১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত লতিফ তালুকদারের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার আসামি বাগেরহাটের আবদুল লতিফ তালুকদার ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার গভীর রাতে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের কারারক্ষী জাকারিয়া জানান, রাত ৩টার দিকে আবদুল লতিফের মৃত্যু হয়। তিনি ঢামেক হাসপাতালের ৬০২নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

তিনি আরও জানান, গত ২৩ জুলাই আবদুল লতিফ তালুকদার কাশিমপুর কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের মাধ্যমে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তার বাড়ি বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার শোলাকোলা গ্রামে।

মানবতাবিরোধী মামলায় গ্রেফতার বাগেরহাটের সিরাজ মাস্টার, খান আকরাম হোসেন ও আবদুল লতিফ তালুকদারের রায় যেকোনো দিন ঘোষণার জন্য অপেক্ষমাণ রাখা হয়েছে।

গত ২৩ জুন (মঙ্গলবার) উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ মামলটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ অবস্থায় সিএভিতে রাখেন। যেকোনো দিন এ রায় ঘোষণা হবে বলে ট্রাইব্যুনাল জানান।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে কচুয়ার শাঁখারিকাঠি বাজারে গণহত্যা, ধর্ষণ ও বসতবাড়িতে অগ্নিসংযোসহ ছয়টি সুনির্দিষ্ট অপরাধ ও ৮শ’ ১৯ জনকে হত্যার অভিযোগে সিরাজ মাস্টারকে বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা গ্রামে তার চাচাশ্বশুর মৃত মোসলেম পাইকের পরিত্যক্ত খুপরি ঘর থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এছাড়া, কচুয়া থানা পুলিশ ১১ জুন এই মামলার অপর পলাতক আসামি আবদুল লতিফ তালুকদারকে ও ১৯ জুন অপর পলাতক আসামি আকরাম হোসেন খানকে রাজশাহী থেকে মোরেলগঞ্জ থানা পুলিশ গ্রেফতার করে।