২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুড়িগ্রামে আনন্দ স্কুলে শিক্ষক নিয়োগে উৎকোচ

রাজু মোস্তাফিজ, কুড়িগ্রাম ॥ আনন্দ স্কুলের শিক্ষক নিয়োগে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় । ভুয়া ছাত্রছাত্রী দেখিয়ে শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার নামে হাতিয়ে নিয়েছে অর্ধকোটি টাকা। শিক্ষক নিয়েগে এত বিপুল পরিমাণ টাকার দুর্নীতির সাথে জড়িত উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন অর রশীদ, যুবলীগের সভাপতি আশরাফুল ইসলাম এবং স্থানীয় কয়েক নেতা। এতে সরকারের এ নীতিমালা তোয়াক্কা না করে ১১২টি আনন্দ স্কুলের শিক্ষক নিয়োগের সুপারিশ করায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিতে সোমবার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) আকতার হোসেন আজাদ সরেজমিন তদন্ত করেন ।

জানা যায়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে রিচিং আউট অব স্কুল চিলড্রেন (রক্স) প্রকল্পের আওতায় দ্বিতীয় মেয়াদে নতুন করে ৫ বছরের জন্য ফুলবাড়ী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে শিক্ষক নিয়োগের জন্য মাইকিং করেন সংশ্লিষ্টরা । সে জন্য ২৭টি বুথে জড়ো করা হয় প্রার্থীদের । এ অবস্থায় গোপনে টাকার বিনিময়ে প্রার্থী সংগ্রহ করে ৬৯টি কেন্দ্রে নিয়োগ দেয়ার জন্য মনোনীত করা হয় । এতে প্রত্যেক প্রার্থীর কাছ থেকে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ তোলা হয় । ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন জানান, আনন্দ স্কুলের নামে ব্যাপক অনিয়ম- দুর্নীতির আশ্রয় নেয়া হয়েছে। শিক্ষক নিয়োগের নামে লোপাট করা হয়েছে অর্ধ কোটি টাকা। নিয়োগকৃত শিক্ষকের মধ্যে নাওডাঙ্গা ইউনিয়নে ৮, শিমুলবাড়ী ইউনিয়নে ৭, ফুলবাড়ী ইউনিয়নে ২০, বড়ভিটা ইউনিয়নে ১০, ভাঙ্গামোড় ইউনিয়নে ১৫ এবং কাশিপুর ইউনিয়নে ৯জন। এদের মধ্যে ৬১ মহিলা ও ৮ পুরুষ শিক্ষক রয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে নিয়োগপ্রাপ্ত একাধিক শিক্ষক জানান, এজেন্টের মাধ্যমে তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে ৪৫ থেকে ৫০হাজার টাকা নেয়া হয়েছে। প্রকাশ করা হলে নিয়োগ বাতিল করার হুমকিও দেয়া হয়েছে ।

এ ব্যাপারে রিচিং আউট অব স্কুল চিলড্রেন (রক্স) প্রকল্পের ফুলবাড়ী উপজেলা ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর রেজাউল ইসলাম বলেন, নিয়োগ কমিটির সভাপতি হলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও)। নিয়ম-অনিয়মের বিষয়ে তিনিই ভাল জানেন। আমি কারও কাছে টাকাপয়সা নেইনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাসির উদ্দিন মাহমুদ ঘুষ নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, আমি অসুস্থ এ ব্যাপারে কিছু জানি না। তিনি আরও বলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন।

এ কমিটির সদস্য ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার স্বপন কুমার অধিকারী জানান, সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পাদন করেছেন প্রকল্পের উপজেলা কমিটির সভাপতি ও সদস্য সচিব। আমি সদস্য মাত্র।

বেনাপোলে বিরল প্রজাতির কচ্ছপ উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার, বেনাপোল ॥ যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার বোয়ালিয়া বাজার থেকে ভারতীয় ৭১০টি বিরল প্রজাতির কচ্ছপ উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা।

বুধবার সকালে ভারত থেকে পাচার করে আনা বিরল প্রজাতির কচ্ছপের এ চালানটি উদ্ধার করা হয়। এ সময় পাচারের সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি বিজিবি সদস্যরা। সীমান্তের বোয়ালিয়া বাজারে অভিযান চালায় বিজিবি। এ সময় ধাওয়া খেয়ে পাচারকারীরা ১০টি বস্তা ফেলে পালিয়ে যায়। পরে এসব বস্তার ভেতরে বিরল প্রজাতির ৭১০টি কচ্ছপ পাওয়া যায়।

কচ্ছপের চামড়া উদ্ধার

নিজস্ব সংবাদদাতা ঠাকুরগাঁও থেকে জানান, কান্তিভিটা সীমান্ত এলাকায় ১৭ কেজি কচ্ছপের চামড়া ও হরিপুরের ডাবরী সীমান্ত এলাকায় ৩শ’ ৩৫ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল আটক করেছে ৩০ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন সদস্যরা। বুধবার ভোরে আটককৃত এসব মালামালের আনুমানিক মূল্য প্রায় ৫ লাখ টাকা।