২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মুক্তিযোদ্ধা হারাল আবাহনীকে জিতে নিরাপদ বিজেএমসি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মোহামেডানের সমর্থকরা বেজায় খুশি। কেননা, তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ঢাকা আবাহনী লিমিটেডের যে শিরোপা জয়ের স্বপ্ন ধূলিসাত হয়ে গেল! বুধবার ‘মান্যবর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ’ ফুটবলের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা আবাহনীকে ১-০ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র। মুক্তির অধিনায়ক ফরোয়ার্ড এনামুল হক ম্যাচের ৬১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে জয়সূচক গোলটি করেন। লীগে এটা এনামুলের ব্যক্তিগত ত্রয়োদশ গোল, যা দেশীয় ফুটবলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। নিজেদের অষ্টাদশ ম্যাচে এটা মুক্তির অষ্টম জয়। ২৫ পয়েন্ট নিয়ে তারা অবস্থান করছে পয়েন্ট টেবিলের ষষ্ঠ স্থানে। পক্ষান্তরে নিজেদের সপ্তদশ ম্যাচে এটা আবাহনীর চতুর্থ হার। ৩১ পয়েন্ট নিয়ে তাদের অবস্থান চার নম্বরে। টানা সাত ম্যাচ পর অবশেষে আবারও জয়ের ধারায় ফিরে এলো চলতি মৌসুমের ফেডারেশন কাপ রানার্সআপ মুক্তিযোদ্ধা। মজার বিষয়, লীগের প্রথম পর্বের মোকাবেলাতেও আবাহনীকে একই ব্যবধানে হারিয়েছিল মুক্তি! এই হারে লীগে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আশা শেষ হয়ে গেল আবাহনীর।

রেলিগেশনের শঙ্কা খুব একটা ছিল না। তারপরও যেটুকু ছিল, তা মোটামুটি দূর হয়ে গেছে। বুধবার ‘মান্যবর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ’ ফুটবলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত দিনের প্রথম ম্যাচে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটিকে ৩-১ হারিয়েছে বাংলাদেশ পাটকল সংস্থা (বিজেএমসি)। ম্যাচের প্রথমার্ধে কোন দলই গোল করতে পারেনি। শেষ ম্যাচে মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়ে চমক দেখানো ‘জায়ান্ট কিলার’ খ্যাত রহমতগঞ্জ বুধবার নিজেদের ‘কিল’ হয়ে গেছে প্রতিপক্ষের কাছে! শিরোপার আশা নেই কোন দলেরই। তবে চেষ্টা থাকছে অবনমন এড়িয়ে পয়েন্ট তালিকায় যতদূর ওপরে ওঠা যায়। সেই হিসেবে বুধবারের জয়ে বিজেএমসি দুই ধাপ উন্নতি হয়েছে। ১৭ ম্যাচে এটা তাদের চতুর্থ জয়। ১৫ পয়েন্ট নিয়ে নবম থেকে সপ্তম স্থানে উঠে এলো তার। টপকে গেল রহমতগঞ্জ ও ফেনী সকারকে। ফেনী সকারেরও পয়েন্ট ১৫। তবে গোল তফাতে এগিয়ে থাকায় বিজেএমসিই তাদের ওপরে। সমান ম্যাচে নবম হারে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে অষ্টম থেকে নবম স্থানে নেমে গেল রহমতগঞ্জ। ১১ দলের মধ্যে এবার একটি দলই অবনমনের শিকার হবে। ১৬ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার নিচে থাকা ফরাশগঞ্জই আছে সেই তালিকায় এগিয়ে।

জাতীয় দলে খেলতে ঢাকায় রেজেওয়ান ও আকমল

‘এর আগেও চারবার সিলেটে বেড়াতে এসেছি। তবে এবারই প্রথম এসেছি ফুটবলে ট্রায়াল দিতে। সে জন্য খুবই রোমাঞ্চিত। নিজেকে প্রমাণ করতে চাই। ইংল্যান্ডে সবাই বাংলাদেকে চিনে ক্রিকেটের দেশ হিসেবে। কিন্তু আমি বাংলাদেশের জাতীয় দলে ভাল খেলে ইংল্যান্ডের সবাইকে চেনাতে চাই বাংলাদেশ হচ্ছে ফুটবলের দেশ।’ কথাগুলো রেজওয়ান আহমেদের। বাংলাদেশ অনুর্ধ ১৯ দলের ট্রায়ালে অংশ নিতে বুধবার ঢাকায় এসেছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত দুই ইল্যান্ড প্রবাসী (ওয়েলস) ফুটবলার আলী আকমল এবং রেজওয়ান আহমেদ। বাংলাদেশের ফুটবল সম্পর্কে ইউটিউব এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে অল্প কিছু ধারণা নিয়ে ঢাকায় এসেছেন। তাদের স্বপ্ন বাংলাদেশ জাতীয় দলের জার্সি গায়ে খেলা। রেজওয়ান খেলেন রাইটব্যাকে আর আকমল লেফটব্যাকে।