২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মধ্যরাতে ৯০ মিনিটের নজিরবিহীন শুনানি

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ইয়াকুর মেমনের সর্বশেষ আবেদনের শুনানির জন্য ভারতের সুপ্রীমকোর্ট ভবনের দরজা বুধবার রাত ৩টায় বিচারকদের জন্য খুলে দেয়া হয়। আদালতের ইতিহাসে এরূপ ঘটনা এ প্রথম ঘটে। বিচারকরা মেমনের ঐ দণ্ড কার্যকরী করার বিরুদ্ধে আনীত তার সর্বশেষ আবেদনের শুনানি করেন। ১৯৯৩ সালের মুম্বাই বোমা হামলায় জড়িত থাকার দায়ে তাকে ইতোপূর্বে মৃত্যুদ- দেয়া হয়। খবর টাইমস্ অব ইন্ডিয়ার।

প্রায় ৯০ মিনিটের শুনানি শেষে বিচারকগণ মেমনের নির্ধারিত মৃত্যুদ- কার্যকর করা বন্ধ রাখতে তার আবেদন প্রত্যাখ্যান করেন। স্থানীয় সময় সকাল ৭টার সামান্য আগে নাগপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে তাকে ফাঁসি দেয়া হয়। দিল্লীতে মধ্যরাতের পর ব্যাপক তৎপরতা চলে। মানবাধিকার কর্মী ও আইনজীবীরা ভারতের প্রধান বিচারপতি এইচএল দাত্তুর বাসভবনের বাইরে থেকে সুপ্রীমকোর্টের বিচারক দীপক মিশ্রের তুগলক রোডস্থ বাসভবনে এবং তারপর শেষে কয়েক কিলোমিটার দূরে প্রাসাদোপম সুপ্রীমকোর্ট ভবনে যান। সুপ্রীমকোর্টের ৪নং আদালতে তিন বিচারকের এক বেঞ্চ শুনানি গ্রহণ করেন।

দ্বিতীয় দফা শান্তি আলোচনার সম্ভাবনা নাকচ তালেবানের

আফগান সরকারের সঙ্গে চলতি সপ্তাহে দ্বিতীয় দফা শান্তি আলোচনার সম্ভাবনা নাকচ করেছে তালেবান। তবে তারা তাদের নেতা মোল্লা ওমরের মৃত্যুর খবরের বিষয়ে কোন মন্তব্য করেনি। খবর এএফপি ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের।

তালেবানের ওয়েবসাইটে পোস্ট করা ইংরেজী বিবৃতিতে তারা বলেছে, গণমাধ্যমে পাকিস্তান বা চীনে খুব শীঘ্রই শান্তি আলোচনা শুরুর বিষয়ে রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে। তবে আমাদের রাজনৈতিক কার্যালয় বিষয়টি সম্পর্কে অবগত নয়। দুই বছর আগে পাকিস্তানে মোল্লা ওমর মারা গেছেন। বুধবার এমন খবর প্রকাশিত হওয়ার পর এটাই তাদের প্রথম বিবৃতি। তারা দেশটিতে ১৪ বছর ধরে সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। বিদ্রোহীরা তাদের নেতার মৃত্যুর খবর আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত করেনি।