২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জাফরুল্লাহকে সতর্ক করে অবমাননার দণ্ড বাতিল করেছে সুপ্রীমকোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ায় জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে আদালত অবমাননার দায়ে ট্রাইব্যুনালের দেয়া দণ্ডাদেশ বাতিল করেছেন সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগ। একই সঙ্গে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক জাফরুল্লাহকে আদালত সতর্ক করে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী আব্দুর রেজাক খান।

জাফরুল্লাহর ক্ষমার আবেদনের শুনানি করে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপলি বেঞ্চ মঙ্গলবার বিষয়টি নিষ্পত্তি করে এই আদেশ দেন।

আদেশে বলা হয়, ‘কনভিকশন ইজ কোয়াশড’। জাফরুল্লাহ এ সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আদেশের পর রেজাক খান সাংবাদিকদের বলেন, “উনি নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন। ওই আবেদন আদালত গ্রহণ করেছেন। সতর্ক করে দিয়ে আদালত আদেশ দিয়েছেন।”

এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, “নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তার দণ্ড বাতিল করেছেন। ভবিষ্যতে বিচারক ও বিচারবিভাগ সম্পর্কে মন্তব্য করার ক্ষেত্রে সতর্ক করে দিয়েছেন।”

ব্রিটিশ নাগরিক ডেভিড বার্গম্যানের সাজায় উদ্বেগ প্রকাশ করে ‘অবমাননাকর’ বিবৃতি দেওয়ায় গত ১০ জুন জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে সাজা দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

শাস্তি হিসাবে তাকে এক ঘণ্টা আসামির কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। সেইসঙ্গে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে একমাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

ওই আদেশের বিরুদ্ধে জাফরুল্লাহ সুপ্রীমকোর্টের চেম্বার আদালতে গেলে বিচারক অর্থদণ্ডের আদেশের কার্যকারিতা ৫ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত করে বিষয়টি শুনানির জন্য আপীল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন।

সোমবার বিষয়টি আপীল বেঞ্চে উঠলে জাফরুল্লাহর আইনজীবী জানান, তিনি ক্ষমা চেয়ে আবেদন করবেন। এরপর আদালত আদেশের জন্য মঙ্গলবার দিন রাখে।

মঙ্গলবার আপীল বিভাগের আদেশের পর এক প্রশ্নের জবাবে এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, “উনি এক ঘণ্টা দণ্ড ভোগ করেছেন। কাগজে কলমে ওই দণ্ড রইল না। আর জরিমানা দেয়া থেকে তিনি অব্যাহতি পেলেন।”

এর আগে টকশো’তে মন্তব্যের কারণে আরও একবার অবমাননার অভিযোগে জাফরুল্লাহকে ট্রাইব্যুনালে জবাব দিতে হয়েছিল। আর ১০ জুন সাজার আদেশের পর বাইরে এসে বিচারকদের নিয়ে মন্তব্য করায় তার বিরুদ্ধে আরও একটি অবমাননার মামলা ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন।