ী ও খিলগাঁও থানার একটি এবং কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানার দুটি। বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য তরিকুল ইসলাম জামিন পেয়েছেন যশোরের চার মামলায়। অপরদিকে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টু আগাম জামিন নিয়েছেন পল্টন থানার এক মামলায়।