২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যশোরে হাসপাতালের ওষুধ কৌশলে বিক্রি

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের সরকারি ওষুধ রোগীদের কাছে বিক্রি করে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে একটি প্রতারক চক্র। রোগীদের ভুল বুঝিয়ে এভাবে চক্রের সদস্যরা প্রতিনিয়ত আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে। আর তাদের খপ্পরে পড়ে অসংখ্য মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। বুধবার হাসপাতালের বহি:বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা এক মহিলা রোগীর সাথে এমন প্রতারণার অভিযোগে পুলিশ এক যুবককে আটক করে। পালিয়ে যায় আরেক জন। ধৃত যুবকের নাম রুবেল হোসেন। সে শহরের ঘোপ নওয়াপাড়া রোডের আমির আলীর ছেলে। পরে অবশ্য স্থানীয় লোকজন প্রভাব খাটিয়ে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। বেনাপোল পোর্ট থানার দুর্গাপুর গ্রামের মোজাম্মেল হকের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে কান ও গলার সমস্যায় ভুগছিলেন। বুধবার তিনিসহ দু’জন চিকিৎসা গ্রহণের জন্য আসেন জেনারেল হাসপাতালে। ৫ টাকা দিয়ে টিকিট কেটে আনোয়ারা বেগম বহিঃবিভাগে দায়িত্বরত নাক কান গলার চিকিৎসকের কক্ষের সামনে যান। এ সময় সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা দু’যুবক তাকে চিকিৎসকের কক্ষে নিয়ে যায়। চিকিৎসক দেখে তার ব্যবস্থাপত্রে ৪ প্রকারের ওষুধ লিখে দেন। টিকিট ফিরিয়ে দেয়ার সময় সাথে আরও একটি ছোট কাগজে হাসপাতালের ফার্মেসি থেকে বিনামূল্যের ওষুধ নেয়ার স্লিপ দেয়া হয়। চিকিৎসকের কক্ষ থেকে বেরিয়ে ওই দু’যুবক বিনামূল্যে ওষুধ পাওয়ার স্লিপ ও মূল টিকিট নিয়ে নেয়। এ সময় তাকে বলা হয় ওষুধ কিনতে হবে ৪শ’ ১০ টাকা দেন। টাকা নিয়ে আনোয়ারা বেগমকে এক পাশে দাঁড় করিয়ে রাখে। কয়েক মিনিট পর তারা হাসপাতালের ফার্মেসি থেকে বিনামূল্যের ওষুধগুলোই এনে দেয়। অথচ প্রতারকরা নগদ টাকা হাতিয়ে নেয়। ওষুধের মোড়ক দেখে আনোয়ারার সন্দেহ হয়। পাশের একজন রোগীকে বিষয়টি জানালে ওই যুবকদের প্রতারণা ফাঁস হয়ে যায়। আনোয়ারা বেগম বুঝতে পারেন তিনি প্রতারিত হয়েছেন।

খুলনা টিবি হাসপাতালে যক্ষ্মা জীবাণু কালচার ল্যাব

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা অফিস॥ খুলনার মীরেরডাঙ্গায় অবস্থিত বক্ষব্যাধি হাসপাতালে (টিবি হাসপাতাল) যক্ষ্মা জীবানু কালচার ল্যাবরেটরী স্থাপন করা হয়েছে। জাতীয় যক্ষা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচীর আওতায় ইউএসএইড এবং টিবি কেয়ার ২য় প্রজেক্টের কারিগরী ও আর্থিক সহযোগিতায় এ ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধান অতিথি হিসেবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক এই ল্যাব উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষ্যে নগরীর হোটের সিটি ইন-এ এক অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, খুলনায় টিবি হাসপাতালের নতুন ল্যাব স্থাপন টিবি চিকিৎসার ক্ষেত্রে নতুন এক মাইলফলক। সরাসরি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে যক্ষারোগ নির্ণয় ও এটি নির্মূলের অব্যর্থ এবং সহজ চিকিৎসা পদ্ধতি এখন মানুষের দোরগোড়ায়। যক্ষা রোগ সনাক্ত করণে প্রায় আট কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত অত্যাধুনিক এ ল্যাব এ অঞ্চলে চিকিৎসা ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদফরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নুরুল হক , খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, খুলনা জেলা পরিষদ প্রশাসক শেখ হারুনুর রশীদ এবং খুলনা বিএমএ’র সভাপতি ডা. শেখ বাহারুল আলম। সভাপতিত্ব করেন জাতীয় যক্ষা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির (এনটিপি) লাইন ডিরেক্টর (টিবি-লেপ্রসী) ডা. মোজাম্মেল হক। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ডা. মজিবর রহমান। স্বাগত বক্তৃতা করেন এনটিপি’র প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সরকার। পরে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শেখ আবু নাছের বিশেষায়িত হাসপাতাল, খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং খুলনা সদর হাসপাতাল পরিদর্শন করেন।