১৯ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আন্তর্জাতিক থ্রোবল প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের লক্ষ্য রৌপপদক

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ভারতের বেঙ্গালুরুতে আগামী ৭-৯ আগস্ট অনুষ্ঠিত হবে ‘পেন্টাগুলার আন্তর্জাতিক থ্রোবল চ্যাম্পিয়নশিপ।’ এই টুর্নামেন্টে পাঁচটি দল অংশ নিচ্ছে। দলগুলো হল- বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলঙ্কা, মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুর। এই টুর্নামেন্টে অংশ নিতে ৩২ সদস্যের বাংলাদেশ পুরুষ ও নারী থ্রোবল দল ভারত যাবে। তাদের ড্রেস স্পন্সর করেছে দেশের ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিক্স, অটোমোবাইল ও হোম এ্যাপ্লায়েন্স প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন।

মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সম্মেলন কক্ষে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের ফার্স্ট সিনিয়র এডিশনাল ডিরেক্টর ও বাংলাদেশ থ্রোবল এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), সাধারণ সম্পাদক শামীম আল মামুন, সিনিয়র সহ-সভাপতি তারেক ইকবাল খান মজলিসহ অন্যান্য কর্মকর্তা ও খেলোয়াড়রা।

এক বক্তব্যে এফ.এম. ইকবাল বিন আনোয়ার বলেন, ‘থ্রোবল আসলে ভলিবল ও হ্যান্ডবলের কম্বিনেশন। ভারতের বেঙ্গালুরুতে এবার আমাদের যে টিম যাচ্ছে, আশা করছি তারা বেশ ভালো করবে। কলকাতা হয়ে বেঙ্গালুরু যেতে হবে। লম্বা ভ্রমণ। তাই আগেভাগেই রওয়ানা হবে আমাদের দল।’

সাধারণ সম্পাদক শামীম আল মামুন বলেন, ‘এর আগে আমরা ২০১২ সালে মালয়েশিয়ায় পেন্টাগুলার টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছিলাম। সেবার আমরা তৃতীয় হয়ে তাম্রপদক জিতেছিলাম। এবার শ্রীলঙ্কাকে হারাতে পারলে রৌপ্যপদক জয়ের আশা করছি। মালয়েশিয়ায় শ্রীলঙ্কার সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছিল। এবার অবশ্য আমাদের প্রস্তুতি আগের চেয়ে ভালো। আশা করছি ভালো করতে পারব।’

বাংলাদেশ দলের সঙ্গে দুজন রেফারিও যাচ্ছেন। তারা হলেন শরীফুল ইসলাম ও মিজানুর রহমান।

১৯৩৯ সালে অস্ট্রেলিয়ায় প্রথম শুরু হয় থ্রোবল খেলা। এটা অনেকটা ভলিবলের মতোই। কিন্তু সামান্য পার্থক্য রয়েছে। এরপর ১৯৫০ সালে ভারতে শুরু হয় এই খেলা। আস্তে আস্তে ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে। বাংলাদেশে এই খেলাটি শুরু হয়েছে বেশিদিন হয়নি। ২০১২ সালে সাবেক খ্যাতিমান ভলিবল খেলোয়াড় আবুল কাশেম খান বাংলাদেশ থ্রোবল এ্যাসোসিয়েশন প্রতিষ্ঠা করেন। থ্রোবলে মোট ২৫ পয়েন্টের খেলা হয়। তবে ভলিবল যেখানে ছয়জন খেলে সেখানে থ্রোবল খেলে সাতজন।

নির্বাচিত সংবাদ