২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাইবান্ধার গোবিন্দপুরে চলাচলের রাস্তা নিয়ে সংঘর্ষ

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা॥ সদর উপজেলার পূর্ব গোবিন্দপুর গ্রামে জমিজমা ও চলাচলের রাস্তা নিয়ে বিরোধের জের ধরে এক সংঘর্ষে দুই মহিলার শ্লীলতাহানী করে মারপিটে তাদের আহত করাসহ স্বর্ণালংকার এবং ১৫ হাজার টাকা ছিনতাই করা হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে ঘটনার সাথে জড়িত সদর উপজেলার চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী আবু বকর সিদ্দিক ও তার সন্ত্রাসী সহযোগীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের সামনে এলাকাবাসির উদ্যোগে এক মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়। পরে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

স্মারকলিপিতে উল্লেখিত প্রদত্ত অভিযোগে জানা গেছে, উক্ত গ্রামের মৃত মুনছুর আলীর পুত্র আবু তালেবের সাথে একই গ্রামের আবু বকর সিদ্দিকের জমি ও চলাচলের রাস্তা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে আবু বকর সিদ্দিকের বাড়ির পাশ দিয়ে আবু তালেব ও তার জনগোষ্ঠীদের যাতায়াতের রাস্তা থাকায় প্রায়ই তাদেরকে মারপিট ও খুন জখমের ভয়ভীতি দেখিয়ে আসতো। মাঝে মাঝে সুযোগ পেলেই বাড়িতে এসে মারপিটও করতো। একপর্যায়ে গত ২৪ জুলাই তালেবের ছোট ভাই মৃত জাহের মিয়ার স্ত্রী রাহেলা, ছেলে আলমগীর ও পুত্রবধু শহরে যাওয়ার জন্য বের হলে আবু বকর সিদ্দিকের বাড়ির সামনে আসা মাত্রই পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা আবু বকর সিদ্দিকসহ তার লোকজন পথরোধ করে গালিগালাজ করতে থাকে। এ সময় তারা রাহেলার গলায় থাকা আট আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন ও ভ্যানিটি ব্যাগে থাকা ১৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এব্যাপারে আবু তালেব বাদি হয়ে সদর উপজেলার পূর্ব গোবিন্দপুর গ্রামের মহসিন আলীর ছেলে সদর উপজেলা পরিষদের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী আবু বকর সিদ্দিক ও আবু হোসেন, মিস্টার, আশরাফুল, রাহেনা খাতুন, সামর্থভান, মোর্শেদা বেগম, আদুরানী, রুনি বেগমসহ ৯ জনকে আসামি করে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। এদিকে রাহেলা বেগমকে আহত অবস্থায় চিকিৎসার্থে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।