২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা দ্বিতীয় টেস্ট শুরু আজ

বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা দ্বিতীয় টেস্ট শুরু আজ

মিথুন আশরাফ ॥ ‘শেষ ভাল যার, সব ভাল তার।’ বাংলাদেশ ও দক্ষিণ আফ্রিকার দৃষ্টি এখন শেষ ভাল করাতেই। সেই শেষের শুরু হচ্ছে আজ। বৃষ্টি কোন বাধা তৈরি না করলে সকাল সাড়ে নয়টায় যে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট শুরু হবে, এ টেস্ট শেষ হতেই দুই দলের মধ্যকার পূর্ণাঙ্গ সিরিজেরও ইতি ঘটবে।

এই ম্যাচেই আবার রেকর্ডের ছড়াছড়ি লেগে যেতে পারে। দলীয়, ব্যক্তিগত রেকর্ডের ম্যাচ হয়ে যেতে পারে এটি। দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার ডেল স্টেইন টেস্টে ৪০০ উইকেট পাওয়ার মাইলফলকের দিকে দাঁড়িয়ে আছেন। আর ১ উইকেট শিকার করতে পারলেই এ অর্জন হয়ে যাবে স্টেইনের। বাংলাদেশ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান টেস্টে ১৫০ উইকেট শিকারের সামনে আছেন। এ জন্য আর ৩ উইকেট লাগবে। যদি কোনভাবে দুই ইনিংস মিলিয়ে ৭ উইকেট নিতে পারেন, তাহলে সব ফরমেট মিলিয়ে ৮০০০ রান ও ৪০০ উইকেট নেয়ার কৃতিত্বও গড়বেন সাকিব। বাংলাদেশ পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের সামনেও আছে একটি ইতিহাস গড়ার হাতছানি। ক্রিকেট ইতিহাসে টেস্টে অভিষেক থেকে টানা দুই ম্যাচে ম্যাচসেরা হতে পারেননি কোন বোলার। প্রথম টেস্টের ম্যাচসেরা হওয়া মুস্তাফিজ তা করতে পারলে ইতিহাসই গড়বেন।

এ গেল ব্যক্তিগত রেকর্ড করার সুযোগের হিসেব। এর বাইরে আছে দলীয় রেকর্ড গড়ার হাতছানিও। দ্বিতীয় টেস্ট কোনভাবে জিততে পারলে প্রথমবারের মতো র‌্যাঙ্কিংয়ের ১ নম্বরে থাকা দলকে টেস্ট সিরিজে হারানোর রেকর্ড গড়বে বাংলাদেশ। প্রথম টেস্ট বৃষ্টিতে ড্র হওয়ায় এখন যেহেতু দ্বিতীয় টেস্ট যে দল জিতবে, সিরিজ জয় তাদের হাতেই ধরা দেবে; তাই এক ম্যাচ জিতেই সিরিজ জয়ের রেকর্ড গড়তে পারে বাংলাদেশ। সেই সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকাকে প্রথমবারের মতো টেস্টে হারানোর গৌরবও অর্জন করবে বাংলাদেশ। পারবে মুশফিক বাহিনী তা করতে?

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এ পর্যন্ত ৯ টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। কোনটিতেই ‘ছোট্ট’ হার নেই। ৭ ম্যাচেই ইনিংস ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। এক ম্যাচে ৫ উইকেটের হার হয়েছে। সর্বশেষ দুই দলের মধ্যকার চট্টগ্রামে যে টেস্ট হয়েছে, সেই ম্যাচ বৃষ্টির জন্য ড্র হয়েছে। তবে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দাপট দেখিয়েছে বাংলাদেশ। শুধু কী তাই, প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে এগিয়ে থাকার যোগ্যতাও অর্জন করেছে। দ্বিতীয় টেস্টে তাই ভাল করার সুযোগ আছে।

বাংলাদেশ অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম তো জয়ের সম্ভাবনাও দেখছেন! বুধবার ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বলেছেনও, ‘জেতার সম্ভাবনা আমাদেরও আছে।’ এ আত্মবিশ্বাস কিভাবে পেলেন? মুশফিক বলেছেন, ‘শেষ টেস্টটা সবদিক থেকেই খুব ভাল হয়েছে। এবার সবাই খুব ভাল খেলার জন্য মুখিয়ে আছে। সম্প্রতি ফর্মের কথা বললে, বাংলাদেশ খুব ভাল ক্রিকেট খেলছে। ওয়ানডে-টেস্ট; দুই ফরমেটেই। এটাই আমাদের জন্য আত্মবিশ্বাসের দারুণ জায়গা। বোলারদের মধ্যে বিশ্বাস তৈরি হয়েছে যে, ভাল জায়গায় বোলিং করে গেলে দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলকেও অলআউট করা যায়। আমরা যদি সবকিছু ঠিকঠাক প্রয়োগ করতে পারি, তবে ফলাফলটা আমাদের পক্ষেও আসতে পারে। এমনকি সিরিজটাও আমাদের হতে পারে।’

অবশ্য খানিক শঙ্কার কথাও জানিয়ে রেখেছেন মুশফিক। বলেছেন, ‘তবে এখানে (মিরপুরে) উইকেট একটু ভিন্ন। চট্টগ্রামের তুলনায় এখানে বাউন্স বেশি।’ এ উইকেট ভীতিই বিপদ আনতে পারে। পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে যেমন প্রথম টেস্ট দুর্দান্ত খেলে দ্বিতীয় টেস্টেই দুমড়ে মুছড়ে গেছে বাংলাদেশ। এবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষেও কী সেই রকম কিছুই হবে?

দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক হাশিম আমলা যেমন বলেছেন, ‘জয় ছাড়া বিকল্প কোন পথই দেখছি না। আমরা যখন বাংলাদেশে এসেছি, তখন আশা নিয়েই এসেছি। যেন বেশি ম্যাচ জিততে পারি। প্রথম টেস্ট বৃষ্টিতে ভেসে গেছে। যদি শুরুটা ভাল করতে পারি তাহলে দ্বিতীয় টেস্টে জিতব। আশা করি শেষ ম্যাচটায় জিতব।’

দক্ষিণ আফ্রিকা দ্বিতীয় টেস্টটি যে করেই হোক জিততে চাইবে। তা না হলে যে বাংলাদেশ থেকে এক রকম খালি হাতেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে ফিরতে হবে। দুই ম্যাচের টি২০ সিরিজ জিতেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ জিততে পারেনি। যে ফরমেটে বাংলাদেশ অনেক ভাল, সেই ফরমেটে বাংলাদেশকে মাত দিতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। টি২০ সিরিজ জেতার পর দক্ষিণ আফ্রিকা মনে করেছিল, বাংলাদেশ আর কত ভাল করবে। তাই তো ডি ভিলিয়ার্সকে ওয়ানডে সিরিজে খেলানোই হয়নি। আর পেসার ডেল স্টেইন তো নির্ধারিত ওভারের ম্যাচ খেলতেই আগ্রহ দেখাননি। যখন টেস্ট শুরু হলো, সেখানেও ধারহীনই থাকলেন স্টেইন।

বাংলাদেশকে হালকাভাবে নেয়ার খেসারত এরই মধ্যে ওয়ানডে সিরিজ হেরে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এখন যদি টেস্ট সিরিজও জয় না হয়, তাহলে দেশে গিয়ে কী জবাব দেবেন প্রোটিয়া ক্রিকেটাররা? তাই তো যে করেই হোক দ্বিতীয় টেস্ট জিততে চাইছেন হাশিম আমলা।

বাংলাদেশও এখন আর সেই দল নেই যে হারের আগেই হেরে যাবে। হার হলেও সেখানে যেন লড়াই থাকে, সেদিকেই মনোযোগ আছে বাংলাদেশ ক্রিকেটারদের। সেই লড়াই করার যে বিশ্বাস, তা বাংলাদেশকে ম্যাচেও জিতিয়ে দিতে পারে। প্রথম টেস্টে ভাল করায় আজ শুরু হতে যাওয়া দ্বিতীয় টেস্টেও তাই ‘বড়’ স্বপ্নই দেখছে বাংলাদেশ। সেই স্বপ্ন জয়ের। সেই স্বপ্ন শেষটা ভাল করার, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথমবারের মতো টেস্ট সিরিজ জয়ের।