২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টাঙ্গাইলে আত্মসমর্পন করেননি এমপি রানা ও মেয়র মুক্তি

নিজস্ব সংবাদদাতা, টাঙ্গাইল॥ শেষ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদকারী, আওয়ামী লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা মামলায় নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পন করতে আসেননি অভিযুক্ত এমপি আমানুর রহমান খান রানা ও তার ছোট ভাই টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র সহিদুর রহমান খান মুক্তি। তারা মঙ্গলবার আদালতে আত্মসমর্পন করতে আসবেন এই খবরের প্রেক্ষিতে পুলিশ ও র‌্যাব টাঙ্গাইল আদালত এলাকায় সকাল থেকেই অবস্থান নেয়। পাশাপাশি ছিল খান পরিবার বিরোধী আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

ফারুক হত্যা মামলায় টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের এমপি আমানুর রহমান খান রানা ও মেয়র সহিদুর রহমান খান মুক্তি হাইকোর্টে অবকাশকালীন বেঞ্চে আগাম জামিনের আবেদন করেন। আদালত শুনানী শেষে গত ১৪ জুলাই দেয়া আদেশে দুই সপ্তাহের মধ্যে তাদের নি¤œ আদালতে আত্মসমর্পন করতে বলেন। একই সাথে এই সময়ে তাদের হয়রানি না করার জন্য পুলিশের প্রতি নির্দেশ দেয়া হয়। পরবর্তী সময়ে সরকারের পক্ষে এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করা হয়। আপিল বিভাগ হয়রানি না করার ব্যাপারে পুলিশের প্রতি হাইকোর্ট বিভাগের দেয়া আদেশ স্থগিত করেন। টাঙ্গাইলের গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মাহফীজুর রহমান জানান, হাইকোর্ট বিভাগের নির্দেশ অনুযায়ী দুই ভাইয়ের নি¤œআদালতে আত্মসমর্পনের মঙ্গলবার ছিল শেষ দিন।

আমানুর রহমান খান রানা ও সহিদুর রহমান খান মুক্তির নিয়োজিত আইনজীবী আসাদুজ্জামান খান জানান, তিনি তার মক্কেলদের ওকালতনামা সংগ্রহসহ আত্মসমর্পনের দরখাস্ত লিখে প্রস্তুত থাকার পরও প্রতিকুল পরিস্থতির কারণে তাদেরকে আদালতে এনে আত্মসমর্পন করাতে পারিনি। এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে কোর্ট চত্ত্বরে খান পরিবার বিরোধী আওয়ামী লীগ পরিবার ও সমর্থকরা মিছিল ও সমাবেশ করেছে। এতে বক্তারা খুনিদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে ফাঁসি কার্যকর এবং আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কারের দাবি জানান।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া